অনলাইন নীতিমালার খসড়া মূল কমিটির হাতে

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অনলাইন গণমাধ্যম পরিচালনা নীতিমালার খসড়া আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করেছে প্রধান তথ্য কর্মকর্তার নেতৃত্বাধীন ১৩ সদস্যের মূল কমিটি।

বুধবার তথ্য মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত অনলাইন গণমাধ্যম সহায়ক খসড়া নীতিমালা প্রণয়ন কমিটির সভায় এ খসড়া আনুষ্ঠানিকভাবে গৃহীত হয়। প্রধান তথ্য কর্মকর্তা তছির আহমেদ ১৩ সদস্যের মূল কমিটির প্রধান। ।

তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বারের নেতৃত্বাধীন ছয় সদস্যের উপ-কমিটি খসড়াটি তৈরি করে। মূল কমিটি আগামী ১০ দিন খসড়াটি পর্যালোচনা করে ভাষা বা উপস্থাপনাগত বিষয় খতিয়ে দেখবে।

unnamed

জানুয়ারি মাসেই কমিটি খসড়াটি চূড়ান্ত করে তথ্য মন্ত্রণালয়ে জমা দেবে।

উপ-কমিটির প্রধান মোস্তাফা জব্বার টেকশহরডটকমকে জানান, জানুয়ারি মাসেই আমরা খসড়াটি চূড়ান্ত করে তথ্য মন্ত্রণালয়ে জমা দেবো।

খসড়াতে উল্লেখযোগ্য বিষয়ের মধ্যে রয়েছে, বিদ্যমান অনলাইন গণমাধ্যমগুলো শর্ত পূরণ সাপেক্ষে লাইসেন্সে পাবে। লাইসেন্স পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো সরকারি বিজ্ঞাপনসহ সরকারের সব সুযোগ-সুবিধা পাবে।

এতে বলা হয় মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ, চেতনা, রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় আদর্শ ও নীতিমালা সমুন্নত রাখতে হবে। সব প্রকারের তথ্য-উপাত্তে উভয় পক্ষের যুক্তিগুলো যথাযথভাবে উপস্থাপনের সুযোগ থাকতে হবে।

কোনো বিদেশি রাষ্ট্রের অনুকূলে এমন ধরনের প্রচারণা যা বাংলাদেশ ও সংশ্লিষ্ট দেশের মধ্যে বিরোধের কোনো একটি বিষয়কে প্রভাবিত করতে পারে কিংবা বন্ধুভাবাপন্ন বিদেশি রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে এমন ধরনের প্রচারণা যার ফলে সেই রাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে সুসম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা সৃষ্টি হতে পারে এমন তথ্য-উপাত্ত প্রচার ও প্রকাশ করা যাবে না।

সব ধর্মীয় অনুভূতির প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা প্রদর্শন করতে হবে। উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড বিশেষ করে স্বেচ্ছাভিত্তিক কাজের উদ্বুদ্ধকরণ এবং এই লক্ষ্য বাস্তবায়নে তথ্য-উপাত্ত প্রচারে যথাসমম্ভব সচিত্র প্রতিবেদন উপস্থাপন করতে হবে।

কৃষি ও শিল্পক্ষেত্রে উৎপাদন বৃদ্ধি এবং দেশকে স্বনির্ভর করে গড়ে তোলার আন্দোলনে জনসাধারণকে অনুপ্রাণিত করতে হবে।

এতে বলা হয়, অপরাধীদের কার্যকলাপের কৌশল প্রদর্শন করা যাবে না। প্রত্যেক অনলাইন গণমাধ্যমের সুনির্দিষ্ট কর্তব্য ও সম্পাদকীয় নীতিমালা থাকতে হবে।

জাতীয় আদর্শ বা উদ্দেশ্যের প্রতি কোনো প্রকার ব্যঙ্গ বা বিদ্রূপ, বাংলাদেশের জনগণের প্রতি অবমাননা বা ব্যঙ্গ কিংবা বাংলাদেশের জনগণের জাতীয় চরিত্রের প্রতি কটাক্ষ বা স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশের অখণ্ডতা বা সংহতি ক্ষুণ্ন হতে পারে এমন তথ্য-উপাত্ত প্রচার করা যাবে না।

মোস্তাফা জব্বার জানান, এটি একটি পূর্ণাঙ্গ নীতিমালা যেখানে অনলাইন গণমাধ্যম পরিচালনা ও মনিটরিংয়ে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা অক্ষুন্ন রেখে একটি সুব্যবস্থাপনার নীতি ঠিক করা হয়েছে।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

আরও পড়ুন