Techno Header Top and Before feature image

অ্যান্ড্রয়েডের সম্মেলন ও একজন বাংলাদেশী ‘সুন্নাত’

ড্রয়েডকনে এস এম মহি-উস সুন্নাতসহ (বামে) অংশগ্রহণকারীরা

অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে কাজ করছেন বাংলাদেশের সফটওয়্যার প্রকৌশলী এস এম মহি-উস সুন্নাত। বর্তমানে অস্ট্রিয়ায় একটি প্রতিষ্ঠানে সিনিয়র সফটওয়্যার প্রকৌশলী (অ্যান্ড্রয়েড) হিসেবে কাজ করছেন তিনি।

অ্যান্ড্রয়েড ডেভলপারদের নিয়ে আন্তর্জাতিক আয়োজন ‘ড্রয়েডকন’-এ ২০১৫ সাল থেকে নিয়মিত যোগ দিচ্ছেন। বাংলাদেশেও একবার এ আয়োজন করেছেন। চলতি বছরেও জার্মানিতে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে যোগ দিয়েছেন। ড্রয়েডকনসহ সুন্নাতের নানা বিষয় নিয়ে লিখেছেন টেকশহরের স্পেশাল করসপনডেন্ট নুরুন্নবী চৌধুরী

সারাবিশ্বের এখন গুগলের তৈরি স্মার্টফোনের অপারেটিং সিস্টেম (ওএস) অ্যান্ড্রয়েডের জয়জয়াকার। অ্যাপলসহ অল্প কয়েকটি মোবাইল প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ছাড়া বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানই অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম দিয়েই নিজেদের স্মার্টফোন বাজারে ছাড়ছে। ২০০৮ সালে শুরু হওয়া এ ওএসের তাই রয়েছে বিশাল অ্যাপ স্টোর। স্ট্যাটাস্টিকার তথ্য অনুযায়ী ২০০৯-২০২১ সালের আগস্ট পর্যন্ত অ্যাপ স্টোরে যুক্ত হওয়া অ্যাপের সংখ্যা প্রায় ২৮ লাখ।

অ্যান্ড্রয়েডের নানা উদ্যোগ

অ্যান্ড্রয়েডকে ঘিরে তাই রয়েছে নানা উদ্যোগ। আন্তর্জাতিক ভাবে তেমনই একটি উদ্যোগের নাম ‘ড্রয়েডকন’ (www.droidcon.com)। এটি মূলত গ্লোবাল স্কেলে অ্যান্ড্রয়েড কমিউনিটি। পৃথিবীর প্রায় সকল দেশের অ্যান্ড্রয়েড ডেভলপার কোন না কোন ভাবে সংযুক্ত রয়েছে এ উদ্যোগে । এ আয়োজনগুলোতে গুগল, ফেসবুক, টুইটারসহ বিশ্বখ্যাত নানা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলীরা বক্তা হিসেবে যোগ দিয়ে থাকে। ২০০৯ সালে জার্মানির বার্লিনে আমাদের প্রথম ড্রয়েডকন অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, ইটালি, স্পেন, দুবাই, সিঙ্গাপুরসহ বিশ্বের ২৫টি শহর ড্রয়েডকন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ সম্মেলনটির মূল উদ্দেশ্য একটি বড় অ্যান্ড্রয়েড কমিউনিটি তৈরি করা। এর সঙ্গে বিশ্বের শতাধিক প্রতিষ্ঠানও যুক্ত থাকে যারা প্রতিনিয়ত নতুন নতুন অ্যান্ড্রয়েড ডেভলপারের খোঁজ করে। শুধুমাত্র অ্যান্ড্রয়েড ডেভলপারদের জন্য হলেও সম্মেলনে বিভিন্ন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের শীর্ষ ব্যক্তিরাও যোগ দিয়ে থাকেন।

ড্রয়েডকনের আয়োজেন এস এম মহি-উস সুন্নাত

ড্রয়েডকনে বাংলাদেশের সুন্নাত

২০১৩ সাল থেকে অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে কাজ শুরু করেন বাংলাদেশের অ্যান্ড্রয়েড ডেভলপার এস এম মহি-উস সুন্নাত। বর্তমানে তিনি আন্তর্জাতিক নেটিভওয়েবস নামক একটি প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র সফটওয়্যার প্রকৌশলী হিসেবে চাকুরি করছেন। আর সে কাজের সূত্রেই তিনি অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে আন্তর্জাতিক কমিউনিটিতে যুক্ত হতে গিয়েই খোঁজ পান অ্যান্ড্রয়েড কনের। পরবর্তীতে খোঁজ পেয়ে ২০১৫ সালে সর্বপ্রথম ১০০ পাউন্ডের স্টুডেন্ট টিকিট কিনে যোগ দেন এ সম্মেলনটিতে। সেবার নিজের পরিবার থেকে বিমানের টিকিট, থাকা-খাওয়ার জন্য সকল খরচ নেন তিনি। বর্তমানে অস্ট্রিয়াতে থাকা সুন্নাত টেকশহরকে বলেন, ‘পরিবার থেকে  খরচ নিয়ে এমন একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দেয়া বেশ কঠিনই ছিল। কিন্তু পরিবারকে আশ্বস্থ করি যে, আন্তর্জাতিক এ আয়োজনটি নিজের ক্যারিয়ারে সহায়তা করবে।’  সে বছর তিন দিনের আয়োজনে প্রায় ১০-১২ টি সেশনে যুক্ত হয়ে নানা কিছু জানতে পারেন তিনি। আর তারপরেই অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে ক্যারিয়ারের এক নতুন অধ্যায় শুরু করেন তিনি। চলতি বছরও জার্মানিতে অনুষ্ঠিত ড্রয়েডকনে যোগ দিয়েছেন সুন্নাত।

ড্রয়েডকনের আয়োজন

বাংলাদেশে ড্রয়েডকন

প্রথমবার ড্রয়েডকনে গিয়েই এস এম মহি-উস সুন্নাত আমাদের দেশে এ আয়োজন করার ব্যাপারে মূল আয়োজকদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেন। অবশেষে তাদের সম্মতি নিয়ে বাংলাদেশে ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো ড্রয়েডকনের (www.facebook.com/droidconDHK) আয়োজন করা হয়। ঢাকায় অনুষ্ঠিত সে আয়োজনে ২০০ জন অ্যান্ড্রয়েড ডেভলপার অংশগ্রহণ করেন। আগামী বছর ঢাকায় এ সম্মেলনটি আবার আয়োজন করার কথা জানিয়ে সুন্নাত বলেন, ‘দেশে অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে আগ্রহীদের নেটওয়ার্কিংসহ নানা কাজে সহায়তা করতে সম্মেলনটি আয়োজন করা হচ্ছে। পরবর্তীতে প্রতিবছর এ আয়োজনটি করার ইচ্ছে আছে।’ এ আয়োজনে অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে কাজ করা যে কেউ যুক্ত হতে পারেন উল্লেখ করে সুন্নাত জানান, নিজের স্কিল, এক্সপেরিয়েন্স বা চাকুরি পাওয়ার ক্ষেত্রেও এটি বেশ উপকারী।’

ক্যারিয়ার গড়তে সহায়তা

অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে কাজ করে অনেকেই বুঝতেই পারেননা এর বাজার কত বড়। আর এখন যেহেতু প্রযুক্তি হাতের মুঠোয় তাই অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে কাজ করাদের জন্য বিশ্ববাজার উন্মুক্ত বললেন এস এম মহি-উস সুন্নাত। তিনি জানান, আমরা যারা ডেভেলপার, তাদের সবারই উচিত বিশ্বের বাজারে অ্যান্ড্রয়েডের চাহিদা কেমন, কি চাচ্ছে বা নিজের স্কিল বাড়ানোর জন্য কি করা দরকার, তা খুঁজে বের করা অথবা যারা সিনিয়র ভাইরা আছেন, তাদের থেকে কিছু উপদেশ নেয়া। পাশাপাশি নিজের অভিজ্ঞতা বাড়াতে ওপেন সোর্স ভিত্তিক প্রজেক্টে যুক্ত হওয়া।

ক্যারিয়ায়ের শুরুতে আয়ের দিকে গিয়ে নিজের স্কিল আপগ্রেড করা দরকার উল্লেখ করে সুন্নাত বলেন, ‘অন্তত ৩ বছর কোন ভালো মেন্টর বা প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানে কাজ করা উচিত, এতে বেতন কম হলেও করা উচিত।’ ড্রয়েডকন নিয়ে জানালেন, ড্রয়েডকন এমন একটি প্লাটফর্ম, যার মাধ্যেম একটি সঠিক পথ খুঁজে পেতে পারে। 

*

*