যেকারণে অ্যাপলকে সহায়তা করবে না হ্যাকাররা

fbi-vs-apple
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রযুক্তিবিশ্ব এখন অ্যাপল আর এফবিআইয়ের লড়াইয়ের দিকে তাকিয়ে। তবে প্রযুক্তি জায়ান্ট অ্যাপল অনেকটাই বিপত্তিতে পড়তে পারে এমনটা ধারণা করছেন অনেকেই। কারণ হ্যাকাররা অ্যাপল নয়, বরং এফবিআইকে সহায়তা করার সম্ভাবনা বেশি। চলুন দেখে নেওয়া যাক কি কারণে অ্যাপলকে সহায়তা করবে না হ্যাকাররা।

সম্প্রতি এফবিআইয়ের কাছে একটি তৃতীয় পক্ষ আইফোন আনলক করার জন্য যায়। এতে বিষ্মিত হয়নি নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা। তারা মনে করছেন এটিই স্বাভাবিক ছিলো যে হ্যাকাররা অ্যাপলের কাছে না গিয়ে বরং আইবিআইয়ের কাছেই যাবে।

fbi-vs-apple

নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা বলছেন, অ্যাপল বরাবরই গ্রাহকের সকল যোগাযোগ মাধ্যমগুলো এনক্রিপটেড রাখে এবং গ্রাহকের গোপনীয়তা রক্ষার চেষ্টা করে। তবে হ্যাকারদের হাত থেকে গ্রাহকদের তথ্য নিরাপদ রাখতে অন্যান্য প্রতিযোগি কোম্পানিগুলোর চেয়ে অ্যাপল একটু কমই গুরুত্ব দেয়। যখন হ্যাকাররা অ্যাপলের কোডে কোনো নিরাপত্তা ত্রুটি খুঁজে পায়, তখন সেটি ঠিক করতে হ্যাকাররা খুবই কম সম্মাননা দেয় অ্যাপল।

গুগল, মাইক্রোসফট, ফেইসবুক, টুইটার, মজিলাসহ অন্যান্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য, সেবায় ও সিস্টেমের ত্রুটি দূর করতে হ্যাকারদের বড় ধরণের পুরস্কার দেয়। গত বৃহস্পতিবার ইউবারও তাদের ত্রুটি ধরতে পুরস্কার ঘোষণা করেছে। ২০১০ সাল থেকে গুগল হ্যাকারদেরকে ৬ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি পুরস্কার দিয়েছে। সম্প্রতি ক্রোমবুক হ্যাক করতে পারলে ১ লাখ ডলার পুরস্কারের ঘোষণাও দিয়েছে কোম্পানিটি।

বিগত বছরগুলোতে অ্যাপলের নিরাপত্তা খুবই শক্তিশালী হিসেবে দেখা গেছে। তবে প্রতিষ্ঠানটি হ্যাকারদেরকে একটু কমই গুরুত্ব দিয়েছে। যখন হ্যাকাররা অ্যাপলের কোনো পণ্য বা সেবায় ত্রুটি খুঁজে পায় তখন অ্যাপল শুধুমাত্র ওয়েবসাইটে হ্যাকারের নাম প্রকাশ করেই ক্ষান্ত হয়ে যায়। কিন্তু হ্যাকারের প্রত্যাশা কি এখানেই শেষ?

অ্যাপলের কোনো ত্রুটি যদি হ্যাকাররা আন্ডারগ্রাউন্ড মার্কেটে বিভিন্ন কোম্পানি কিংবা সরকারি প্রতিনিধিদের কাছে বিক্রি করে তাহলে তারা অনেক লাভবান হবে। আর অ্যাপল এফবিআই লড়াইয়ে এ কারণেই অ্যাপল নয় বরং এফবিআইকেই সহায়তা করবে হ্যাকাররা!

ইকোনমিক টাইমস অবলম্বনে ফারজানা মাহমুদ পপি

আরও পড়ুন: 

*

*

আরও পড়ুন