Techno Header Top and Before feature image

এনটিটিএন-আইআইজির ট্যারিফও বেঁধে দিল বিটিআরসি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সারাদেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের দাম বেঁধে দেয়ার পর এবার এনটিটিএন ও আইআইজির ট্যারিফও নির্ধারণ করে দিয়েছে বিটিঅরসি।

চলতি বছরের সেপ্টেম্বর হতে সারাদেশে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের জন্য সকল ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান (আইএসপি), বেসরকারি ন্যাশনওয়াইড টেলিকমিউনিকেশন ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) ও ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) এর এই ট্যারিফ কার্যকর হবে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে বিটিআরসির এক অনুষ্ঠানে এই ট্যারিফের উদ্বোধন করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। এতে সভাপতিত্ব করেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার ।

নতুন ট্যারিফের আওতায় এনটিটিএন অপারেটরদের সকল সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ১৬ টি সেবার প্রতি এমবিপিএস ডাটার ট্রান্সমিশনের জন্য ১৩ টাকা থেকে ৩০০ টাকা, জেলা থেকে জেলায় ১৫টি সেবার জন্য ১৩ টাকা থেকে ৩০০ টাকা এবং দূরবর্তী অঞ্চলের ১৫টি সেবার জন্য ২৫ থেকে ৫০০ টাকা ট্যারিফ নির্ধারণ করা হয়েছে।

এক্ষেত্রে গ্রাহক সেবার মান নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় জরিমানাসহ গ্রেড অব সার্ভিস বজায় রাখা শর্তে কোয়ালিটি অব সার্ভিস এবং কোয়ালিটি অব এক্সপেরিয়েন্সকে বিবেচনায় নিয়ে প্রতিটি সেবার মানদণ্ড নির্ধারণে এ, বি, সি, ডি, ই পাঁচটি গ্রেড চালু করা হয়েছে।

বেসরকারি ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ে (আইআইজি) প্রতিষ্ঠানের মোট ১১ টি সেবার জন্য সারাদেশে ট্রান্সমিশন ব্যয়সহ ৩৩০ টাকা থেকে ৩৯৯ টাকা ট্যারিফ নির্ধারণ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে গ্রাহক সেবার মান নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় জরিমানাসহ গ্রেড অব সার্ভিস বজায় রাখা শর্তে কোয়ালিটি অব সার্ভিস এবং কোয়ালিটি অব এক্সপেরিয়েন্সকে বিবেচনায় নিয়ে প্রতিটি সেবার মানদণ্ড নির্ধারণে এ, বি, সি তিনটি গ্রেড চালু করা হয়েছে।

এছাড়া সারাদেশে আইএসপি সেবার ক্ষেত্রে গত ৬ জুন তারিখ হতে প্রান্তিক পর্যায়ের জন্য নির্ধারিত ট্যারিফ চালু রয়েছে। এক্ষেত্রেও গ্রাহক সেবার মান নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় জরিমানাসহ গ্রেড অব সার্ভিস বজায় রাখা শর্তে কোয়ালিটি অব সার্ভিস এবং কোয়ালিটি অব এক্সপেরিয়েন্সকে বিবেচনায় নিয়ে প্রতিটি সেবার মানদন্ড নির্ধারণে এ, বি, সি তিনটি গ্রেড রয়েছে।

অনুষ্ঠানে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ইতোমধ্যে প্রান্তিক পর্যায়ের গ্রাহকদের জন্য ‘এক দেশ এক রেট’ চালু করা হয়েছে। তবে গ্রাহক পর্যায়ে সেবা পৌঁছাতে আইএসপির পাশাপাশি আইআইজি এবং এনটিটিএন প্রতিষ্ঠান জড়িত, তাই তাদের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে এই ট্যারিফ নির্ধারণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে শৃঙ্খলা ফিরে এসেছে জানিয়ে মোবাইল অপারেটরদের ক্ষেত্রেও শৃঙ্খলা ফেরাতে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য বিটিআরসির প্রতি আহবান জানান তিনি।

স্বাগত বক্তব্যে বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র বলেন, দেশে টেলিযোগাযোগ খাতে ডিজিটাল প্রযুক্তির বিকাশের ফলে মানুষ আজ ডিজিটাল সেবার সুযোগ পাচ্ছে এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সূচকে বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে।

অনুষ্ঠানে বিটিআরসির সিস্টেমস এন্ড সার্ভিস বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ নাসিম পারভেজ আইএসপি, আইআইজি ও এনটিটিএন ট্যারিফের তুলনামুলক চিত্র উপস্থাপনের পাশাপাশি পুরো প্রক্রিয়া সর্ম্পকে তথ্যবহুল উপস্থাপনা দেন।

বিটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডঃ মোঃ রফিকুল মতিন বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশে গড়তে এবং প্রান্তিক জনগণকে স্বপ্লমূল্যে সেবা দিতে ট্যারিফ নির্ধারণ জরুরি ছিল।

দেশে সরকারি বেসরকারি এনটিটিএন মিলে প্রায় এক লাখ কিলোমিটার ফাইবার নেটওয়ার্ক রয়েছে উল্লেখ করে সামিট কমিউনিকেশন্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও আরিফ আল ইসলাম সরকারি এনটিটিএন অপারেটরগুলোকে এক দেশ এক রেটে আসার আহবান জানান। মোবাইল অপারেটরদের জন্য ট্যারিফ নির্ধারণের অনুরোধ জানান তিনি।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আমিনুল হাকিম বলেন, আগামীতে প্রতিটি জেলায় পয়েন্ট অব প্রেজেন্স(পপ) স্থাপন হলে গ্রাহক মানসম্মত ও নিরবচ্ছিন্ন সেবা পাবে। তাছাড়া তিনি ২০২২ সালের ২৬ মার্চ হতে গ্রাহক পর্যায়ে ৫ এমবিপিএসের খরচে ১০ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট সেবা পৌঁছানোর ঘোষণা দেন ।

দূর্গম এলাকায় ইন্টারনেট সেবা নিতে খরচ বেড়ে গেলেও ডিজিটাল বাংলাদেশের উন্নয়নে সেপ্টেম্বর হতে নতুন ট্যারিফ বাস্তবায়নের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন আইআইজি ফোরামের মহাসচিব আহমেদ জুনায়েদ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব মোঃ আফজাল হোসেন বলেন, ট্যারিফ নির্ধারণের ফলে মেট্রোপলিটন এলাকার পাশাপাশি জেলার গ্রাহকগণও কাঙ্খিত সেবা পাবে।

টেলিযোগাযোগ খাতের উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সকল স্টেকহোল্ডারদের সাথে নিয়ে কাজ করার কথা উল্লেখ করে সভাপতির বক্তব্যে শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর টেলিযোগাযোগ খাতের গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ যেমন- এক দেশ এক রেট, এনইআইআর, অর্ধেক খরচে বাংলায় এসএমএস সুবিধা, টেলিকম মনিটরিং সিস্টেম ক্রয়সহ গ্রাহকের কোয়ালিটি অব সার্ভিস ও কোয়ালিটি অব এক্সপেরিয়েন্স নিশ্চিতে কাজ করে যাচ্ছেন ।

‘আজকের এই পদক্ষেপ এর সুফল যেন গ্রাহক পর্যায়ে নিশ্চিত হয় এ বিষয়ে যথাযথ মনিটরং থাকবে বলে নিশ্চিত করেন এবং অবৈধ আইএসপি বন্ধে উদ্যোগ নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে বিটিআরসির ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড অপারেশনস বিভাগের কমিশনার প্রকৌশলী মোঃ মুহিউদ্দিন আহমেদ, লিগ্যাল এন্ড লাইসেন্সিং বিভাগের কমিশনার আবু সৈয়দ দিলজার হুসেইন, স্পেকট্রাম বিভাগের কমিশনার এ.কে.এম শহীদুজ্জামান, প্রশাসন বিভাগের মহাপরিচালক মোঃ দেলোয়ার হোসাইন, স্পেকট্রাম বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ শহীদুল আলম, ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড অপারেশনস বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ এহসানুল কবির, লিগ্যাল এন্ড লাইসেন্স বিভাগের মহাপরিচালক আশীষ কুমার কুন্ডু, অর্থ, হিসাব ও রাজস্ব বিভাগের মহাপরিচালক প্রকৈাশলী মোঃ মেসবাহুজ্জামানসহ পিজিসিবি, বাংলাদেশ রেলওয়ে, এনটিটিএন ও আইআইজিএবির প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন

এনটিটিএন-আইএসপি সম্পর্ক উন্নয়নে উদ্যোগ নেবে বিটিআরসি

অবশেষে নতুন এনটিটিএন লাইসেন্সের অনুমোদন

নির্ধারিত দামে ইন্টারনেট না দিলে ব্যবস্থা নেবে বিটিআরসি

*

*

আরও পড়ুন