সমস্যাকে জয় করে শেষ হলো হ্যাকাথন

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : জাতীয় ১০ সমস্যার সমাধানে নতুন উদ্ভাবনে শেষ হলো টানা ৩৬ ঘন্টার ম্যারাথন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা জাতীয় মোবাইল হ্যাকাথন।

শনিবার ঢাকার ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্সে এ হ্যাকাথন শুরু হয়। এতে অংশগ্রহণকারী দেশের তুখোড় সব প্রোগ্রামাররা নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই নির্বাচিত সব সমস্যার সমাধান হাতের মুঠোয় এনে দেন।

রোববার রাতে সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। শনিবার এর উদ্বোধন করেছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি  প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

আরও পড়ুন : ট্রাফিক জ্যামে হ্যাকাথনের দু’শতাধিক কোডার!

_89A0276

নির্বাচিত ১০টি দলের মধ্যে ট্রাফিক জ্যাম এই সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে আহসান উল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের টিম গ্রাভিটি বিডি।

নিরাপদ সড়ক সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে মোবাইও এ্যাপ লিমিটেডের টিম মোবিওম্যান।

সাইক্লোন সেন্টার ব্যবস্থাপনা সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির টিম ইউআইইউ এ্যাম্বাসাডর।

দূর্নীতি দমন বিষয়ক সমস্যার সমাধান দিয়েছে ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের টিম ট্রিলিয়ন পিক্সেল।

নিরাপদ পানি পরিবহন বিষয়ক সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে ব্রেন স্টেশন নামক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান।

প্রশ্নপত্র ফাঁস বিষয়ক সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির টিম ত্রিমাত্রিক।

যৌন হয়রানি বিষয়ক সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে রূপম আইটি লিমিটেড এর আরআইটিএল ডাক।

যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ক সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি এন্ড সাইন্স এর টিম বাডিস ড্রিম।

সেনিটেশন বিহেবিহারাল চেইঞ্জ বিষয়ক সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে কসমিউটার পোর্টসিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

PRIZE GIVING CEREMONY of NATIONAL HACKATHON

অসংক্রামক রোগের বৃদ্ধি সমস্যার সমাধান দিয়ে প্রথম হয়েছে ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের টিম ব্রাক উ হেন্ক।

বিজয়ী সেরা দলগুলোর এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে ২০ লাখ টাকার ইনোভেশন ফান্ড দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ।

অনুষ্ঠানে বিজয়ী প্রত্যেক দলকে ২ লাখ টাকা করে পুরস্কার দেয়া হয়। এছাড়া গ্রাভিটি বিডি দলকে আলাদা করে বিডি ভেঞ্চার ৭৫ হাজার টাকা দেয়। এর বাইরেও সিম্ফনি মোবাইল প্রত্যেক দলকে ডেভেলপার ডিভাইস প্রদান করে।

সমাপনিতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কামাল উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সচিব জনাব শ্যামা প্রসাদ ব্যাপারী।

এবারের হ্যাকাথনে ২৯৮ টি দল অংশ নেয়। এরমধ্যে শিক্ষার্থীদের দল ছিল ২৪৪টি। ৫৪টি প্রফেশনাল দল।

জনগনের মতামত ও বিশেষজ্ঞদের গবেষণায় এই হ্যাকাথনের জন্য ১০টি জাতীয় সমস্যা চিহ্নিত করা হয়। সম্মেলনে এক হাজার ৭০০ প্রোগ্রামার, ফ্রিল্যান্সার, শিক্ষার্থী, অ্যাপনির্মাতা ৩৪০টি টিমে বিভক্ত হয়ে অংশ নেন। পাশাপাশি ৪৯টি পেশাদার কোম্পানিও অংশ নেয়।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আয়োজনে এই হ্যাকাথন বাস্তবায়ন করেছে এমসিসি লিমিটেড। সহযোগিতায় ছিল ইএটিএল, বেসিস, সিম্ফোনি, গ্রামীণফোন, রবি, সোলকোয়েস্ট, গুগল ডেভেলপার গ্রুপ, বেটার স্টোরিজ ও বিডি ভেঞ্চার লিমিটেড।

আল আমীন দেওয়ান

আরও পড়ুন

৫০০ অ্যাপ তৈরির কর্মসূচী শুরু 

ডেভেলপারদের জন্য রবির ‘অ্যাপসবিডি’ 

উদ্ভাবনের উৎসবে মগ্ন হ্যাকাথন

জাতীয় মোবাইল পোর্টাল হ্যাক

প্রশ্নপত্র ফাঁস, দুর্নীতিসহ ১০ সমস্যার সমাধান আসছে মোবাইলে

বৃহত্তম হ্যাকাথনে ১৬৭৫ প্রোগ্রামারের অ্যাপস তৈরির লড়াই শুরু

*

*

আরও পড়ুন