Techno Header Top and Before feature image

নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে ২২০৪ কোটি টাকা পাচ্ছে টেলিটক

teletalk-techshohor

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফাইভজি সেবার প্রস্তুতি এবং নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে ২ হাজার ২০৪ কোটি ৩৯ লাখ টাকা বরাদ্দ পেয়েছে টেলিটক।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় ‘গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও ৫জি সেবা প্রদানে নেটওয়ার্কের আধুনিকায়ন’ প্রকল্প অনুমোদন পেয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন হতে ভার্চুয়ালি সভায় যোগ দেন।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট খরচ ধরা হয়েছে ২ হাজার ২০৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকার দেবে ২ হাজার ১৪৪ কোটি টাকা। বাকি ৬০ কোটি ৩৯ লাখ টাকা টেলিটকের নিজের।

২০২৩ সালের নভেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটির বাস্তবায়ন লক্ষ্য ধরা হয়েছে।

প্রকল্পে নতুন ৩ হাজার বিটিএস সাইট তৈরি করা, গ্রাহক সেবার সক্ষমতা বৃদ্ধিতে বিদ্যমান ২ হাজার থ্রিজি বা ফোরজি মোবাইল বিটিএস সাইটের যন্ত্রপাতিসমূহের ধারণক্ষমতা বৃদ্ধি করা, বিদ্যমান ২০০ মোবাইল বিটিএস প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে সাইটসমূহের আধুনিকায়ন, বিদ্যমান ১০০০ টুজি বা ৩জি মোবাইল বিটিএস সাইটে ফোরজি বিটিএস সংযোজন রয়েছে।

এছাড়া ফিক্সড ওয়ারলেস এক্সসেজ (এফডব্লিউএ) প্রযুক্তি স্থাপনের মাধ্যমে সরকারি দপ্তর, হাসপাতাল ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইন্টারনেট সেবা দিতে ৫ হাজার এফডব্লিউএ ডিভাইস স্থাপন, আইপি লংহল (জিবিপিএস ক্ষমতাসম্পন্ন) মাইক্রোওয়েভ লিংক স্থাপন, শর্টহল মাইক্রোওয়েভ লিংক স্থাপন, কোর নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ, কোর আইপি ব্যাকবোন নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং চার্জিং, বিলিং, ভ্যালু এডেড সার্ভিস ও  অন্যান্য সাবসিস্টেম সম্প্রসারণ রয়েছে।

একনেক সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান জানান, ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অধীনে টেলিটক ২০২১ সালের এপ্রিল হতে ২০২৩ সালের নভেম্বর মেয়াদে গ্রাম পর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং ফাইভজি সেবা প্রদানে নেটওয়ার্ক আধুনিকায়ন প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, প্রকল্পটির মূল উদ্দেশ্য হলো-গ্রামাঞ্চলের জনসাধারণকে ফোরজি প্রযুক্তিনির্ভর আধুনিক টেলিযোগাযোগ সেবা সুলভ মূল্যে দিতে নেটওয়ার্কের গুণগতমান উন্নয়ন । এছাড়া সরকারের ঘোষিত লক্ষ্য অনুসারে ২০২১-২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ফাইভজি প্রযুক্তিনির্ভর মোবাইল সেবা দেয়ার পূর্ব প্রস্তুতিতে বিদ্যমান কোর ও ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্কের প্রয়োজনীয় আধুনিকায়ন করা।

লোকসানি একটি প্রতিষ্ঠানকে কেন বারবার সরকার জনগণের করের টাকা দিচ্ছে, সাংবাদিকের এক প্রশ্নের জবাবে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শামসুল আলম বলেন, ‘বাংলাদেশ একটি কল্যাণমুখী রাষ্ট্র। সেভাবেই আমাদের নীতি প্রণয়ন হয়। ব্যক্তি খাতকে আমরা সহায়তা দেব, সুযোগ করে দেব। কিন্তু সবকিছু আমরা ব্যক্তি খাতে ছেড়ে দেব না।’

তিনি বলেন, ‘টেলিটকে এবার যেটা নেয়া হয়েছে সেটা একটু বেশি। এবার যখন প্রজেক্টটা আসল, থার্ড পার্টি দিয়ে এটাকে মূল্যায়ন করা হয়েছে। টেলিটকে লোকসানের কারণটা হলো- বাকি সব কয়টার রেট কিন্তু ডাবল তবে টেলিটকে কম। সোশ্যাল ওয়েলফেয়ারকে মাথায় রেখে অনেক লোকসানি প্রতিষ্ঠানও আমাদের চালিয়ে যেতে হয়।’

৪ টি মতামত

  1. Jabed sikder said:

    স্যার বরিশাল মেহেন্দিগঞ্জ পাতারহাঁট রামনাথপুর গ্রামে দুইটা ইস্কুল আছে যেখানে টেলিটকের 2G ঠিক মতো পাওয়া যায় না তাই আপনাদের কাছে আমাদের অনুরোধ এই এস্তানে একটি টেলিটকের টাওয়ার তৈরি করলে এতে ছাএ-ছাএীদের অনলাইনে ক্লাস করতে সুবিধা হবে।
    জেলাঃবরিশাল।
    থানাঃমেহেন্দিগঞ্জ।
    গ্রামঃরামনাথপুর
    যোগাযোগের জন্য মোবাইল নাম্বার:01714751456

  2. মোঃ মনিরুজ্জামান টুটুল said:

    সংবাদটি শুনে খুবই ভালো লাগছে যে গ্রামপর্যায়ে টেলিটকের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের সরকার উদ্যোগ নিয়েছেন এ জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আর টেলিটকের কাছে আবেদন থাকবে যে বরিশাল বিভাগের ভোলা জেলার দৌলতখান থানা মিয়ার হাট বাজারে একটি টাওয়ার স্থাপন করার জন্য কেননা এখানে অনেকেই টেলিটক ব্যবহার করতে ইচ্ছুক কিন্তু নেটওয়ার্ক না পাওয়ার কারণে অনেকেই টেলিটক ব্যবহার করতে পারছে না তাই আপনাদের কাছে আকুল আবেদন এখানে একটি টাওয়ার স্থাপন করে দিবেন।

*

*

আরও পড়ুন