চামড়াজাত পণ্য তৈরি ও বিপণন করছেন ওপিএ লেদার গুডস-এর পপি

টেকশহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পপি কখনো ই ভাবেন নাই তাঁকে কাজ করতে হবে, টাকা উপার্জনে পরিশ্রম করতে হবে। স্বামী আছে , উনি কাজ করছেন অতএব চিন্তা কি তাঁর ! কিন্তু বিধির ইচ্ছে অন্য । ২০১৯ সালে পপির বর অসুস্থ হয়ে পড়েন , তখন পপি ভাবতে লাগলেন কিছু করতে হবে ।

অর্পি , অপু আর পপি এই তিন জনের নামের অংশ নিয়েই শুরু হয় ওপিএ লেদার গুডস এর নামকরণ হয় । হাসপাতালে ভর্তি হয়ে আছেন অপু , তিনি তাঁর ২২ বছরের অভিজ্ঞতায় পপিকে লেদার গুডস নিয়ে কাজ করতে বলেন । কোথায় যেতে হবে , কার সাথে কথা বলতে হবে , কি করতে হবে – পরামর্শ দিচ্ছিলেন অপু । শুরু হল – লেদারের ব্যাগ , বেল্ট , চাবির রিং নিয়ে কাজ।

পপি হেমায়েত পুর যাচ্ছেন , কাজে যুক্ত হয়েছেন , একটা অর্ডার পেয়েছেন সেই নিয়ে ছুটছেন । পপি অবাক হচ্ছিলেন , তিনি পারছেন কাজ করতে । একটা স্বপ্নের ভেতর থাকতে লাগলেন ।

Techshohor Youtube

উই পরিবার এবং অঞ্জনস সহ আরও কিছু প্রতিষ্ঠান পপির উপর আস্থা রেখেছে । তারা কাজের অর্ডার দিয়েছে । উৎসাহ দিয়েছে । ১৮ আগস্ট বরের মৃত্যুর পর নাসিমা আক্তার নিশা উনাকে অফিসে ডেকে নিয়ে জড়িয়ে ধরেন – এই কথা বলার সময় গলা ধরে আসে পপির । নিশা তাঁকে আশস্ত করেন – উই পরিবার আছে পপির সাথে । সাহস পেলেন পপি ।

অফলাইনে লেদার সেক্টর নিয়ে কাজ করতে গিয়ে অনেকের মুখ আর মুখোশে তফাত পেলেন পপি । ব্যবসায়িক প্রতিহিংসার মুখে পড়লেন পপি ।

অঞ্জনস এর সাথে ২০ বছরের সম্পর্ক পপি , তাদের সাপোর্টের সাথে পপির একমাত্র সন্তান অর্পির সাপোর্ট অনন্য । সন্তানের এমন সাপোর্টে দৃপ্ত পদক্ষেপে এগিয়ে যাচ্ছেন পপি । আপ্লুত হয়ে যাচ্ছিলেন মা ।

পপির মত এমন অবস্থায় যারা আছেন- তাদের সকলের জন্য তিনি বলেন , ভাই , টাকা যাইতে সময় লাগে না । স্বামীর যা থাকে থাকুক , কিন্তু মেয়েদের কিছু করতে হবে । নিজের জন্য কিছু করতে হবে । অল্প হোক যা হোক কিছু কাজ করা উচিত। অপরিচিত , পরিচিত সকল নারীর প্রতি আহবান কিছু করুন। আরও শুনুন পপির ভিডিও তে ।

*

*

আরও পড়ুন