স্মার্টফোন কেনার আগে দেখার ৫ বিষয়

ফোন-টেকশহর

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এখন স্মার্টফোনের যুগ বললে খুব বেশি বাড়িয়ে বলা হবে না। এ ডিভাইস যেন মোবাইল ফোনের ধারণাই বদলে দিয়েছে। শুধু কথা বলা নয়, বিশ্বকে হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছে ইন্টারনেট ও অ্যাপসসহ নানান প্রযুক্তি সুবিধা। এসব কারণে জনপ্রিয়তা বাড়ছে স্মার্টফোনের।

তবে শখ করে ফোনটি কিনে ফেলার আগে কিছু বিষয়ের দিকে নজর দিতে হবে। বাজেটসহ ডিভাইসটির বিভিন্ন ফিচারের প্রতি নজর দিতে হবে। বিবেচ্য এসব বিষয় জানাতেই এ টিউটোরিয়াল।

ডিজাইন
স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে সবার আগে যেটি খেয়াল করতে হবে তা হলো ডিজাইন। পছন্দমতো ডিজাইন না হলে তা পরে মনের মধ্যে নানান শংসয় তৈরি করবে। তবে কেমন ডিজাইনের ফোন পছন্দ হবে তা নির্ভর করবে ক্রেতার নিজের ওপর।

ফোন-টেকশহর

বাজারে অনেক ডিজাইনের স্মার্টফোন পাওয়া যায়। নিজের রুচি এবং পছন্দমত ডিজাইনেরটি সেটা ভেবে চিন্তে বেছে নিতে হবে। যেন কেনার পর ডিজাইন নিয়ে দ্বিধা না থাকে। দ্বিধা থাকলে ফোন ব্যবহারে স্বস্তি আসবে না।

ওজন
মোবাইল ফোন বেশিরভাগ সময় পকেটে রাখা হয়। তাই এটি যত বেশি হালকা হয় ততো ভালো। তবে বড় আকারের হলে ওজন বাড়ে। ক্রেতার কাজের ধরনের ওপর নির্ভর করে বেশি ওজনের ফোন কেনা উচিত। সারাক্ষণ বাইরে থাকলে কিংবা সাইকেল বা মোটরবাইক চালাতে হলে বেশি ওজনের ফোন নিয়ে সমস্যা তৈরি হতে পারে। কেননা এগুলো বহন করা ঝামেলার। তাই দৈনন্দিন কাজের ধরন অনুযায়ী ফোন পছন্দ করা উচিত।

স্ক্রিন এবং ডিসপ্লে
বর্তমানে বড় আকারের ডিসপ্লের জনপ্রিয়তা বাড়ছে। তবে সহজে বহন করতে চাইলে ছোট পর্দার মোবাইল নেওয়া উচিত। চার ইঞ্চি বা সাড়ে চার ইঞ্চি বা পাঁচ ইঞ্চি পর্দার মোবাইল ফোনেরও বেশ চাহিদা রয়েছে।

ডিসপ্লের গুণগত মান অনেক প্রয়োজনীয় বিষয়। সবচেয়ে ভালো মানের ডিসপ্লে হতেহলে ১০৮০ পিক্সেল থাকতে হবে। তবে উচ্চ রেজুলেশনের ডিসপ্লে হলে স্মার্টফোনের দাম বেড়ে যায়।

অন্যদিকে স্বল্প দামের স্মার্টফোন কিনতে হলে খেয়াল করে দেখতে হবে যাতে ভিন্ন ভিন্ন কোণ থেকে দেখলে ছবি পরিষ্কার দেখা যায় কি না। সাধারণ মানের মোবাইলের ডিসপ্লে ৭২০পি-এর কম হয়ে থাকে।

স্মার্টফোন-টেকশহর

অপারেটিং সিস্টেম
নতুন স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলো অপারেটিং সিস্টেম (ওএস)। কোন প্লাটফর্মের ফোন ব্যবহার করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন সেদিকে মনোযোগ দিতে হবে। যে সংস্করণের অপারেটিং সিস্টেমের ফোন কিনছেন সেটির আপডেট পাওয়া যায় কি না তা দেখে নিতে হবে। যদি ফোনটির আপডেট না থাকলে তা কেনার আগে দ্বিতীয়বার ভাবা উচিত।

অ্যান্ড্রয়েড এখনকার সবচেয়ে জনপ্রিয় সিস্টেম। আইফোনের আইওএসের চাহিদাও কম নয়। সাম্প্রতিক সময়ে মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ ফোনও জায়গা তৈরি করে নিচ্ছে। কেননা নোকিয়ার ভক্তের সংখ্যাও নেহায়েত কম নয়।

পছন্দেরটি বেছে নেওয়ার আগে ওএস বিষয়ে সাধারণ জ্ঞান থাকতে হবে। কারণ ওএসের ওপর ভিত্তি করেই স্মার্টফোনের সব কার্যক্রম নির্ধারিত হয়। তবে যদি সব অ্যাপ্লিকেশন সহজলভ্যভাবে পেতে হলে অ্যান্ড্রয়েড সবচেয়ে বেশি উপযোগি।

ব্যাটারি
স্মার্টফোনের সবচেয়ে বড় অসুবিধা এটিতে চার্জ ক্ষয় হয় বেশি। অনেক সময় প্রয়োজনের সময় চার্জ থাকে না। এ রকম হয়রানি থেকে মুক্তি পেতে সব সময় উচ্চ ক্ষমতার ব্যাটারিযুক্ত ফোন নির্বাচন করতে হবে। ঘর থেকে বেশি সময় বাইরে থাকলে যেসব ফোনে বেশি সময় চার্জ থাক তা কেনা উচিত।

ব্যাটারির শক্তি নির্ধারিত হয় ফোনটি কেমন সেটির ভিত্তিতে। তবে বড় মাপের স্ক্রিনের ফোনে বেশি ব্যাটারি শক্তি ক্ষয় করে। তাই এ ধরনের ফোন অনেক সময় ধরে চালু রাখতে বেশি শক্তিশালী ব্যাটারির প্রয়োজন হবে।

আরও দেখুন

হাই এন্ড নয়, স্মার্টফোনের পরের লড়াই দাম নিয়ে

অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস গতিময় রাখার পাঁচ টিপস

অ্যান্ড্রয়েডের ব্যাটারি ব্যাকআপ বাড়ানোর উপায়

*

*

আরও পড়ুন