নিজেদের ড্রাইভ টেস্টে পাস জিপি, যাচাই করবে বিটিআরসি

গ্রামীণফোনের প্রধান কার্যালয় জিপি হাউজ। ছবি : টেকশহর

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গ্রাহক পর্যায়ে সেবার মান দেখতে সম্প্রতি সারাদেশে ড্রাইভ টেস্ট করেছে গ্রামীণফোন।

এতে বিটিআরসির গাইডলাইন অনুযায়ী সেবার মানের পরীক্ষায় ড্রাইভ টেস্টের যে মানদণ্ড রয়েছে তাতে উত্তীর্ণ হয়েছে গ্রামীণফোন।

ইতোমধ্যে চলতি আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে বিটিআরসিতে এই ড্রাইভ টেস্টের প্রতিবেদন জমা দিয়েছে অপারেটরটি।

Techshohor Youtube

তবে এই ড্রাইভ টেস্ট গ্রামীণফোন নিজেরা করেছে। বিটিআরসি এতে যুক্ত ছিলো না।

প্রশ্ন উঠেছে, গ্রামীণফোন যে নিজের ড্রাইভ টেস্ট করেছে তা যে ‘ঠিক প্রক্রিয়ায় ছিলো’ এবং ‘সকল মানদণ্ডে উত্তীর্ণ’ হয়েছে তার সত্যতা বা বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই কীভাবে হবে ?

খাত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নিজের জিনিস সবাই নিজে ভালো বলবে, এটাই স্বাভাবিক। নিয়ন্ত্রণ সংস্থাকে যাচাই করতে হবে গ্রামীণফোনের এই ড্রাইভ টেস্টের প্রতিবেদন ঠিক কিনা। বিটিআরসি নিজে বা অপারেটরকে সঙ্গে নিয়ে দ্রুততার সঙ্গে যৌথ ড্রাইভ টেস্ট করে বিষয়টি পরীক্ষা করতে পারে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার টেকশহর ডটকমকে বলেন, গ্রামীণফোন নিজে তার মান নিয়ে প্রতিবেদন দিলে তো হবে না, এই প্রতিবেদন যাচাই করে দেখা হবে আসলেই তারা কোনো উন্নতি করেছে কিনা।

‘বিটিআরসি অল্প সময়েই নিজেরা ড্রাইভ টেস্ট করে অপারেটরটির সেবার মান যাচাই করবে’ বলছিলেন তিনি।

বিটিআরসির ভাইস-চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র টেকশহর ডটকমকে জানান, গ্রামীণফোন প্রতিবেদন যাই দিক, বিটিআরসি যাচাই করে দেখবে তা কতটুকু ঠিক।

‘শুধু গ্রামীণফোন নয়, সেবার মান যাচাইয়ে সব অপারেটরেরই ড্রাইভ করবে বিটিআরসি’ উল্লেখ করেন তিনি।

বিটিআরসিতে কেমন প্রতিবেদন জমা দিয়েছে গ্রামীণফোন :

গ্রামীণফোন ২০২১ সালের ডিসেম্বর হতে ২০২২ সালের জুলাই পর্যন্ত সময়ে ঢাকা, খুলনা, রাজশাহী, বরিশাল, চট্টগ্রাম, রংপুর, সিলেট এবং ময়মনসিংহে এই ড্রাইভ টেস্ট করে।

এতে মোট ১৫ হাজার ১৫৫ কিলোমিটার ড্রাইভ টেস্ট হয়। এই এলাকাগুলোতে বিটিআরসির আগের ড্রাইভ টেস্টের এলাকা, প্যারামিটার ব্যবহার করেছে গ্রামীণফোন ।

সব বিভাগে গ্রামীণফোনের কলড্রপের হার ০ দশমিক ২১ শতাংশ, যা নির্ধারতি মানদণ্ড ২ শতাংশের বেশ নীচেই রয়েছে। ড্রাইভ টেষ্টে ২৭ হাজার ৬৫৩টি কল জেনারেট করা হয় যেখানে সফল কল হয়েছে ২৭ হাজার ৫০৮টি। কলড্রপ হয়েছে ৫৮টি। কল করতে ব্যর্থ হয়েছে ৮৭টি। কলড্রপের পরিমান ঢাকায় ০ দশমিক ৩৪ শতাংশ , খুলনায় ০ দশমিক ০৩ শতাংশ , বরিশালে ০ দশমিক ৩৪ শতাংশ , চট্টগ্রামে ০ দশমিক ২৬ শতাংশ , রাজশাহীতে ০ দশমিক ০৬ শতাংশ , রংপুরে ০ দশমিক ০৫ শতাংশ, সিলেটে ০ দশমকি ১৫ শতাংশ এবং ময়মনসিংহে ০ দশমিক ২২ শতাংশ।

ইন্টারনেট সেবায় সর্বোচ্চ ফোরজি গতি ১৬ দশমিক ৫৯ এমবিপিএস পাওয়া গেছে ঢাকায়। ড্রাইভ টেষ্টে খুলনায় ৮ দশমিক ৬, বরিশাল ৮ দশমিক ৪৮, চট্টগ্রামে ৯ দশমিক ৫৮, রাজশাহীতে ৭ দশমিক ৯১, রংপুরে ১০ দশমিক ৫৮, সিলেটে ৯ দশমিক ৬৪ এবং ময়মনসিংহে ১০ দশমিক ১ এমবিপিএস ফােরজি গতি পাওয়া গেছে । এতে দেখা যাচ্ছে, ড্রাইভ টেষ্ট অনুযায়ী গ্রামীণফোন ইন্টারনেট গতিতে সব বিভাগে বিটিআরসির নির্ধারিত ৭ এমবিপিএসের চেয়ে বেশি গতি দিচ্ছে ।

*

*

আরও পড়ুন