Samsung HHP Online Campaign

পুতিনের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে কাজ করছে একাধিক ফেইসবুক গ্রুপ

টেকশহর কনটেন্ট কাউন্সিলর: ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার হামলা নিয়ে নিন্দায় সরব বিশ্ব। এমন পরিস্থিতির মধ্যে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে বেশ জোর কদমে কাজ শুরু করেছেন ফেইসবুকের একাধিক গ্রুপ। তারা প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে হাসোজ্জ্বল, পরোপকারী এবং শান্তিপ্রিয় হিসেবে উপস্থাপন করতে হাজারো পোস্ট করছেন যা দেখছেন বিশ্বের নানা প্রান্তের লাখ লাখ মানুষ। রুশ প্রেসিডেন্টের প্রশংসা করে পুতিনপন্থী ফেইসবুক গ্রুপের নেটওয়ার্কে পোস্ট করা হচ্ছে। ইনস্টিটিউট ফর স্ট্র্যাটেজিক ডায়ালগের (আইএসডি) গবেষকদের সহায়তা নিয়ে ফেইসবুকের এইসব পুতিনপন্থী গ্রুপগুলোর কার্যকলাপ বিস্তৃত পরিসরে গবেষণা করেছে বিবিসি।

আইএসডির বিশেষজ্ঞরা ১০টি পুতিনপন্থী পাবলিক গ্রুপের সন্ধান পেয়েছেন। এসব গ্রুপের নাম ভ্লাদিমির পুতিন-লিডার অব দ্য ফ্রি ওয়ার্ল্ড এমন। এসব গ্রুপের সাড়ে ছয় লাখের বেশি সদস্য রয়েছে। এসব গ্রুপের রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনকে প্রশংসা করে নানারকম ছবি ও বার্তা প্রকাশ করা হয়েছে; এসব বার্তা ইংরেজি, রুশ, ফরাসী, আরবি এবং খমের ভাষায় লেখা।

পুতিনকে নিয়ে এসব পোস্ট শুধুমাত্র জনপ্রিয়ই নয় বেশ সক্রিয়ও। গবেষকদের হিসাবে গত এক মাসে সাড়ে ১৬ হাজার পোস্ট করা হয়েছে, এসব পোস্টে ৩৬ লাখের বেশি প্রতিক্রিয়া জানানো হয়েছে। এই গ্রুপগুলোর সার্বিক লক্ষ্য হচ্ছে পুতিনকে একজন নায়ক হিসেবে প্রতিষ্ঠা করা যিনি ব্যাপক আন্তর্জাতিক সমর্থন নিযে পশ্চিমের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন।

Techshohor Youtube

বিভিন্ন ছবিতে দেখা যাচ্ছে রাশিয়ার নেতা ‘আত্মবিশ্বাসের সাথে হেঁটে যাচ্ছেন, কুকুরছানাকে আদর করছেন, ক্যামেরার দিকে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে রয়েছেন, সেনাদের স্যালুট করছেন, ভাল্লুক ও সিংহের মতো বন্য প্রাণীদের সাথে চলছেন।’

২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলার পর থেকে এই গ্রুপগুলোয় এক লাখের বেশি নতুন সদস্য যুক্ত হয়েছে।

গবেষকরা দেখতে পেয়েছেন গ্রুপে এডমিনেস্ট্রেটর হিসেবে নিবন্ধিত অনেকেরই একই নামে একাধিক একাউন্ট রয়েছে। গবেষকরা এ ধরনের কমপক্ষে ১০০টি অ্যাকাউন্ট খোঁজে পেয়েছেন। এই অ্যাকাউন্টগুলো একে অন্যকে ফলো করে এবং অনেকসময় তারা উষ্ণ বার্তা প্রকাশ করে অথবা হার্ট ইমো পাঠায়। পুতিন পন্থী অ্যাকাউন্টগুলো পরিচালনার পাশাপাশি তারা রাশিয়ান ফেডারেশন অথবা রাশিয়ার সিকিউরিটি সার্ভিসের উপস্থাপন করে; যা পুরোপুরি ভুয়া।

আইএসডি বলছে ডুপ্লিকেট অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করা ফেইসবুকের নিয়ম লঙ্ঘন করা।

প্রধান গবেষক মোস্তফা আয়াদ এ ধরনের কার্যক্রমকে ‘অ্যাস্ট্রোটার্ফিং’য়ের সঙ্গে তুলনা করেছেন। অ্যাস্ট্রোটার্ফিং একটি অনলাইন কার্যক্রম যেখানে তৃণমূল পর্যায়ে বড় ধরনের সমর্থনের মিথ্যা আবহ প্রকাশ করে।

আইএসডির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে হামলার এই সময়ে পুতিন ও ক্রেমলিনের পক্ষে ব্যাপক সমর্থন তৈরি করতেই এই প্রচারনা চালানো হচ্ছে।

সক্রিয় ব্যবহারকারী

খুব নিবিঢ় পর্যবেক্ষণে কিছু কিছু গ্রুপ অ্যাডমিনের অসামঞ্জস্যপূর্ণ কর্মকান্ড লক্ষ্য করা গিয়েছে। যেমন- মেরিন নামের এক ব্যাক্তি নিজেকে সিরিয়াবাসী হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন। পুতিনের পক্ষে জনসমর্থন তৈরি করতে তিনি তিনটি পৃথক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করেন। তিনটি অ্যাকাউন্ট থেকেই আরবী ভাষায় প্রতিদিন একইসময়ে পোস্ট করা হয়।

কম্বোডিয়া থেকে ভিক্টোরিয়া নামের আরেক মডারেটর খমের ভাষায় পোস্ট করেন। গত ৪ ফেব্রুয়ারি পর থেকে তার পোস্টগুলোয় ৩৪ হাজারের বেশি প্রতিক্রিয়া এসেছে এবং চার হাজারবারের বেশি শেয়ার হয়েছে।

আরো বিস্ময়কর বিষয় হচ্ছে মেরিন ও ভিক্টোরিয়া দুজনে মিলে খমের ভাষায় একটি ফেইসবুক পেইজ পরিচালনা করেন। তাদের সঙ্গে বিবিসির পক্ষ থেকে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও সম্ভব হয়নি।

আর্মেনিয়ার নাগরিক হাসমিক জানিয়েছেন, তিনি একজন সাংবাদিক এবং ছয়টি পুতিন-পন্থী গ্রুপ পরিচালনায় সহায়তা করছেন। এ কাজ করার জন্য কারা তাকে আমন্ত্রন করেছে জানতে চাইলে তিনি বলেন ইতোমধ্যে তারা গ্রæপটি পরিচালনা করছে। আর এ কাজের জন্য তিনি কোন অর্থও নেন না।

রাশিয়া জড়িত?

এই অ্যাকাউন্টের সঙ্গে জড়িতদের কারা উৎসাহ দিচ্ছে তা খোঁজে বের করা বেশ কঠিন। কারন এগুলোর সঙ্গে রুশ সরকারের সরাসরি কোন যোগসূত্র নেই এবং অন্যান্য সুপরিচিত রাশিয়ার বিভ্রান্তিমূলক প্রচারনাগুলোর বিপরীতে। নেটওয়ার্কগুলো খুব ধূর্ত আচরন করছে না ; এমনকি এরসঙ্গে জড়িতরাও নিজেদের উদ্দেশ্য লুকানের চেষ্টা করছে না।

কিন্তু এরপরেও এই নেটওয়ার্কের সঙ্গে রুশ কর্তৃপক্ষ অথবা রাশিয়ার অভ্যন্তরে পুতিন-পন্থীরা যুক্ত রয়েছেন এমন সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না।

এ বিষয়ে ফেইসবুক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানিয়েছেন ফেইক অ্যাকাউন্ট তাদের নীতিমালা বহির্ভুত এবং এ ধরনের একাধিক অ্যাকাউন্ট তারা স্থগিত রেখেছে।

মেটার একজন মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘ইউক্রেন সংকট নিয়ে যে কোন বিভ্রান্তিমূলক তথ্য ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধে আমরা শক্ত পদক্ষেপ গ্রহন অব্যাহত থাকবে।’

বিবিসি/আরএপি

*

*

আরও পড়ুন