ইমো দিয়ে নারীর ব্যক্তিগত ছবি ফাঁস, গ্রেপ্তার ২

imo-logo-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যোগাযোগ অ্যাপ ‘ইমো’ দিয়ে অন্যের ব্যক্তিগত তথ্য হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন ( র‍্যাব )।

আটক ব্যক্তিরা ‘ইমো’ র মাধ্যমে স্পর্শকাতর ছবি, অর্থ আদান-প্রদানের জন্য ব্যবহৃত বিকাশ নম্বর এবং কারো কারো অফিসিয়াল তথ্য হাতিয়ে নিয়ে পরে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ব্ল্যাকমেইল করতো।

এমন কি ওই ব্যক্তিদের কাছে শতাধিক নারীর ব্যক্তিগত ছবি পাওয়ার দাবি করেছে র‍্যাব।

সোমবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া উইংয়ে সংবাদ সম্মেলন করে দুজনকে গ্রেপ্তার এবং তাদের জালিয়াতির বিষয়টি জানায় র‍্যাব।

imo-logo-techshohor

র‌্যাব ৩ জানায়, কারো মোবাইলে সমস্যা হলে, কিংবা মোবাইলে কোনো অডিও বা ভিডিও কনটেন্ট লোড করতে হলে মানুষ আশেপাশের কোনো মোবাইল সার্ভিসিংয়ের দোকানে যায়। তখন দোকানদার একটা ইমো অ্যাকাউন্ট খোলে নিজের মোবাইলে, কিন্তু এক্ষেত্রে মোবাইল নম্বর দেয় সেবা নিতে আসা ব্যক্তির।

তারা জানায়, এরপর ওই অ্যাকাউন্টের বিপরীতে একটা ইমো কোড আসে গ্রাহকের নম্বরে। তখন দোকানদার সেটা কনফার্ম করে দিয়ে ইমো অ্যাকাউন্ট চালু করে ফেলে।

তখন ওই গ্রাহকের মোবাইলে কোনো ইমো থাকলে সেটির একটি মিরর বা ক্লোন তৈরি হয় দোকানদারের মোবাইলে। কিন্তু গ্রাহকের মোবাইল থেকে ইমো সংশ্লিষ্ট মেসেজ বা বার্তাটি মুছে দেয় দোকানদার।

এরপর ওই গ্রাহক যখনি ইমোতে কোনো বার্তা বা ছবি আদান-প্রদান করবেন, তখনি স্বয়ংক্রিয়ভাবে সেটি ওই দোকানদারের ইমোতে চলে যায়। এভাবেই ওই গ্রাহকের অজান্তেই তার ব্যক্তিগত এবং স্পর্শকাতর তথ্য পাচার হয়ে যায়।

র‌্যাব জানায়, প্রতারকেরা এরপর ওই অ্যাকাউন্টের সূত্র ধরেই তার অন্য বন্ধুদের কাছে বার্তা পাঠিয়ে, আরো অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে এছাড়াও প্রবাসী কেউ যখন বিদেশ থেকে পরিবার বা আত্মীয় কাউকে অর্থ পাঠাবেন, তখন এ প্রান্ত থেকে পাঠানো বিকাশ নম্বরটি মুছে প্রতারকেরা অন্য নম্বর বসিয়ে দেয়। ফলে ওই প্রান্ত থেকে টাকা পাঠানো হয় ভিন্ন বিকাশ নম্বরে।

এভাবে ব্যক্তিগত আলাপচারিতার রেকর্ড, ছবি এবং অর্থ হাতিয়ে নেবার পর, প্রতারকেরা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের ব্ল্যাকমেইল করতো।

এভাবে ওই দুই ব্যক্তি শতাধিক নারীর ব্যক্তিগত ছবি হাতিয়ে নিয়ে ব্ল্যাকমেইল করেছে বলে জানায় র‍্যাব।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

আরও পড়ুন