বিপিওতে ৭ বছরে আয় বেড়েছে ৩২ গুণ

callcenter-techshohor

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং (বিপিও) খাতের প্রসার বেশ জোরেশোরেই বাড়ছে। সাত বছরের ব্যবধানে বেড়েছে ৩২ গুণ। টাকার অংকে এ খাতের বিকাশের এমন চিত্রই জানান দিচ্ছে।

২০০৮ সালে এ খাত থেকে আয় ছিল ৪০ লাখ ডলার। ২০১৫ সালে তা ১৩ কোটি ২০ লাখ ডলার হয়েছে। আগামী ছয় বছরে যা ১০০ কোটি ডলার ছাড়াবে বলে প্রত্যাশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। যদিও বর্তমান আয়ের ৮০ শতাংশই আসছে স্থানীয় কাজ থেকে।

বুধবার শুরু হওয়া দুই দিনের বিপিও সামিটে এ খাত থেকে আয় বৃদ্ধির এমন স্বপ্নের কথাই ঘুরে ফিরে বলেছেন সবাই। বলা হচ্ছে, শুধু বিপিও খাতের ১০০ কোটি ডলার-ই নয়, ২০২১ সালের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি খাত থেকে আসবে সব মিলে ৩০০ কোটি ডলার। যার এক তৃতীয়াংশ আসবে বিপিও থেকে।

Techshohor Youtube

callcenter-techshohor

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় থেকে শুরু করে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বা ছোট্ট একজন বিপিও উদ্যোক্তা সকলের মধ্যে এখন এ খাত নিয়ে স্বপ্ন সঞ্চারিত হয়েছে।

বাংলাদেশ অ্যাসোশিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিংয়ের (বাক্য) সভাপতি আহমেদুল হক ববি জানান, নানা সময়ে ধুকে ধুকে হলেও তারা এখন একটি ভালো শুরুর অপেক্ষায় আছেন।

খুব স্বল্পপরিসরে শুরুর পর এখন এ খাতের অবস্থা ভালো হচ্ছে জানিয়ে এ উদ্যোক্তা বলেন, ৪০ লাখ ডলার আয় ও তিনশ মানব সম্পদ দিয়ে শুরু করেছিলেন তারা। ২০১২ সালে সেটি পৌঁছে হয়েছে এক কোটি ২০ লাখ ডলার। পরের বছর এ আয় দাঁড়িয়েছে ৫ কোটি ২০ লাখ ডলার এবং ২০১৪ সালে হয়েছে ৮ কোটি ২০ লাখ ডলার।

ববি’র মতে শুরুর জন্য এ অগ্রযাত্রা মোটও খারাপ নয়। তবে গতি আরও বাড়তে হবে।

অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, তাদের মোট আয়ের ৮০ শতাংশ এখনও আসছে স্থানীয় বাজার থেকে। বাকিটা আন্তজার্তিক বাজারের।

তবে কিছু উদ্যোগ নেওয়া গেলে এখনই স্থানীয় বাজারের আরও কয়েক কোটি টাকার কাজ তারা করতে সক্ষম বলে জানান ববি। বিশেষ করে ব্যাংকিংসহ আর্থিক খাত এবং সরকারি অনেক কাজ সহজেই তারা করতে পারেন, যা সামগ্রিক অর্থনীতিতে গতি আনবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বিপিও থেকে আয়
২০০৮ ৪০ লাখ ডলার
২০১২ ১ কোটি ২০ লাখ ডলার
২০১৩ ৫ কোটি ২০ লাখ ডলার
২০১৪ ৮ কোটি ২০ লাখ ডলার
২০১৫ ১৩ কোটি ২০ লাখ ডলার

*

*

আরও পড়ুন