বাংলার অ্যানিমেশন শর্টফিল্ম 'হ্যাপি ওয়ার্ল্ড' এর বিশ্বজয়

তুসিন আহমেদ,টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দ্যা উই আর্ট ওয়াটার ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভালে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশি অ্যানিমেশন শর্টফিল্ম ‘হ্যাপি ওয়ার্ল্ড’। পুরষ্কার হিসেবে হ্যাপি ওয়ার্ল্ড পাবে ১ হাজার ইউরো।

হ্যাপি ওয়ার্ল্ডে আফ্রিকা ও বাংলাদেশে খাবার পানির বিভিন্ন সমস্যা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। উই আর ওয়াটার ফাউন্ডেশন প্রতি বছর দ্য উই আর্ট ওয়াটার ইন্টারন্যশনাল ফিল্ম ফেস্টিভাল আয়োজন করে। এই ফেস্টিভালের মূল লক্ষ্য হলো, পৃথিবীজুড়ে খাবার পানির সমস্যা সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি করা।

বিজয়ী হওয়ার পর হ্যাপি ওয়ার্ল্ড সম্পর্কে অ্যানিমেশন নির্মাতা হাসান যোবায়ের টেকশহরডটকমকে বলেন, এই ফেস্টিভালে যখন দেখলাম কম্পিউটার অ্যানিমেশন জমা দেয়ার সুযোগ আছে তখন আর দেরি করিনি। টিমের সবাইকে নিয়ে প্ল্যান করলাম এবং কাজে নেমে পড়লাম। প্রায় ২-৩ মাসের পরিশ্রমের পর আমরা আমাদের ফিল্মটি জমা দেই। ফলাফলতো দেখতেই পাচ্ছেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে অ্যানিমেশন ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির অপার সম্ভাবনা রয়েছে। সরকার যদি এই সেক্টরকে এগিয়ে নিতে চায় তাহলে আমাদের দেশ থেকেই অনেক কিছু করা সম্ভব।

happyworld

তিনি আরও বলেন, কম্পিউটার অ্যানিমেশন শিখতে অনেক দিন সময় লাগে। হয়তো এই কারণে আমাদের দেশে এই সেক্টরটি তেমনভাবে গড়ে উঠেনি। তবে চেষ্টা করলে এখন সব কিছুই শেখা সম্ভব। আমার সব সময়ই অ্যানিমেশন ফিল্ম ভাল লাগতো। সেই আগ্রহের কারণেই অ্যানিমেশন শেখার চেষ্টা করি।

উল্লেখ্য ভেস্টিভালের বিচারক বোর্ড প্রায় ৩০০ শর্টফিল্ম থেকে ৪০টি শর্টফিল্ম চূড়ান্ত পর্বের জন্য বাছাই করেন। প্রায় ৮৮টি দেশ থেকে তিনটি ক্যাটাগরিতে এসব শর্টফিল্ম জমা হয়।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মাল্টিমিডিয়া ডিপার্টমেন্টের বাপ্পি, রাহাত ও তারেক শর্টফিল্ম তৈরি করতে সহযোগিতা করেন। এই অ্যানিমেশন শর্টফিল্মটি প্রায় ৩ মাস সময় নিয়ে তৈরি করে।

*

*

আরও পড়ুন