Header Top

বাজেটের পরপরই ফোরজি

4g-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আসন্ন বাজেটের পরপরই ফোরজি  লাইসেন্স দেওয়াসহ সংশ্লিষ্ট বেতার তরঙ্গের নিলাম দেওয়া হবে।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত টেলিনরের শীর্ষ পর্যায়ের প্রতিনিধিদের ফোরজি নিলামের এই সময়ের কথা জানান।

শুক্রবার ওয়াশিংটনে আইএমএফ ও বিশ্ব ব্যাংকের বৈঠক চলাকালে গ্রামীণফোনের এই মূল কোম্পানির প্রতিনিধিরা অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করলে এই আলাপ উঠে।

এ সময় অর্থমন্ত্রী জানান, ইতোমধ্যে তিনি এ সংক্রান্ত একটি নীতিমালার কপি হাতে পেয়েছেন। দেশে ফিরেই তিনি টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বসবেন।

জুনের প্রথম বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বাজেট পেশ করবেন অর্থমন্ত্রী। তারপরই কোনো এক সময় হবে এই নিলাম।

4g-techshohor

এর মধ্যে গত সপ্তাহেই একবার বিষয়টি নিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটরের শীর্ষকর্তারা ঢাকায় অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন।
অপারেটররা বাড়তি তরঙ্গের উচ্চ মূল্যসহ আরও কয়েকটি বিষয় নিয়ে তাদের আপত্তি জানান।

সম্প্রতি ফোরজির জন্য বিটিআরসি একটি প্রস্তাবিত নীতিমালা সরকারের অনুমোদনের জন্য পাঠিয়েছে। যা ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে এখন বিবেচনার জন্যে রয়েছে। সেখানে ফোরজি সেবার ক্ষেত্রে রাজস্ব ভাগাভাগির পরিমাণ বৃদ্ধি করে ১৫ শতাংশে উন্নীত করতে বলেছে বিটিআরসি।

বর্তমানে সকল সেবার ক্ষেত্রে রাজস্ব ভাগাভাগি করা হয় সাড়ে পাঁচ শতাংশ। আরও এক শতাংশ অপারেটররা দেয় সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিলে।

এক লাফে রাজস্বের এত বড় ভাগ অপারেটরা ছাড়তে নারাজ। তারা বলছেন, তাদের মোট আয়ের ৪৭ শতাংশই সরকারের কোষাগারে চলে যায়। এটি আরও বাড়াতে বললে তাদের আর কিছুই থাকবে না।

মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব বলছে, থ্রিজির জন্য অপারেটররা প্রায় ত্রিশ হাজার কোটি টাকার সমপরিমাণ অর্থ বিনিয়োগ করেছে। কিন্তু সেই অর্থের বিনিময়ে তারা কেউই এখনও থ্রিজি হতে লাভ ঘরে তুলতে পারেনি।

তারা বলছেন, এতো বিনিয়োগ করেও যেখানে লাভ পাওয়া যাচ্ছে না সেখানে ফোরজির জন্য বাজার কতটা তৈরি আছে সেটিও দেখতে হবে। বাজারে এ মুহূর্তে খুব কম হ্যান্ডসেট আছে যেখানে ফোরজির সুবিধা রয়েছে। তাছাড়া নূন্যতম গ্রাহক প্রতি আয়, উচ্চ মাত্রার ট্যাক্সও তাদের জন্য ফোরজিতে বিনিয়োগ করা বড় প্রতিবন্ধকতা।

আর. এস হুসেইন

*

*

আরও পড়ুন