Techno Header Top and Before feature image

উইপ্রোর আউটসোর্সিং সেবা নেবে জিপি, চুক্তি সই

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গ্রামীণফোনের তথ্যপ্রযুক্তির অবকাঠামো ও বিভিন্ন ধরনের সেবা দিতে গ্রামীণফোনের সঙ্গে পাঁচ বছরের চুক্তি করেছে ভারতের অন্যতম তথ্যপ্রযুক্তি, কনসাল্টিং এবং আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠান উইপ্রো।

উইপ্রো বুধবার গ্রামীণফোনের তথ্যপ্রযুক্তি অবকাঠামো ও বিভিন্ন সেবা দিতে দেশের শীর্ষ অপারেটরটির সঙ্গে পাঁচ বছরের চুক্তির বিষয়টি জানিয়েছে।

উইপ্রো এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তারা তাদের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্ল্যাটফর্ম হোলমস, নিজস্ব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট, ম্যানেজমেন্ট, অবকাঠামোগত সহায়তা, রক্ষণাবেক্ষণ এবং ব্র্যাক  অফিস পরিচালনার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্যপ্রযুক্তি সেবা দেবে।

গ্রামীণফোনে বিশ্বের শীর্ষ মোবাইল অপারেটর সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান টেলিনর গ্রুপের প্রধানতম অংশীদারিত্ব রয়েছে।

wipro

উইপ্রো ভাইস প্রেসিডেন্ট অনিল কে জেইন এক বিবৃতিতে বলেন, গ্রামীণফোনের সাথে অংশীদারিত্ব করায় আমাদের মূল লক্ষ্য থাকবে প্রতিবেশি দেশটিতে আমাদের উপস্থিতি বাড়ানো, আমাদের নতুন এই ব্যবসার আরও বেশি পরিমাণে সুযোগ থৈরি করা। এজন্য আমরা খুব শীঘ্রই দেশটিতে একটি নতুন ডেলিভারি কেন্দ্র স্থাপন করব।

টেলিনর উইপ্রোর কৌশলগত ক্লায়েন্ট হিসেবে গ্রামীণফোনের সঙ্গে সব ধরনের যোগাযোগ রক্ষা করবে, যেখানে সাবেকদের সঙ্গেও সম্পর্ক মধুর থাকবে।

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী মাইকেল ফোলি বলেন, উইপ্রোর কাজের মূল্যায়ন ও তাদের ডোমেইন এক্সপার্টিজের উপর ভিত্তি করেই প্রতিষ্ঠানটিকে আমাদের সেবা ব্যবস্থাপনায় নির্বাচন করেছি।

আমাদের বিশ্বাস, এই চুক্তির ফলে সামনের দিনে পরিকল্পনামতো একটি ভালো ব্যবসায়িক ফলাফল নিয়ে হাজির হতে পারবো।

এর আগে গ্রামীণফোনকে এ ধরনের সেবা দিতো মার্কিন প্রতিষ্ঠান অ্যাকসেঞ্চার। কিন্তু গত ১৮ জুলাই বাংলাদেশে তাদের ৫৫৬ কর্মীকে ছাঁঠাই নোটিশ দেয় প্রতিষ্ঠানটি। একইসঙ্গে আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে বাংলাদেশে তাদের কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে।

প্রতি প্রান্তিকে গ্রামীণফোনের ৯৭ কোটি টাকার কাজ করত অ্যাকসেঞ্চার। যেটা এখন ৭৬ কোটি টাকায় রয়েছে।

অন্যদিকে প্রাথমিকভাবে প্রায় দুইশত কর্মী নিয়ে বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করতে চায় উইপ্রো। ইতোমধ্যে তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে বাংলাদেশে নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু করেছে প্রতিষ্ঠানটি। অ্যাকসেঞ্চারের প্রায় ২৫০ কর্মী গ্রামীণফোনকে আইটি সাপোর্ট দিয়ে থাকে। আর এখান হতেই কর্মীদের নিতে চায় উইপ্রো। ছাঁটায়ের নোটিশে থাকা অ্যাকসেঞ্চার বাংলাদেশ কার্যালয়ের ৫৫৬ কর্মীর অনেকেই তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে উইপ্রোতে চাকরির ইন্টারভিউ দিয়েছেন।

উইপ্রোর বাংলাদেশে কার্যক্রম চালুর পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা সেই ২০০৫ সাল হতে। তখন শুরুতে ৫০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে বাংলাদেশে স্থানীয় কোনো কোম্পানির সঙ্গে যৌথভাবে ব্রাঞ্চ চালু করবে এমন কথা চলছিল। এক যুগ পরে অবশেষে উইপ্রো বাংলাদেশে কাজ করতে আসছে।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

আরও পড়ুন