জিপিতে জামায়াত : ফেইসবুকে মন্তব্য করায় প্রকৌশলীকে শোকজ

Evaly in News page (Banner-2)

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আলবদর বাহিনীর নেতা আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদের পুত্রকে নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক সংবাদের ফেইসবুকে শেয়ার করা লিংকের পোস্টে মন্তব্য করায় এক জ্যেষ্ঠ প্রকৌশলীকে কারণ দর্শনাের নোটিশ (শোকজ) দিয়েছে গ্রামীণফোন।

দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন (জিপি) কর্তৃপক্ষ নোটিশে ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কেন ‘ডিসিপ্লিনারি’ ব্যবস্থা নেওয়া হবে সেটির ব্যাখাও চেয়েছে। এতে ফেইসবুকে করা মন্তব্যের পক্ষে প্রমাণ, ডকুমেন্টসসহ আট দিনের মধ্যে লিখিতভাবে জবাব দিতে বলেছে বলা হয়ছে।

গত রোববার (৭ জুন) অপারেটরটির ‘পিপল অ্যান্ড অরগানাইজেশন’ বিভাগ থেকে নোটিশটি দেওয়া হয়।

‘গ্রামীণফোনের শীর্ষ পদে মুজাহিদের ছেলে : রাষ্ট্রীয় তথ্য চুরির শঙ্কা’ শিরোনামে গত ১৯ মে বিডি জার্নাল নামে এক অনলাইন পোর্টালে এ সংবাদ প্রকাশিত হয়। ফেইসবুকে এ নিউজের লিংক শেয়ার করা একটি পোস্টের নিচে জিপির টেকনোলজি বিভাগের ওই প্রকৌশলী মন্তব্য করেছিলেন, “শুধু তাই কি গ্রামীনফোনে ৭০% বেশী কর্মচারী কর্মকর্তা জামাত শিবিরের সাপোর্টার এবং বড় ডোনার ৷”

last

দেশের সবচেয়ে বড় অপারেটর জিপির শীর্ষ পদে একজন যুদ্ধপরাধীর ছেলের চাকরি করার বিষয়ে সংবাদ প্রকাশের পর তা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে বিশেষ করে ফেইসবুকে ব্যাপক আলোচনা হয়। ফেইসবুকে ওই নিউজের লিংকটি হাজার হাজার শেয়ার হয়। অনেকে যেমন এটিতে লাইক দেন, তেমনি অনেকে মন্তব্যও করেন।

সংবাদটির এমনই এক ফেইসবুক লিংক শেয়ারের পোস্টের নিচে ওই জ্যেষ্ঠ প্রকৌশলী গত ১৯ মে রাত ১০টা ৫৪ মিনিটে ওই মন্তব্য করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কর্মকর্তা ১৫ বছর ধরে জিপিতে কর্মরত রয়েছেন। ওই কমেন্টসে তিনি আরও লেখেন, “…নিচ থেকে উপরের লেভেল পর্যন্ত গত কয়েক বছরে যতগুলি ইঞ্জিনিয়ার নিয়োগ দিছে তার ৯৫% ভাগই তাদের (জামায়াত-শিবিরের) দলীয় লোকদের পৃষ্টপোষকতা করার জন্য। যারা লীগ (আওয়ামী লীগ) করে তাদের নানা ধরনের নির্যাতন করে, অত্যাধিক কাজ দিয়ে, অভার টাইম যা করায় তা অ্যাপ্রুভ না করে৷ সবই তাদের নিয়ন্ত্রণে। বছরের পর বছর প্রমোশন বঞ্চিত করে রাখা, আর ছাগুদের প্রমোশন হয়, রেটিং ভালো, বেতন বেশি বৃদ্ধি পায়।”

ফেইসবুকে মন্তব্যের কারণে কোনো মোবাইল অপারেটর কর্তৃপক্ষ কোনো কর্মকর্তাকে শোকজ করেছে এমন ঘটনা আগে শোনা যায়নি।

শোকজের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে জানতে চাইলে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ এক ই-মেইলে টেকশহরডটকমকে জানায়, “কোনো ধরনের তথ্যপ্রমাণ ছাড়া ঢালাওভাবে এ মন্তব্য করা হয়েছে, যা কোম্পানির আচরনবিধির (কোড অব কন্ডাক্ট) সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এ কারণে একটি প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে এ নোটিশ দেওয়া হয়েছে।”

ফেইসবুকে মন্তব্য করার ১৮ দিন পর গত রোববার ‘পিপল অ্যান্ড অরগানাইজেশন’ বিভাগের ‘ডেপুটি এথিক্স অ্যান্ড কমপ্লায়েন্স’ কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত ওই নোটিশে স্যোশাল মিডিয়ার কথা বলা থাকলেও যে সংবাদ লিংকে ওই কর্মকর্তা মন্তব্য করেছেন তা উল্লেখ করা হয়নি।

জিপির টেকনোলজি বিভাগের রিজিওনাল অপারেশনে দায়িত্বপালনরত ওই কর্মকর্তা টেকশহরডটকমকে বলেন, “গ্রামীণফোনের শীর্ষ পদে মুজাহিদের ছেলে : রাষ্ট্রীয় তথ্য চুরির শঙ্কা’ সংবাদের ফেইসবুক কমেন্টসের কারণেই তাকে শোকজ করা হয়েছে। ওই মন্তব্যের জের ধরেই এ বিষয়ে তার কাছ থেকে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে।”

Screenshot_4 copy

শোকজে বলা হয়েছে “বাংলাদেশেেএকটি গণতান্ত্রিক দেশ। এখানে যে কেউ তার ব্যক্তিগত মত ও বিশ্বাস সোশ্যাল মিডিয়ায় উপস্থাপন করতে পারে। কিন্তু গ্রামীণফোনের ৭০ ভাগ কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করার কোনো সুযোগ নেই। যারা নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে জাতীয় অর্থনীতিতে অবদান রাখছে।”

এতে আরও বলা হয়, “সোশ্যাল মিডিয়ায় আপনি গ্রামীণফোনের তিন হাজার কর্মীর ৭০ শতাংশের বিরুদ্ধে ঢালাওভাবে অপত্যাশিত ও আক্রমনাত্বক ভাষায় অভিযোগ করেছেন। এটি শুধু আচরণবিধি ভঙ্গ নয়, জাতীয় আইনে শাস্তিযোগ্য অপরাধও।”

শোকজ পাওয়ার পর ওই কর্মকর্তা টেকশহরডটকমকে বলেন, “মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের মতাদর্শের কারণে আমাকে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে হেনস্থা করতে এটি করা হচ্ছে। ফেইসবুকে আমি নৌকায় ভোট চেয়েছি, রাজাকারদের বিরুদ্ধে কথা বলে আসছি সব সময়। তাই আমার ব্যক্তিগত দলীয় মতাদর্শের কোনো মন্তব্য অফিসিয়াল বিষয় হতে পারে না।”

জিপির জ্যেষ্ঠ ওই প্রকৌশলী আরও অভিযোগ করেন, “২০০৭ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত সিলেটে কর্মরত থাকার সময় সেখানকার ৪৮ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর মধ্যে বেশিরভাগই ছিল মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষের মতাদর্শের ও বর্তমান সরকার বিরোধী। এ কারণে সেখানকার বাকি কর্মকর্তাদের নানাভাবে হয়রানির শিকার হতে হয়েছে।”

ওই কর্মকর্তা স্বাধীনতা বিরোধীদের কার্যক্রম নিয়ে মন্তব্য করায় তার সঙ্গে এমন অন্যায় করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন। তিনি এ জন্য ন্যায়বিচার কামনা করেন।

প্রকাশিত ওই সংবাদে মুজাহিদের পুত্র আলি আহমেদ তাহকিক গ্রামীণফোনের স্টেইকহোল্ডার রিলেশন্স ডিপার্টমেন্টের রিলেশনশিপ ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত আছেন। ওই সংবাদে আরও কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে সরকার বিরােধী বলে উল্লেখ করা হয়েছে। এসব কর্মকর্তা অপারেটরটির স্পর্শকাতর বিভাগের দায়িত্ব রয়েছেন বলেও উল্লেখ করা হয়।

১ টি মতামত

Leave a Reply to Nahid Cancel reply

*

*

আরও পড়ুন