vivo Y16 Project

কাতান শাড়ি আর নকশী পণ্যে এগিয়ে চলছেন সুতোর পরশ-র শামিমা

টেকশহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পড়াশুনা করতে করতে বিয়ে , বিয়ের পর পড়াশুনা শেষ করে চাকরিতে যুক্ত হবেন কিন্তু ব্যাটে বলে মিলছিল না । হচ্ছিল না কর্মজীবন শুরু করা। তারপর পেশাগত জীবনের জন্য প্রত্যয় নিয়ে ২০২০ সালে শামিমা নাসরিন শুরু করলেন সুতোর পরশ ।

কি কি আছে আপনার উদ্যোগে ? শামিমা জানালেন, নকশী পণ্য ,কাতান শাড়ি , শাল , থ্রি পিস পাওয়া যাবে সুতোর পরশে।

ছোটবেলায় যা ছিল বিকর্ষন সেই সুতোর তৈরি পোশাক জীবনের এই বেলায় এসে আকর্ষনে পরিণত হল । কি সেই বিকর্ষন ?

Techshohor Youtube

পেইজ খোলার পর মনে হল কি নিয়ে কাজ করব ? মনেই উত্তর এলো , হাতের কাজের জিনিস নিয়ে করতে পারি । ছোট বেলা থেকে মা নানুকে দেখেছেন সুই সুতা কুশি কাটার কাজ করতেন । সবাই যখন দোকানের কেনা নানারকম জামা পরতো তখন শামিমা মায়ের হাতে বানানো জামা পরতেন । ছোট্ট মন পড়ে থাকত দোকানের সেই ঝালর তোলা পোশাকে । মায়ের হাতে ফুল তোলা জামা ছিল ভীষণ অপছন্দ । এটাকেই তিনি বলেছেন বিকর্ষন । এখন বড় বেলায় এসে বুঝতে পারেন আসলে কত সুন্দর আমাদের নকশী পণ্য । ঠিক এই বোধদয় থেকেই শামিমা কাজের জন্য বেছে নিলেন দেশীয় নকশী পণ্য ।

শাড়ি পরতে পছন্দ করেন শামিমা, ভীষণ ভাল লাগে কাতান। কিন্তু সঠিক সাপোর্ট পাচ্ছিলেন না বলে কাতান নিয়ে কাজ করতে সাহস পাচ্ছিলেন না । একদিন ই ক্যাবের প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট রাজীব আহমেদ শামিমাকে কাতান নিয়ে কাজ করতে বলেন। ভেতরে লালন করা আগ্রহকে উস্কে দিলেন তিনি । নকশী পণ্যের সাথে যুক্ত হল কাতান , বেনারসী ।

পারিবারিক সাপোর্ট পাচ্ছিলেন না তবে তার মন্দ লাগার অনুভব হারিয়ে যায় ভাল লাগার অনুভবে। লুকিয়ে কিছু পণ্য কিনে ভাবলেন দেখি না , পারি কিনা । কমেন্টে একজনের সাথে পরিচয় , সেই আপু যখন উনার কাছ থেকে যখন পণ্য নিলেন তখন সেই টাকা দিয়ে কি করবেন , কোথায় রাখবেন এমন আনন্দে আপ্লুত ছিলেন তিনি।

প্রতিযোগিতাকে স্বাগত জানান শামিমা, একই পণ্য নিয়ে কাজ করা ১০ জনের কাছ থেকে আমরা ভিন্ন রকম তথ্য পাব । সোর্সিং এক হয় না , প্রস্তুত করার মানুষ ও এক নয় । সহযোগী হয়ে ক্রেতাকে সকলে মিলে ভাল পণ্য দেয়ার একটা প্রতিযোগিতা চললেই অনলাইন বাজারের জন্য ভাল খবর আনবে।

গল্পে গল্পে বলছিলেন কি করে ক্রেতার সাথে কথা হচ্ছিল , পণ্যের দাম নিয়ে সত্য জানিয়ে ক্রেতাকে মুগ্ধ করার আলাপে কি করে পণ্য বিক্রি হল সেই কথা বলছিলেন শামিমা।

কিছু ভাল লাগা এমন থাকে যে মন্দ লাগার কথাগুলো হারিয়ে যায় , নেগেটিভিটি কে ভিতরে প্রবেশ করতে না দেয়ার জন্য ভাল লাগা কে আরও বেশি লালন করা – আশপাশ থেকে আসা মন্দ কথাগুলো উড়িয়ে দেয়ার টিপস দিলেন শামিমা।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি জানতে চাইলে বলেন, ই কমার্স ইন্ডাস্ট্রিতে জায়গা করে নিতে হলে নিজেকে দক্ষ করতে হবে, দক্ষতার বিকল্প নাই – রাজীব আহমেদের কথাগুলোকে মূলমন্ত্র হিসেবে নিয়ে পড়াশুনা করে নিজের পণ্য শামিমা দেশ বিদেশে ছড়িয়ে দিতে চান ।

*

*

আরও পড়ুন

vivo Y16 Project