মায়ানমারে টেলিনরের যাত্রা শুরু

টেলিনর-মায়ানমার-টেকশহর
Evaly in News page (Banner-2)

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পাশের দেশ মায়ানমারে যাত্রা করল বাংলাদেশের প্রধান মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের মূল কোম্পানি টেলিনর।

সেখানে একই সঙ্গে দ্বিতীয় প্রজন্মের (টুজি) এবং তৃতীয় প্রজন্মের (থ্রিজি) সেবা দিয়ে শুরু করতে যাচ্ছে নরওয়েভিত্তিক কোম্পানিটি।

শনিবার মায়ানমারের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর ম্যানডালের দেড় হাজার আউটলেট থেকে গ্রাহক সেবা দেওয়া শুরু করেছে অপারেটরটি।

টেলিনর-মায়ানমার-টেকশহর

আর দু’এক দিনের মধ্যেই অন্যতম বড় দুটি শহর নাভ পাভ টাও এবং ইয়াঙ্গুনের ১২ হাজার আউটলেটে সেবা কার্যক্রম শুরু করবে টেলিনর।

পর্যায়ক্রমে অন্যান্য ছোট বড় শহর এবং গ্রামেও সেবা নিয়ে যাবেন বলে নিজেদের প্রতিশ্রুতির কথা জানিয়েছেন টেলিনরের প্রেসিডেন্ট জন ফেডরিক বাকসাস।

মায়ানমারে সেবা কার্যক্রমের মাধ্যমে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মালয়েশিয়া থেকে শুরু করে থাইল্যান্ড-মায়ানমার-বাংলাদেশ-ভারত-পাকিস্তান পর্যন্ত পুরো এলাকায় নিজেদের নেটওয়ার্ক তৈরি করল টেলিনর।

শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে নেটওয়ার্ক চালু করার আগে গত বৃহস্পতিবার ম্যানডালেসহ অন্য দুটি শহরেও এর পরীক্ষামূকল কার্যক্রম চালানো হয়েছে। ম্যানডালেতে বিশেষ অনুষ্ঠানও আয়োজন করা হয়েছে।

২০১২ সালে লাইসেন্স পাওয়ার পর থেকে চার শতাধিক কর্মী নিয়ে নেটওয়ার্ক তৈরির কাজ শুরু করে টেলিনর। সে সময় কোম্পানিটির সঙ্গে লাইসেন্স পায় ওরেডো নামের অপর একটি কোম্পানি। সব মিলে তখন ৯০টি আবেদন পড়ে। এগুলোর মধ্যে থেকে মায়ানমার কর্তৃপক্ষ দুটি লাইসেন্স দেয়।

মায়ানমারে প্রতিটি সিমের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে দেড় হাজার কায়াত বা দেড় ডলার। আর প্রতি মিনিটের স্থানীয় কলের জন্যে গ্রাহকের খরচ হবে ২৫ কায়াত। সে হিসেবে বর্তমানে বাংলাদেশের কল রেটের চেয়ে দ্বিগুণ খরচ করতে হবে সেখানকার গ্রাহকদের।

এখানকার মতো গ্রাহকরা টপ আপের মাধ্যমে ব্যালান্স রিচার্জ করতে পারবেন।

*

*

আরও পড়ুন