অ্যাপ মার্কেটিং করবেন যেভাবে

Evaly in News page (Banner-2)

মোশাররফ রুবেল, অ্যাপ ডেভেলপার  অতিথি লেখক : মার্কেটপ্লেসে একটি অ্যাপ রিলিজ করে দিলেই কাজ শেষ হয়ে যায় না। বরং সেখান থেকে শুরু হয় মূল কাজ। নিজের উদ্ভাবনটিকে সকলের কাছে পরিচিতি করাতে হবে। কেননা অ্যাপ স্টোরের লাখো অ্যাপসের মধ্যে থেকে নিজের কাজটিকে টার্গেট গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। এ দিকে নজর দিতে হবে ডেভেলপারকে। এ জন্য দরকার সঠিক মার্কেটিং।

যথাযথ মার্কেটিংয়ের অভাবে হারিয়ে যেতে পারে অনেক ভালো অ্যাপ। শুধু ভালো মানের অ্যাপ্লিকেশন বানানো নয়, সেটিকে ভোক্তার কাছে নিয়ে যাওয়া সবচেয়ে জরুরি। কেননা আপনার সেরা কাজটি প্রচার না পেলে তা অ্যাপ স্টোরে পড়েই থাকবে। কেউ যদি সেটি ব্যবহার না করে তাহলে আপনার মূল উদ্দেশ্য মার খাবে।

অনেকের ধারণা মার্কেট প্লেসে অ্যাপ ছেড়ে দিলেই তা পেয়ে যাবে জনপ্রিয়তা। আসলে কিন্তু তা নয়। যথেষ্ট সময় ও শ্রম দিয়ে একটি অ্যাপকে জনপ্রিয় করার কাজ করতে হয়। এ জন্য যেসব কাজ করতে হয় সেগুলোর বিষয়ে ধারণা দিতে এ প্রতিবেদন।

Enterprise-App-Development_2

রিভিউ লিখুন
অ্যাপ মার্কেটিংয়ের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয় হচ্ছে অ্যাপটি সম্পর্কিত রিভিউ প্রকাশ। প্রশ্ন হচ্ছে কোথায় প্রকাশ করতে হবে রিভিউ। এ বিষয়ক রিভিউ প্রকাশ করার জন্য বেছে নিতে হবে দেশের জনপ্রিয় ব্লগিং প্ল্যাটফর্মগুলো।

অ্যাপ্লিকেশনটির ব্যবহারকারী বিশ্বব্যাপী হলে আন্তর্জাতিক ব্লগিং প্ল্যাটফর্মগুলোকে লক্ষ্য করে সেগুলোতে রিভিউ প্রকাশ করতে হবে। দেশীয় অনেক ব্লগে স্পন্সরের মাধ্যমে রিভিউ প্রকাশ করা যায়, সেগুলোতে অ্যাপ নিয়ে সহজ ও গ্রহণযোগ্য ভাষায় রিভিউ লিখতে হবে।

প্রেস রিলিজ
আপনি নতুন অ্যাপ বাজারে আনার পর সেটির বিষয়ে সবাইকে জানাতে প্রেস রিজিল পাঠাতে পারেন বিভিন্ন গনমাধ্যমে। এতে তারা আপনার অ্যাপ্লিকেশনটি সম্পর্কে জানার সুযোগ পাবে।

গণমাধ্যমের কর্মীরা আপনার অ্যাপটিকে ভালো ও মানসম্মত মনে করলে তারা আপনার অ্যাপ নিয়ে খবর প্রকাশ করবে। এতে এ সম্পর্কে অনেকে জানতে পারবেন।

এসব খবর প্রকাশ হলে সেটির লিংক আপনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন। এতে আরও কিছু ভিজিটর পাবেন যারা খবরটি পড়ে আপনার অ্যাপ ডাউনলোডে আগ্রহী হতে পারেন।

ভিডিও তৈরি করুন
আপনার অ্যাপ নিয়ে ভিডিও তৈরি করুন। স্টোরগুলোতে সাধারনত অ্যাপের সঙ্গে অ্যাপ নিয়ে তৈরি ভিডিও দেওয়ার সু্যোগ থাকে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই অ্যাপের জন্য মান সম্মত ভিডিও তৈরি করতে পারেন।

ভিডিও থাকলে ব্যবহারকারীরা সহজেই অ্যাপ সম্পর্কে ধারণা পাবেন। খেয়াল রাখবেন অ্যাপ ভিডিওয়ের দৈর্ঘ্য যেন দেড় থেকে দুই মিনিটের ভেতরে হয়। বেশি লম্বা ভিডিও হলে ব্যবহারকারী তা অপছন্দ করতে পারেন।

মনে রাখবেন, দেড় থেকে দুই মিনিটের ভেতরে আপনার ভিজিটর সিদ্ধান্ত নেবে অ্যাপটি ডাউনলোড করবে কি-না। তাই ভিডিওর শুরুর দিকে এমন কোনো তথ্য দিতে হবে যাতে তিনি আকৃষ্ট হন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার দিন
ফেইসবুক, টুইটার, গুগল প্লাস, লিঙ্কডইন, ডিগ, স্ট্যাম্বলআপনসহ সব জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করুন আপনার অ্যাপ।

অ্যাপের জন্য পেইজ তৈরি করুন, পেইজ প্রোমট করুন। অ্যাপের বিশেষ দিক উল্লেখ করে বিজ্ঞাপনও দিতে পারেন। এতে অধিক সংখ্যক ব্যক্তির কাছে তা পৌঁছাবে।

vkuc71

ব্লগে বিজ্ঞাপন দিন
বিভিন্ন জনপ্রিয় ব্লগে বিজ্ঞাপন দিন। ব্লগের মোবাইল ভার্সনের জন্য বিজ্ঞাপন স্পেস কিনুন। যেহেতু অ্যাপের ব্যবহারকারীদের বেশিরভাগ স্মার্টফোন ব্যবহারকারী তাই মোবাইল ভার্সনের ছোট ছোট ব্যানার বিজ্ঞাপন দিতে পারেন।

এক্ষেত্রে আকর্ষনীয় গ্রাফিক ডিজাইন সমৃদ্ধ ব্যানার ব্যবহার করুন, যেখানে অল্প কথায় অ্যাপের মূল দিক তুলে ধরা যাবে।

গুগল অ্যাডওয়ার্ডস ব্যবহার করুন
গুগল অ্যাডওয়ার্ডস অনলাইনে বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য সবচেয়ে ভালো প্ল্যাটফর্ম। এখানে বিজ্ঞাপন দিলে টার্গেটড ব্যবহারকারীকদের কাছে সেই নির্দিষ্ট বিজ্ঞাপন দেখাবে গুগল।

আপনার অ্যাপের মার্কেটিংয়ের জন্য চমৎকার একটি প্ল্যাটফর্ম হতে পারে এটি।

লোকাল ক্যাম্পেইন করুন
স্থানীয়ভাবেও প্রচার চালাতে হবে। এটি বেশ কাজের। বন্ধু, আত্মীয়সহ পরিচিত জনদের আপনার অ্যাপের বিষয়ে জানান। তারা আকৃষ্ট হলে প্রচারের অনেকখানি তারা আপনার হয়ে করে দেবে।

এ ছাড়া স্থানীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পৃষ্ঠপোষকতার সঙ্গে যুক্ত হোন, মেলা বা প্রদর্শনীতে অংশ নিন, কুইজ প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে পারেন।

একই সঙ্গে স্টিকার ও পোস্টার তৈরি করে প্রচার চালাতে পারেন। এতে প্রসার বাড়বে ভালো গতিতে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষ্ঠানে, বিভিন্ন সচেতনতামূলক অনুষ্ঠানে যুক্ত হলে আপনার অ্যাপ চলে যাবে অন্য মাত্রায়।

rubel

আরও পড়ুন 

*

*

আরও পড়ুন