ডেটলাইনের মধ্যে সরছে না সব ক্যাশ সার্ভার, গুগল-ফেইসবুককে দোষারোপ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্থানীয় পর্যায়ে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো ক্যাশ সার্ভার সরানো নিয়ে বিপাকে পড়েছে।

বিটিআরসির নির্দেশনা অনুযায়ী ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে এসব ক্যাশ সার্ভার না সরালে তা বন্ধ করে দেয়া হবে।

অন্যদিকে ইন্টারনেট সেবাদাতারা বলছেন, এই সময়ের মধ্যে সরাতে হবে এমন মোট সার্ভারের অর্ধেকও সরানো সম্ভব হয়ে উঠবে না। এরজন্য তারা দুষছেন গুগল ও ফেইসবুককে।

Techshohor Youtube

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সভাপতি মোঃ ইমদাদুল হক টেকশহরডটকমকে বলছেন, বিটিআরসির সবরকম সহযোগিতার পরও গুগল-ফেইসবুকের অসহযোগিতার কারণে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এই ক্যাশ সার্ভার সরানোর কাজটি শেষ হবে না।

‘এখন পর্যন্ত মাত্র ৩০ শতাংশ ক্যাশ সার্ভার সরানো হয়েছে। যা মনে হচ্ছে ক্যাশ সার্ভার সরানোর কাজটি পুরোপুরি শেষ হতে আরও ২০-২৫ দিন সময় লাগতে পারে।’ বলছিলেন তিনি।

আইএসপিএবি’র সভাপতি বলেন, ক্যাশ সার্ভার সরাতে বিটিআরসি ও গুগল বা ফেইসবুকের এনওসি লাগে। বিটিআরসি এক্ষেত্রে এনওসি দেয়াসহ সার্বিক সহযোগিতা করলেও গুগল-ফেইসবুক এই এনওসি দিচ্ছে না।

ইন্টারনেট সেবাদাতারা বলছেন, ৩১ ডিসেম্বরের পর ক্যাশ সার্ভার বন্ধ করে দেয়া হলে স্থানীয় পর্যায়ে গ্রাহকদের সেবায় সাময়িক বিঘ্ন হতে পারে। এরপর এটি ঠিক হতে আরও কিছু সময় লাগবে।

এদিকে গুগল ৩১ তারিখের আগেই কোনো কোনো আইএসপির ক্যাশ সার্ভার ব্যবহার বন্ধ করে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন একাধিক ব্যবসায়ী।

ক্যাশ সার্ভার নিয়ে বিটিআরসির নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি), ন্যাশনাল ইন্টারনেট এক্সচেঞ্জ (নিক্স), মোবাইল অপারেটর নেটওয়ার্ক এবং ন্যাশনওয়াইড আইএসপি বিটিআরসির অনুমতি নিয়ে নতুন করে ক্যাশ সার্ভার স্থাপন করতে পারবে। স্থানীয় পর্যায়ে আইএসপিদের কোনো ক্যাশ সার্ভার থাকবে না। যাদের আছে তা বন্ধ করে দিতে হবে।

আর এজন্য স্থানীয় পর্যায়ের আইএসপিদের ক্যাশ সার্ভার সরাতে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় দেয়া হয়। আইএসপিগুলো তাদের ক্যাশ সার্ভার আইআইজিসহ এ বিষয়ে অনুমতিপ্রাপ্ত সেবাদাতার কাছে স্থানান্তর করতে পারবে।  

*

*

আরও পড়ুন