ফোন চার্জ নিয়ে যত ভুল ধারণা

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্মার্ট ফোনের ব্যাটারির কার্য ক্ষমতা নিয়ে অভিযোগের শেষ নেই। গত এক দশকে মোবাইল ফোনের প্রযুক্তি এগিয়েছে বহুগুণ।

তবে, সে অনুপাতে এর ব্যাটারির ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়নি এতটুকু। এ নিয়ে বিস্তর গবেষণা হচ্ছে। ফোনের ব্যাটারি সংক্রান্ত কিছু ভুল ধারণা প্রচলিত রয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি কারণ তুলে ধরা হলো।

বেশিরভাগ সময়ে যে কাজটি করা হয় তা হলো ফোনের ব্যাটারি পুরোপুরি চার্জ দেওয়া। যাতে ব্যাটারি তার সর্বোচ্চ সার্ভিস দেয়। কিন্তু ৮০ ভাগ চার্জ হওয়ার পরপরই চার্জ বন্ধ করে দেওয়া উচিত। স্মার্টফোন বা অ্যান্ড্রয়েড ফোনগুলো ৪০ শতাংশ থেকে ৮০ শতাংশের মধ্যে সবচেয়ে ভালো কাজ করে থাকে।

images (Custom)

বারবার চার্জ দিলে ব্যাটারি বা ফোনের ক্ষতি হতে পারে বলে যে প্রচলিত ধারণা রয়েছে তাও সত্যি নয়।

ব্রান্ড ছাড়া চার্জার ব্যবহার করা একেবারেই ঠিক নয়। ব্যবহারকারী যে ডিভাইসটি ব্যবহার করছেন শুধু ওই ডিভাইসের জন্য তৈরী চার্জারটিই ব্যবহার করা ব্যাটারি ও ডিভাইসের জন্য ভালো।

রাতভর ফোন চার্জ সেটের জন্য ক্ষতিকর বলে মনে করেন অনেকে এটাও ঠিক নয়। এখনকার বেশিরভাগ ফোন এতোটা স্মার্ট যে পুরোপুরি চার্জ হলে সয়ংক্রিয়ভাবে চার্জ নেওয়া বন্ধ করে দেয়।

বেশিরভাগ মানুষ মনে করেন চার্জ করা অবস্থায় ফোনে কথা বলা ব্যাটারির জন্য ক্ষতিকর। এটি ঠিক নয়।

ফোন বারবার বন্ধ করাটাও ব্যাটারির জন্য ক্ষতিকর নয়। বরং কিছু কিছু ক্ষেত্রে তা ডিভাইসের জন্য উপকরী।

নতুন ফোন কেনার পর শতভাগ চার্জ বা দীর্ঘ সময় চার্জ করতে হবে, এমনটা মোটেও ঠিক নয়।

ইন্টারনেট ব্যবহার বা গেইমের ক্ষেত্রে ডিভাইসের স্কিনের ব্রাইটনেস কমিয়ে রাখা ভালো। তবে, ইন্টারনেট ব্যবহার ব্যাটারির চার্জ তারাতাড়ি শেষ করে এমনটা সত্যি নয়।

ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ ও জিপিএস অন থাকলেও যদি কাজ না করা হয়, সে ক্ষেত্রে এটি ব্যাটারির উপর কোন প্রভাব ফেলে না।

কেউ কেউ ফোনের ব্যাটারি খুলে ঠান্ডা স্থান বা ফ্রিজে রেখে থাকেন চার্জ ধরে রাখতে, এটি আসলে কুসংস্কার ছাড় আর কিছু নয়।

এছাড়া, থার্ড পার্টি টাস্ক ম্যানেজার অ্যাপও ফোনের ব্যাটারির উপর কোন রকম প্রভাব ফেলে না।

টেক রিপাবলিক অবলম্বনে সৌমিক আহমেদ

আরও পড়ুন:

*

*

আরও পড়ুন