দিনে সাড়ে ৫ মিনিট কথা বলেন জিপি গ্রাহক

Grameenphone-3GInternet-Packages-techshhor

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পরিসংখ্যানটা পুরনো হলেও চমকপ্রদ। একটি মোবাইল ফোন অপারেটরের গ্রাহকরা বছরজুড়ে কতক্ষণ কথা বলেন তা সাধারণের কাছে কৌতুহলের বিষয়। টেলিযোগাযোগ খাতে এ তথ্যের প্রয়োজনীয়তা বলে বোঝানো যাবে না। আর এটি যদি হয় গ্রাহক বিচারে শীর্ষ অপারেটরের তাহলে কথাই নেই।

গ্রামীণফোন গ্রাহকরা ২০১৫ সালে ১০ হাজার ৮০০ কোটি মিনিট কথা বলেছেন। একই সময়ে দেড় হাজার কোটি এসএমএস লেনদেন হয়েছে অপারেটরটির নেটওয়ার্কে।

এমন তথ্য উঠে এসেছে গ্রামীণফোনের মূল কোম্পানি নরওয়ের টেলিনরের তৈরি প্রথম ‘গ্লোবাল ইমপ্যাক্ট রিপোর্টে’।

Grameenphone-3GInternet-Packages-techshhor

গ্রাহক সংখ্যার হিসেবে ওই এক বছরে অপারেটরটির প্রতিটি সংযোগের বিপরীতে এক হাজার ৯২৯ মিনিট কথা হয়েছে। এ হিসাব অনুযায়ী গ্রামীণফোনের একটি সংযোগে দিনে মাত্র সাড়ে পাঁচ মিনিট কথা হয়।

ওই বছরে প্রতিটি সংযোগের বিপরীতে ২৬৮টি এসএমএস লেনদেন হয়েছে।

মূলত বাংলাদেশের অর্থনীতিতে গ্রামীণফোনের অবদান ও অবস্থান তুলে ধরা হয়েছে এ প্রতিবেদন। এশিয়াসহ ১৩ দেশে তাদের সেবার পরিস্থিতি জানতে টেলিনর এ ধরণের প্রতিবেদন তৈরি করেছে।

প্রতিদেবন তৈরির সময়ে গ্রামীণফোনের মোট কার্যকর সংযোগ ছিল পাঁচ কোটি ৬০ লাখ। এ গ্রাহকরা ২০১১ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে দেশের অর্থনীতিতে মোট ২৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের অবদান রেখেছেন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

এরও বাইরে তারা ২০১৫ সালে দেশের অর্থনীতিতে প্রায় ১৫০ কোটি মার্কিন ডলার মূল্য সংযোজন করেছেন বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে এর পরিমান মোট মূল্য সংযোজনের দশমিক ৮ শতাংশ এবং প্রযুক্তি খাতের ৩০ দশমিক ৮ শতাংশ।

২০১৫ সালে দেশে অপারেটরটির প্রতিটি পূর্ণকালীন কর্মীর সরাসরি মূল্য সংযোজন ছিল ১ লাখ ৬৯ হাজার ৬২৩ মার্কিন ডলার, যা জাতীয়ভাবে একজন পূর্ণকালীন কর্মীর গড় উৎপাদনশীলতার চেয়ে ২৩ গুণ বেশি। দেশে কর্মীপ্রতি গড় জাতীয় উৎপাদনশীলতা ৭ হাজার ৪৯২ মার্কিন ডলার।

অপারেটরটি গত পাঁচ বছরে বাংলাদেশে ১১৭ দশমিক ৬ কোটি মার্কিন ডলার বিনিয়োগ করেছে। এর মধ্যে ২০১৫ সালে বিনিয়োগ হয়েছে ২৪ দশমিক ৮ কোটি ডলার।

২০১৫ সালে গ্রামীনফোন বিল পে সেবার মাধ্যমে সর্বমোট ৩২ কোটি ৫ ডলার সমমূল্যের ৮৮ লাখ ডলার লেনদেন করেছে। আর ২০১৬ সালে গ্রামীণফোনের ক্ষুদ্রবীমা সেবা নির্ভয় লাইফ ইন্স্যুরেন্সে ৫৭ লাখ গ্রাহক যুক্ত করেছে।

প্রতিবেদনের ওই বছরে অপারেটরটির নেটওয়ার্কে ইন্টারনেটে যুক্ত হওয়া হার বৃদ্ধি পেয়েছিল ৪৫ শতাংশ। বছর শেষে ইন্টারনেট গ্রাহক দাঁড়িয়েছিল এক কোটি ৯৭ লাখ।

অপারেটরটি এখন সব মিলে ১০ হাজার ৬৮টি বিটিএস দিয়ে থ্রিজি সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

১৯৯৭ সালে গ্রামীণফোনের লাইসেন্স নিয়ে মোবাইল সেবার ব্যবসা শুরু করে।

২০১১ সালে লাইসেন্স আরও ১১ বছরের জন্য নবায়ন করা হয় এবং ২০১৩ সালে থ্রিজির লাইসেন্স পায়।

*

*

আরও পড়ুন