উদ্যোক্তা হতে স্বপ্ন চাই

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উদ্যোক্তা হতে গেলে স্বপ্ন দেখতে হবে। স্বপ্ন হতে হবে বড় আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে থাকতে হবে বিশ্বাস।

দেশের প্রযুক্তিনির্ভর স্টার্টআপগুলো নিয়ে শুরু হওয়া কানেক্টিং স্টার্টআপস বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা নিয়ে আয়োজিত এক সেমিনারে নবীন উদ্যোক্তাদের এভাবে স্বপ্ন দেখতে উৎসাহিত করেন সফল উদ্যোক্তা ও বিশেষজ্ঞ বক্তরা।

রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে অনুষ্ঠিত ওই সেমিনারে অংশ নেন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও তরুণ উদ্যোক্তরা।

প্রেনিউরল্যাবের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ নিজামীর সঞ্চালনায় সেমিনারে প্রতিযোগিতার নানা দিক নিয়ে কথা বলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) যুগ্ম-মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো: মামুনুর রশিদ, বেসিসের পরিচালক ও স্টুডেন্ট ফোরামের আহবায়ক আরিফুল হাসান অপু।

Basis-1

সেমিনারে প্রতিযোগিতা নিয়ে ভিডিও উপস্থাপনা দেন বেসিসের যুগ্ম-মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান।

তিনি বলেন, এই প্রতিযোগিতা নবীন উদ্যোক্তাদের জন্য একটি বড় প্ল্যাটফর্ম। প্রতিযোগিতায় বিজয়ী নির্বাচনের ধাপগুলো এমনভাবে সাজানো হয়েছে যার মাধ্যমে প্রত্যেক অংশগ্রহনকারী তার উদ্যোগকে এগিয়ে নিতে নানা বিষয় শিখতে পারবে।

বিশ্বের শীর্ষ তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের উদাহরণ টেনে মোস্তাফিজুর রহমান আরও বলেন, কাউকে আসলে উদ্যোক্তা বানানো যায় না, তৈরি হয়ে যায়। যাদের ভেতরে কোনো আইডিয়া বাস্তবায়নের তাড়না রয়েছে কেবল তারাই উদ্যোক্তা হতে পারে।

প্যানেল আলোচক মো. মামুনুর রশিদ বলেন, প্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের জন্য এখন দারুণ সুযোগ। সরকারি প্রণোদনার পাশাপাশি এখন দেশি-বিদেশী বিনিয়োগকারীরাও বিনিয়োগে উৎসাহী। যা কয়েকবছর আগে মসৃণ ছিল না।

আরিফুল হাসান অপু বলেন, আইডিয়া শুধু মাথায় থাকলে চলবে না। প্রথমে খোঁজ নিন আপনার আইডিয়া আগেই বাস্তবায়ন হয়েছে কিনা। তারপর বিবেচনা করে দেখেন আপনার আইডিয়ার সামাজিক প্রভাব এবং ব্যবসায়িকভাবে তা কতটা লাভজনক।

সেমিনারের প্রশ্ন-উত্তর পর্বে অংশগ্রহণকারীরা নানা বিষয়ে প্রশ্ন করে প্যানেল আলোচকদের কাছ থেকে উত্তর জেনে নেন।

প্যানেল আলোচক ছাড়াও প্রতিযোগিতায় আবেদন সংক্রান্ত বিষয়ে কথা বলেন বেসিসের অনুষ্ঠান ও প্রকল্প নির্বাহী শাফায়েত চৌধুরী। সেমিনারে শেষে লটারির মধ্যমে অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে থেকে পাঁচজনকে পুরস্কার দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, কানেকটিং স্টার্টআপস হচ্ছে নবীন উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করার পাশাপাশি দেশী–বিদেশী বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে যোগসূত্র তৈরির একটি প্রতিযোগিতা।

প্রযুক্তিক্ষেত্রে নতুন উদ্ভাবনী আইডিয়া অথবা দুই বছরের কম সময়ের কোনো স্টার্টআপ যাদের ব্যবসায়ীক মূলধন ৫ হাজার ডলারের কম তারা কানেকক্টিং স্টার্টআপস প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবে।

প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা জনতা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে স্টার্টআপদের জন্য বরাদ্দকৃত ফ্লোরে অফিস স্পেস ছাড়াও অর্থসংস্থানের ব্যবস্থা, উদ্ভাবনী অনুদান, মেন্টরশিপ, আইনি সহায়তাসহ বিশ্ব স্টার্টআপস এক্সেলারেটর প্রোগ্রামে অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবেন।

প্রতিযোগিতাটি যৌথভাবে আয়োজন করেছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস), বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ (বিএইচটিপিএ) এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি)।

প্রতিযোগিতায় নিবন্ধনের শেষ সময় ৩০ জানুয়ারি। অংশগ্রহণের বিস্তারিত এই ঠিকানায়

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

আরও পড়ুন