vivo Y16 Project

এইচপি ল্যাপটপ এ০০৯এইউ : সস্তায় টাচ স্ক্রিন হলেও গতিতে ধীর

আদনান নিলয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এইচপির টাচস্মার্ট সিরিজের নোটবুকগুলো বাজারে আসামাত্র জনপ্রিয়তা পেয়েছে কমদামে টাচস্ক্রিন ডিসপ্লের জন্য। পারফরম্যান্সে কিছুটা দুর্বলতা রয়ে গেলেও যারা উইন্ডোজ ৮ টাচে ব্যবহার করতে চান, তারা কিনতে পারেন টাচস্মার্ট ১১-এ০০৯এইউ
মডেলটি।

ডিজাইন
আকারে ছোট হওয়ায় নোটবুকটি যে কোনো ছোট ব্যাগে খুব সহজে বহন করা যাবে। এর বডি প্লাস্টিকে তৈরি, তবে ফিনিশিং অ্যালুমিনিয়ামের মতো স্মুথ। ওজন (দেড় কেজি) ও পুরুত্বের দিক দিয়ে অবশ্য ভারীর দিকে থাকবে এটি।

hp-pavilion-touchsmart-11

Techshohor Youtube

ডিসপ্লে
এতে আছে ১১.৬ ইঞ্চি এলইডি ডিসপ্লে, যার রেজুল্যুশন ১৩৬৬*৭৬৮ পিক্সেল। ডিসপ্লে টেন-পয়েন্ট টাচস্ক্রিন এবং টাচ ইনপুট যথেষ্ট নিখুঁত ও রেসপন্সিভ। যদিও ডিসপ্লের ভিউয়িং অ্যাঙ্গেল খুব একটা ভালো নয়।

কানেক্টিভিটি
ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ, ইথারনেট কানেকশনের সাথে এর ইন্টারফেসে আছে দুইটি সুপারস্পিড ইউএসবি ৩.০, একটি ইউএসবি ২.০, একটি এইচডিএমআই পোর্ট ও কার্ড রিডার। স্ক্রিনের ওপর ২ মেগাপিক্সেলের ওয়েবক্যাম আছে। চিকলেট স্টাইলের পৃথক কি থাকায় কিবোর্ড ব্যবহার বেশ সুবিধাজনক।

কনফিগারেশন
এএমডি ডুয়াল কোর এ৪-১২৫০ এপিইউ প্রসেসর করা হয়েছে এতে, যার ক্লকরেট ১ গিগাহার্জ। র‍্যাম ৪ জিবি, হার্ডডিস্ক ৫০০ জিবি। গ্রাফিক্স কার্ড এএমডি রেডন এইচডি ৮২১০।

আরেকটি চমৎকার ফিচার ডিটিএস সাউন্ড সিস্টেম, যার ফলে চমৎকার অডিও কোয়ালিটি পাওয়া যাবে।

পারফরম্যান্স
টাচস্ক্রিনের কারণে উইন্ডোজ ৮ পূর্ণ মাত্রায় ব্যবহার করা যাবে এতে। উইন্ডোজ স্টোরের যে কোনো অ্যাপ চালানো যাবে। তবে প্রতিদিনের ব্যবহারে বড় বাধা হয়ে দাঁড়াবে দুর্বল পারফরম্যান্স। প্রসেসর দুই কোরের হলেও ক্লক স্পিড খুব কম হওয়ার প্রভাব সহজে বোঝা যাবে।

HP Pavilion 11 x2_back-580-90

ব্রাউজারে কয়েকটি উইন্ডো খুললেই সিস্টেম স্লো হয়ে যাবে। এমনকি মাইক্রোসফট অফিস ব্যবহার করতেও সমস্যা হতে পারে। মাল্টিটাস্কিং, গেইমিংয়ের ক্ষেত্রেও পারফরম্যান্স একইরকম হতাশাজনক।

ব্যাটারি
এর তিন সেলের লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি সাধারণ ব্যবহারে চার ঘণ্টার মতো ব্যাকআপ দেবে। যা এন্ট্রি লেভেলের একটি নোটবুকের জন্য অনেক।

বর্তমানে নোটবুকটির দাম ৩২ হাজার ৫০০ টাকা।

এক নজরে ভালো
– কমদামে টাচস্ক্রিন ল্যাপটপ
– সবরকম কানেক্টিভিটি
– ভালো ব্যাটারি লাইফ

এক নজরে খারাপ
– পারফরম্যান্স ধীরগতির
– স্ক্রিন কোয়ালিটি খুব একটা উন্নত নয়

*

*

আরও পড়ুন

vivo Y16 Project