বুয়েট শিক্ষার্থীদের তিন অ্যাপস

মোবাইল-অ্যাপস-ডেভেলপমেন্ট-টেকশহর
Evaly in News page (Banner-2)

ফখরুদ্দিন মেহেদী, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : তিন ধরনের কাজের তিনটি অ্যাপ নিয়ে জাতীয় ক্যাম্পাস প্রযুক্তি উৎসবে এসেছিলেন বুয়েটের শিক্ষার্থীরা। সাধারণের ব্যাপক আগ্রহে বাড়তি উৎসাহ নিয়েই ক্যাম্পাসে ফিরেছেন তারা। প্রেরণা পেয়েছেন আরও নতুন কিছু করার।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রশিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) গত বোববার ও সোমবার ঢাবি আইটি সোসাইটি আয়োজিত দু’দিনব্যাপী এ উৎসবে বুয়েটের স্টলটিতে আরও অনেক প্রযুক্তি আয়োজনের মধ্যে অ্যাপগুলো নিয়ে কথা বলতে দেখা গেছে অনেককেই।

স্মার্ট সাইলান্সার, বুকমার্ক এবং ক্রাইমরিপোর্টসবিডি নামের অ্যাপ তিনটির বৈশিষ্ট্য তিন রকম। চাইলে শিক্ষার্থীদের তৈরি এসব অ্যাপ দৈনন্দিন কাজেও ব্যবহার করা যাবে।

মোবাইল-অ্যাপস-ডেভেলপমেন্ট-টেকশহর

বুয়েটের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র রাইসুল আরেফিন নাহিদ এবং রায়হানুল মাসুদ বানিয়েছেন ‘স্মার্ট সাইলান্সার’।

এটি প্রয়োজন অনুসারে স্মার্টফোনকে সাইলেন্ট অথবা লাউড করবে। আর অ্যপটি কাজটি করবে লোকেশনের ভিত্তিতে।

ব্যবহারকারী চাইলে নির্দিষ্ট স্থান বা এলাকা ঠিক করে দিতে পারবেন, যেখানে গেলে স্বয়ংক্রিংভাবে ফোনটি সাইলেন্ট হয়ে যাবে। আবার ওই স্থান ত্যাগ করলে ফোনটি লাউড হয়ে যাবে। উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, অফিস থেকে বাসায় আসলে ফোনটি লাউড থাকবে। মসজিদে গেলে সাইলেন্ট হয়ে যাবে।

স্মার্ট সাইলান্সার কাজ করবে ওয়াই-ফাইয়ের সাহায্যে। একবার কোনো স্থানে গিয়ে ওয়াইফাই কানেক্ট করে লোকশনটি ইনপুট দিলে পরে আর সেখানে গেলে কোন ইন্টারনেট সংযোগ লাগবে না। কেননা স্মার্ট সাইলান্সার নিজেই ১ সেকেন্ডর জন্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওয়াই-ফাই কানেকশন নিয়ে সেবাটি চালু করে দিবে।

নাহিদ টেকশহরডটকমকে জানান, স্মার্ট সাইলান্সারটিতে জিপিএস সেট করার কাজ চলছে। কিছু লোকেশন বাছাই করে এটিতে সংযুক্ত করে দেওয়া হবে যাতে ওই স্থানগুলোতে গেলে কোনো রকম ইন্টারনেট সংযোগ ছাড়াই অ্যাপটি সচল হযে যায়।

লাইব্রেরি থেকে বই আদান প্রদানের অ্যানালগ সিস্টেমকে গুডবাই জানাতে বুয়েটের আরেকটি দল বানিয়েছে ‘বুকামর্ক’ নামের একটি অ্যাপ্লিকেশন।

এ অ্যাপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে বইয়ের ভেতরে এবং গ্রাহকের কাছে কাগজের রশিদের বদলে একটি করে আরএফআইডি কার্ড থাকবে। কার্ডটি আরএফআইডি রিডারে স্ক্যান করলেই বইটির ডাটা এন্ট্রি হয়ে যাবে। আবার বইটি ফেরত দেওয়া হলে আরএফআইডি রিডার গ্রাহকের তথ্যটি মুছে দিবে।

বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শাহরিয়ার কাবির ও সৈয়দ ইমাম হাসান এবং কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের রাকিন হায়দার অ্যাপটি বানিয়েছেন।

রাকিন জানান, অ্যপটির মাধ্যমে যে কোনো লাইব্রেরির বই আদান প্রদান সহজে ডিজিটালাইজড করা যাবে। চাইলে এটি স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নির্ণয়েও ব্যবহার করা যাবে।

বুয়েটের কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের গ্রুপ ‘বুয়েট অ্যাপকোর’ বানিয়েছে ‘ক্রাইমরিপোর্টসবিডি’।

ঢাবি-ক্যাম্পাস-আইটি-উৎসব-টেকশহর

এটি দেশের বিভিন্ন স্থানের অপরাধের খবর একত্র করে সবাইকে জানাবে। অ্যাপটি মূলত অ্যান্ড্রয়েড ও ওয়েবভিত্তিক একটি অ্যাপ্লিকেশন। এটির মাধ্যমে যে কোনো ব্যক্তি কোনো অপরাধের তথ্য বা ঘটনা শেয়ার করতে পারবেন।

স্মার্টফোনে এটি ইনস্টল থাকলে অপরাধ সংঘটিত হওয়ার স্থান থেকে সরাসরি ছবি বা ভিডিও আপলোড করা যাবে।

অ্যাপ নির্মাতা দলটির সদস্যরা জানান, গণমাধ্যমে প্রকাশিত অনেক খবরে অনেক সময় সব তথ্য থাকে না। তাই সংশ্লিষ্ট সংবাদটির লিংকসহ আরও তথ্যের আপটেড যে কেউ দিতে পারবেন। তবে এসব ক্ষেত্রে তথ্য প্রদানকারীর নাম প্রকাশ করা বাধ্যতামূলক থাকবে না।

অ্যাপটিতে আপলোড করা তথ্যগুলো সঠিক কিনা তা যাচাইয়েরও সুযোগ থাকছে এটিতে। কেননা যে কোনো ভিডিও, ছবি বা নিউজলিংক পাবার পর কে-মডেল নামের একটি সফটওয়্যার দ্বারা এর বিশ্বাসযোগ্যতা যাচাই করা যাবে।

অ্যাপস-আইফোন

খবরটি বিশ্বাসযোগ্য না হলে ওই এলাকার অন্য লোকজন এর বিরুদ্ধে তথ্য দিতে পারবেন। এতে বিতর্কিত নিউজগুলোকে আনভেরিফাইড করে রাখা হবে এবং যে দিকে বেশি ভোট পড়বে সেটিকেই সঠিক বলে ধরে নেওয়া হবে।

নিউজটি সত্য কি না তা যাচাইয়ের জন্য ‘ক্রাইমরিপোর্টসবিডি’ অ্যাপটির ইউজার এলার্ট থাকবে। কোনো নিউজ বা ঘটনা সম্পর্কে তথ্য আপলোড করা হলে ওই এলাকায় অ্যাপটির সাবস্ক্রাইবারদের মেইলে এলার্ট পাঠাবে। যা দেখে ওই এলাকার ব্যবহারকারীরা মন্তব্য করতে পারবে।

যাদের স্মার্টফোন নেই তারা ০১৫৩৬-২৫০৪২৪ এ নম্বারে এসএমএস করেও যে কোনো ঘটনা সম্পর্কে অ্যাডমিনকে জানতে পারবেন।

*

*

আরও পড়ুন