মার্কিন দূতাবাসের ফেইসবুকে দেশের ৬ নারী উদ্যোক্তা

বাংলাদেশী নারী উদ্যোক্তা-টেকশহর
Evaly in News page (Banner-2)

ফখরুদ্দিন মেহেদী, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশী নারী উদ্যোক্তাদের সফলতার গল্প এখন দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে হরহামেশায় প্রকাশিত হয়। বিদেশে দেশের নাম সমুজ্জল করেছেন এমন নারী উদ্যোক্তার সংখ্যা এখন আর হাতেগোনা নয়। প্রায়ই দেশের মুখ উজ্জল করছেন অনেকে। এ খবরের ঘটনাটি কিছু দিন আগের হলেও তা সম্মানের। এ কারণেই টেকশহর ডটকমের এ প্রতিবেদন।

গত নারী দিবসে দেশের ছয় নারী উদ্যোক্তার ছবি স্থান করে নিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের ভেরিফাইড অফিসিয়াল ফেইসবুক পেইজে। এটিকে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সম্মান হিসাবেই দেখছেন সবাই।

নিজেদের জায়গায় সেরা এ ছয় নারী উদ্যোক্তাকে একই ফ্রেমে আনার কাজটি অবশ্য করেছে ফিউচার স্টার্টআপ নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

আরও পড়ুন : নারী উদ্যোক্তা তৈরিতে গুগলের ১০ লাখ ডলার

বাংলাদেশী নারী উদ্যোক্তা-টেকশহর

ফিউচার স্টার্টআপ একটি ঢাকা ভিত্তিক মিডিয়া স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান। এটি নতুন উদ্যোক্তাদের জন্য বাণিজ্যিক ভাবনা তৈরি করে তা দেশের উদ্যোক্তাদের মধ্যে ছড়িয়ে দেবার জন্য কাজ করে। মূলত তারা কনটেন্ট তৈরি করে উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করে।

নতুনদের সহযোগীতার মাধ্যমে একচেটিয়া বাজার বন্ধ করে একটি উন্মুক্ত বাজার তৈরির স্বপ্ন দেখে ফিউচার স্টার্টআপ। তথ্যের বাধা দূর করে সবার জন্য সমান সম্ভবনা তৈরির জন্য কাজ করে প্রতিষ্ঠানটি। তাদের মূল লক্ষ্য হচ্ছে, উদ্যোগ নিতে লোকজনকে অনুপ্রাণিত করা এবং তাদের এটা বাস্তাবায়নে সহযোগীতা করা।

এ প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন উৎসাহমূলক উদ্যোগ শুরুর জন্য তথ্য পাওয়া যায়। এখানে নতুনরা তাদের অভিজ্ঞতাও ভাগাভাগি করতে পারেন।

নারী উদ্যোক্তাদের এগিয়ে যাবার গল্প নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সাক্ষাৎকার প্রকাশ করে ফিউচার স্টার্টআপ। নিয়ে একটি শর্ট স্টোরি করে তারা। সম্প্রতি প্রতিবেদনের

টেকশহর ডটকমের পাঠকদের জন্য এ প্রতিবেদনে এই ছয় গুণী উদ্যোক্তার পরিচয় সংক্ষেপে তুলে ধরা হলো।

বিবি রাসেল
বিশ্বখ্যাত এ মডেল ও ফ্যাশন ডিজাইনারের বিষয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। বিখ্যাত ফ্যাশন হাউজ বিবি প্রোডাকশনের প্রতিষ্ঠাতা বিবি রাসেল বাংলাদেশের পোশাককে বিশ্ব দরবারে চিনিয়েছেন অনেকটা একাই।

ঢাকায় বড় হওয়া এ উদ্যোক্তা কামরুন্নেসা সরকারী বালিকা উচ্চবিদ্যালয় এবং হোম ইকোনমিক্স থেকে পড়াশোনা শেষে লন্ডন কলেজ অব ফ্যাশনে পড়াশোনা করতে যান। এরপর বিবি রাসেল সেখানে ফ্যাশন মডেল হিসেবে বিভিন্ন নামীদামী প্রতিষ্ঠান এবং ডিজাইনারদের সঙ্গে কাজ করেন।

১৯৯৪ সালে এ উদোক্তা দেশে ফিরে বিবি প্রোডাকশনের সূচনা করেন। এটি মূলত দেশের সংস্কৃতির সাথে মিল রেখে পোশাক তৈরি করে। প্রথমে তিনি ‘উন্নয়নের জন্য ফ্যাশন’ এ শ্লোগানে তার প্রতিষ্ঠান শুরু করলেও পরে ‘কারু শিল্পী এবং তাদের স্বপ্নকে বাচাঁন’শ্লোগান নিয়ে এগোতে থাকেন।

সেলিমা আহমদ
বাংলাদেশ ওমেন চেম্বার অ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রির (বিডব্লিউসিসিআই) প্রতিষ্ঠাতা এবং বর্তমান সভাপতি এ উদ্যোক্তা দীর্ঘদিন থেকে দেশে নারী উদ্যোক্তাদেরকে উৎসাহ এবং প্রয়োজনীয় সহায়তা দিতে কাজ করছেন।

ব্যক্তিগত জীবনে সেলিমা আহমদ একজন সফল ব্যবসায়ী। পিছিয়ে পড়া নারীদের সামনে এগিয়ে নেবার প্রত্যয়ে তিনি ডব্লিউসিসিআইর কার্যক্রম শুরু করেন। নিটল নিলয় গ্রুপের এ ভাইস চেয়ারম্যান সম্প্রতি তিনি অসলো বিজনেস শান্তি পুরস্কার লাভ করেন। ২০১২ সালে তিনি সেরা নারী উদ্যোক্তা হিসেবে ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক পুরষ্কারও পান।

তাসলিমা মিজি
তাসলিমা মিজি ‘টেকমেনিয়া’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী। তার প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার পণ্য যেমন কাম্পিউটার, কম্পিউটার অ্যাসেম্বলি, নেটওয়ার্কিং ইত্যাদি সরবরাহ করে।

সময়ের বিপরীতে লড়াই করে বেড়ে উঠা এ নারী উদ্যোক্তা নিজের আত্মবিশ্বাসকে পুঁজি করে দু:স্বপ্নকে পেছনে ফেলে সামনের কাতারে উঠে এসেছেন। এজন্য তাসলিমা শুধু একজন কাজের কাজি হিসেবেই নয় বরং সংগ্রামী মানুষ হিসেবে সবার কাছে পরিচিত। তার শৈশব স্মৃতি, জীবনবোধ, বিদ্রোহী প্রকৃতি, সংগ্রাম অন্যকেও অনুপ্রণিত করে।

সামিরা জুবেরী হিমিকা
টিম ইঞ্জিনের’ প্রতিষ্ঠাতা এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিমিকা বিশ্বাস করেন একজন উদ্যোক্তাকে একটি ব্যবসা চালানোর জন্য যতগুলো কৌশল আছে তার সবগুলো জানা উচিত। তার মতে উদ্যোক্তাদের দাম্ভিকতা পরিহার করা উচিত। তার প্রতিষ্ঠানের তৈরি ওসিআর দেশের ডিজিটাল কার্যক্রমে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।

স্বউদ্যোগী এ উদ্যোক্তা তার কাজের দ্বারা দেশি বিদেশি উদ্যোক্তা ও সংগঠনগুলোর প্রসংশা কুড়িয়েছেন।

সাবিলা ইনুন
এ নারী উদ্যোক্তা একজন প্রযুক্তিবিদও বটে। তিনি ডিক্যাস্টালিয়া ডটকমের প্রতিষ্ঠাতাদের একজন। বর্তমানে তিনি ব্র্যাকে কর্মরত। ইতিমধ্যে তিনি উইকিপিডিয়া এবং ফাউন্ডার লঞ্জেও কাজ করেছেন। এ ছাড়া বিভিন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক সংগঠনকে তিনি কনসালটেন্ট এবং ট্রেইনার হিসাবে সেবা দিয়েছেন।

নিজে কিছু করবেন এমন ইচ্ছা তার ছোটবেলা থেকেই ছিল ইনুনের। এরপরই তিনি বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ নেওয়া শুরু করেন এবং একজন নারী উদ্যোক্তা হিসেবে প্রতিষ্ঠা পান।

আইভি হক ইসলাম
আইভি একজন ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকার ছিলেন। পরে তিনি নারীর ক্ষমতায়ন, তথ্য জানা এবং এর মাধ্যমে কমিউনিটিতে অবদান রাখতে মায়া প্রতিষ্ঠা করেন।

মায়ার এ ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেশের নারীদের বাস্তবিক পরিবর্তনের জন্য কাজ করে। আইভির মতে দেশের প্রকৃত উন্নয়নের জন্য নারীকে উদ্যোগে, বানিজ্যে অংশ নিতে হবে।

– ফিউচার স্টার্টআপ আপ অবলম্বনে

আরও পড়ুন

*

*

আরও পড়ুন