Techno Header Top and Before feature image

ওয়েবসাইট ব্লক কনটেন্ট অপসারণ করে কারা, কীভাবে ?

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আমরা প্রায়ই শুনি ফেইসবুক-ইউটিউবসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় রাষ্ট্রবিরোধী, জঙ্গিবাদ, ধর্মীয় উসকানিমূলক ও আপত্তিকর কনটেন্ট অপসারণ ও ওয়েবসাইট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

আসলে এই কাজটি দেশের কয়েকটি সংস্থা করে থাকে। চলুন সংশ্লিষ্টদের মুখেই জেনে আসা যাক বিস্তারিত :

বিটিআরসির সিস্টেমস এন্ড সার্ভিসেস বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো: নাসিম পারভেজ বলছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ৮ ধারা এর (১ ও ২) উপধারা অনুযায়ী আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী ডিজিটাল সিকিউরিটি এজেন্সির মহাপরিচালকের মাধ্যমে ডিজিটাল মাধ্যম থেকে কনটেন্ট অপসারণ বা ব্লক করার জন্য বিটিআরসিকে অনুরোধ করে।

‘এরপর বিটিআরসি অবমাননাকর পোস্ট এবং আপত্তিকর কনটেন্ট সরাতে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহকে কনটেন্ট রিপোর্টিং সিস্টেম (সিআরএস) এর মাধ্যমে অনলাইনে অনুরোধ জানায়। এরপর তারা তাদের গাইডলাইন অনুযায়ী কনটেন্ট অপাসারণ করে’ উল্লেখ করেন তিনি।

নাসিম পারভেজ জানান, এর বাইরেও কাজটি সরকারের অনুমোদনক্রমে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের আওতাধীন ডিপার্টমেন্ট অব টেলিকম (ডট) করে থাকে। ডটে স্থাপিত সাইবার থ্রেট ডিটেকশন এন্ড রেসপন্স (সিটিডিআর) কারিগরী সিস্টেমের মাধ্যমে আপত্তিকর ওয়েবসাইট, ডোমেইন এবং ব্লগ বন্ধ করার কার্যক্রম গ্রহণ করে থাকে।

দেখা যাক গত এক বছরে কোথায়, কী সংখ্যায় ওয়েবসাইট ব্লক ও কনটেন্ট অপসারণ করা হয়েছে :

পর্নোগ্রাফি ও জুয়ার সাইট : সিটিডিআরের মাধ্যমে ২২ হাজার পর্নোগ্রাফি ও জুয়ারি সাইটে প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে।

ফেইসবুক : বিটিআরসি ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে ১৮ হাজার ৮৩৬ টি লিংক অপসারণের অনুরোধ করে যার মধ্যে ৪ হাজার ৮৮৮ লিংক অপসারণ করা হয়েছে।

ইউটিউব : বিটিআরসি ৪৩১ টি লিংক বন্ধ করার অনুরোধ করে ইউটিউবকে। এরমধ্যে ৬২টি লিংক বন্ধ করে ইউটিউব।

এছাড়া সিটিডিআরের মাধ্যমে ১ হাজার ৬০টি ওয়েবসাইট এবং লিংক বন্ধ করা হয়েছে ।

*

*

আরও পড়ুন