vivo Y16 Project

হুয়াওয়ের সিএফওর বিরুদ্ধে অভিযোগ খারিজ যুক্তরাষ্ট্রের

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : হুয়াওয়ের প্রতিষ্ঠাতা রেন ঝেংফেইয়ের মেয়ে এবং হুয়াওয়ের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা(সিএফও) মেং ওয়ানঝুর বিরুদ্ধে অভিযোগ খারিজ করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের একজন বিচারক এ রায় দেন।

এর মাধ্যমে ওয়ানঝুর বিরুদ্ধে একটি ফৌজদারি নিষেধাজ্ঞার আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি হলো। আশা করা হচ্ছে, ওয়ানঝুর বিচার প্রক্রিয়ার এই নিষ্পত্তির মধ্য দিয়ে চীন-যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষয়িষ্ণু সম্পর্কে কিছুটা হলেও প্রাণ ফিরে আসবে।

Techshohor Youtube

২০১৮ সালে ব্যাংক জালিয়াতি ও অন্যান্য অভিযোগের প্রেক্ষিতে যুক্তরাষ্ট্রের জারি করা ওয়ারেন্টের প্রেক্ষিতে ওয়ানঝুকে কানাডায় গ্রেফতার করে সেখানেই আটক রাখা হয়। এ বিষয়টিকে কেন্দ্র করে শুধুমাত্র চীন-যুক্তরাষ্ট্র নয় কানাডার সাথেও চীনের সম্পর্ক তিক্ত হয়ে উঠে।

এরপর ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে চীন দুই কানাডীয় নাগরিককে মুক্তি দিলে ওয়ানঝুকে মুক্তি দেয়া হয় ।

লম্বা সময় বিচার চলার পর অভিযোগ খারিজ করা নিয়ে গত বছর মার্কিন আইনজীবিদের সাথে একটি চুক্তিতে পৌঁছেন ওয়ানঝু। চুক্তি অনুযায়ি চলতি বছরের ডিসেম্বরে ওয়ানঝু’র বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো খারিজের কথা ছিলো।

এ প্রসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাটর্নি ক্যারোলিন পোকর্নি ইউএস ডিসট্রিক্ট জজ অ্যান ডোনলি বরাবর লেখা একটি চিঠিতে বলেছেন, ওয়ানঝু চুক্তিটি লঙ্ঘন করেছেন এমন কোনো তথ্য না থাকার কারণে ‘সরকার সম্মানের সাথে আসামি মে ওয়ানঝু বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার অভিযোগ খারিজের পদক্ষেপ নিচ্ছে।’

ওয়ানঝুর অভিযোগ খারিজ করা হবে এ বিষয়টি বহুল প্রত্যাশিত ছিলো। এরমধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র-চীনের সম্পর্ক তিক্ত হয়ে উঠার অন্যতম এক অধ্যায়ের সমাপ্তি হলো। বিশ্বের দুই পরাশক্তিধর দেশের দ্বন্দ্বের মাঝখানে পড়ে কানাডাও বড় ধরনের চাপে ছিলো এতদিন।

ওয়ানঝুর বিরুদ্ধে ব্যাংক জালিয়াতি ও যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইরানে কোম্পানির ব্যবসা ধরে রাখার জন্য আন্তর্জাতিক মানের ব্যাংক এইচএসবিসি হোল্ডিং পিএলসিকে বিভ্রান্ত করার অভিযোগ ছিল।

মার্কিন আইনজীবিদের সাথে চুক্তির পরিপ্রেক্ষিতে ওয়ানঝু স্বীকার করেন, তিনি ২০১৩ সালে ব্যাংকের একজন নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে বৈঠকের সময় ইরানে ব্যবসা নিয়ে ভুল বিবৃতি দিয়েছিলেন। তার এ অবস্থানের কারণে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা ল্ঘন করে লেনদেনের মাধ্যমে ব্যাকগুলোকে জরিমানার ঝুঁকিতে ফেলে দিয়েছিলো।

অবশ্য হুয়াওয়ে বলেছে তারা এ অভিযোগের জন্য দায়ি নয়।

মার্কিন ডিসট্রিক্ট জজ অ্যান ডনেলি ওয়ানঝুর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রিজুডিস হিসেবে খারিজ করে দিয়েছেন। এর মানে অভিযোগগুলো আর আনা যাবে না।

ওয়ানঝু অভিযোগগুলো থেকে রেহাই পেলেও কোম্পানি হিসেবে হুয়াওয়ের বিরুদ্ধে মামলা এখনো চলছে। এই মামলার শুনানির তারিখ এখনো নির্ধারিত হয় নি।

রয়টার্স/সিবিসি/আরএপি

*

*

আরও পড়ুন

vivo Y16 Project