লভ্যাংশ দিতে সমঝোতার চেষ্টা জিপির, কর্মীদের কর্মসূচীও চলছে

আল আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : কর্মীদের লভ্যাংশ দিতে সমঝোতার চেষ্টা করছে গ্রামীণফোন। তবে লভ্যাংশ পেতে যোগ্য কর্মীদের তালিকা প্রশ্নে আটকে আছে সমঝোতা।

ম্যানেজমেন্ট বলছে কর্মীদের পাওনা পরিশোধে আমরা আন্তরিক তবে যোগ্য কর্মীদের তালিকা তৈরির প্রক্রিয়া ঠিক করতে লিগ্যাল ভেটিং, বোর্ড অনুমোদনসহ ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় প্রয়োজন।

অন্যদিকে গ্রামীণফোন পিপলস কাউন্সিল(জিপিসি) এবং গ্রামীণফোন অ্যামপ্লয়িজ ইউনিয়নসহ(জিপিইইউ) সাধারণ কর্মীদের দাবি, ২০১৩ সালের লভ্যাংশ যেভাবে দেয়া হয়েছে ঠিক সেভাবে যোগ্য কর্মীদের তালিকা ২৪ তারিখের মধ্যে ট্রাস্টিবোর্ডে হস্তান্তর করতে হবে।

আরও পড়ুন : দায়িত্ব নিয়েই আন্দোলনের মুখে জিপির নতুন সিইও

gp pic-2

বুধবার সকালে কর্মী প্রতিনিধিদের সাথে ম্যানেজমেন্টের প্রায় আড়াই ঘন্টা বৈঠকের পর জিপির দায়িত্ব নেয়া নতুন প্রধান নির্বাহী (সিইও) রাজীব শেঠি কর্মীদের উদ্দ্যেশে বলেন, আমি নতুন এসেছি। বিষয়গুলো দেখে ব্যবস্থা নিতে একটু সময় প্রয়োজন।

তিনি বলেন, আমরা কর্মীদের পাওনা পরিশোধে আন্তরিক। তবে যোগ্য কর্মীদের তালিকা তৈরির প্রক্রিয়া ঠিক করতে লিগ্যাল ভেটিং, বোর্ড অনুমোদনসহ ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় প্রয়োজন। আমাদের সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা রয়েছে যতদ্রুত সম্ভব কর্মীদের পাওনা পরিশোধ দিতে।

জিপি কর্মীদের দাবি ২০১০ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত তিন বছরে শ্রম আইন অনুযায়ী ৫ শতাংশ লভ্যাংশ থেকে ৪২০ কোটি টাকা প্রাপ্য রয়েছে।

জিপি ট্রাস্ট্রি বোর্ডের চেয়ারপার্সন আহমেদ মনজুরুদৌলা টেকশহরডটকমকে জানান, লভ্যাংশ গ্রহণের বিষয়ে ম্যানেজমেন্টের সাথে সমোঝাতা হয়েছিল এবং এতে সুদ ছাড়াই কর্মীরা লভ্যাংশ নিতে রাজি হয়।এরপর ম্যানেজমেন্ট টাকা ট্রাস্টি বোর্ডে ট্রান্সফারও করে। কিন্তু ম্যানেজমেন্ট ট্রাস্ট্রিবোর্ডকে যোগ্য কর্মীদের তালিকা দিতে পারেনি।

এদিকে বর্তমান তালিকানুযায়ী ২৪ তারিখের মধ্যে লভ্যাংশ পরিশোধের ঘোষণার দাবিতে শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচী পালন করছে কর্মীরা। তবে এতে জিপির কার্যক্রমে কোন ব্যাঘাত ঘটেনি। কর্মীরা নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করেই কর্মসূচীতে যোগ দিচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার জিপির প্রধান কার্যালয়ে সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত প্রতি ফ্লোরে কর্মীসংযোগ করেছে জিপিসি ও জিপিইইউ। এরপর বিকাল ৩টা থেকে ৫টা পর্যন্ত লেভেল টু করিডোরের ব্রিজ এলাকায় অবস্থান কর্মসূচী পালন করে তারা।

gp-pic1

গ্রামীণফোন অ্যামপ্লয়িজ ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মিয়া মাসুদ টেকশহরডটকমকে জানান, আমরা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচী পালন করছি। আমরা ২৪ ডিসেম্বরের মধ্যে যোগ্য কর্মীদের তালিকা ট্রাস্ট্রি বোর্ডে হস্তান্তর চাই।

তিনি বলেন, টাকা পরিশোধের বিষয়ে ম্যানেজমেন্টের কোন আপত্তি নেই। যোগ্যকর্মীদের তালিকা ট্রাস্টি বোর্ডে হস্তান্তরের সময়সীমা সমঝোতা হচ্ছে না।

অবস্থান কর্মসূচীর বিষয়ে তিনি জানান, বৃহস্পতিবারের মতো কর্মসূচী শেষে হয়েছে। পরবর্তীতে অবস্থান ধর্মঘট চলবে কি না বা নতুন কোন কর্মসূচীর বিষয়ে আলোচনা করে ঠিক করা হবে।

উদ্ভুত পরিস্থিতির বিষয়ে গ্রামীণফোনের হেড অব কমিউনিকেশন্স মারকাস এডাকটুসন জানিয়েছেন, জিপি ম্যানেজমেন্ট সমঝোতার মাধ্যমে যত দ্রুত সম্ভব উপযুক্ত কর্মীদের লভ্যাংশ প্রদানে কাজ করছে। কিন্তু আইনি প্রক্রিয়ার বাধ্যবাধকতার কারণে বিষয়টি সমাধানে সময় লাগছে।

তিনি বলেন, সম্প্রতি কর্মীদের প্রতিনিধি ও ম্যানেজমেন্টসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে লভ্যাংশ প্রদানে বিশেষ কমিটিও করা হয়েছে। কমিটি বুধবার ২০১০ থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত কর্মীদের লভ্যাংশ পরিশোধে একটি প্রস্তাব পাঠিয়েছে।

ম্যানেজমেন্ট আগামী এক সপ্তাহরে মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি জানান, এরপরও কর্মীদের একটি গ্রুপ এই উদ্যোগ না মেনে কর্মসূচী পালন করে। ম্যানেজমেন্ট এতে আশাহত হয়। তারপরও যত তাড়াতাড়ি সম্ভব একটি তালিকা প্রদান করে কর্মীদের পাওনা পরিশোধ করার বিষয়ে ম্যানেজমেন্ট আবারও অঙ্গীকার করছে।

 

আরও পড়ুন

 

*

*

আরও পড়ুন