Techno Header Top and Before feature image

জিপির ওপর এসএমপির ‘ঠিকঠাক’ বাস্তবায়ন দেখছে না রবি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সিগনিফিকেন্ট মার্কেট পাওয়ার (এসএমপি) অপারেটর বা একচেটিয়া অপারেটর হিসেবে গ্রামীণফোনের ওপর আরোপিত বিধি-নিষেধ বাস্তবায়ন ‘ঠিকঠাক’ হচ্ছে না বলে বলছে রবি।

বিষয়টি নিয়ে হতাশাও প্রকাশ করেছে গ্রাহক সংখ্যায় দেশের দ্বিতীয় এই অপারেটরটি।

বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের ফলাফল ঘোষণায় বুধবার এক ডিজিটাল সাংবাদিক সম্মেলনে এমন মতামত দেন রবির ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ।

দেশে একমাত্র এসএমপি অপারেটর গ্রামীণফোন। তবে সরাসরি গ্রামীণফোনের নাম উল্লেখ না করে তিনি বলেন, এসএমপি নিয়ন্ত্রণে ফলপ্রসূ বাস্তবায়নের অভাব রয়েছে। বিষয়টির নিয়ন্ত্রক পরিস্থিতি নিয়ে তারা উদ্বিগ্ন।

‘সামগ্রিক প্রতিযোগিতামূলক ক্রটিগুলো বাজারকে ব্যর্থতার দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিচ্ছে। প্রতিযোগিতার এমন ভঙ্গুর পরিস্থিতিতে অর্থনৈতিক সক্ষমতা অর্জন করা কঠিন হয়ে পড়েছে অপেক্ষাকৃত ছোট অপারেটরদের জন্য’ বলছিলেন তিনি।

মাহতাব আরও উল্লেখ করেন, ‘ক্রটিগুলো মূল্য নির্ধারণ প্রক্রিয়া এবং বিতরণ ব্যবস্থা গ্রাহকদের স্বার্থ ক্ষুন্ন করছে এবং একইসাথে টেলিকম শিল্পকে দূর্বল করে ফেলছে যা ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্য অর্জনের পথে বড় বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

তিনি হতাশা প্রকাশ করে বলেন, ‘সুষ্ঠুভাবে বাজার পরিচালনার জন্য এটি নিশ্চিত করা জরুরি যেন কোনো একক সংস্থা মূল্য নির্ধারণ ও উৎপাদন সিদ্ধান্তের বিষয়ে প্রভাব ফেলতে না পারে।’

‘দুঃখের বিষয় হচ্ছে আমাদের বাজারে উল্লেখযোগ্য একচেটিয়া আধিপত্য রয়েছে যার কারণে প্রতিযোগীরা উদ্ভাবনী ডিজিটাল প্রযুক্তিতে বিনিয়োগে নিরুৎসাহিত হচ্ছেন। অথচ দেশের ভবিষ্যতের জন্য এ খাতে বিনিয়োগ জরুরি’ উল্লেখ করেন রবির ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও ।

এরআগে ২০২০ সালের মে মাসে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) কাছে এসএমপির কার্যকর বাস্তবায়ন চেয়ে চিঠি দেয় রবি, বাংলালিংক ও টেলিটক।

সামাজিক দায়বদ্ধতার নামে এসএমপি অপারেটর বাজার নষ্ট করছে বলেও ওই চিঠিতে অভিযোগ করে তিন অপারেটর।

তিন অপারেটর প্রধানের যৌথ স্বাক্ষরে যাওয়া চিঠিতে গ্রামীণফোনের নাম না উল্লেখ করে তারা বলেছেন, এসএমপি ঘোষিত অপারেটরটি যেভাবে বাজার দখলের জন্য দেশের টেলিটকম খাতকে ঝুঁকির মধ্যে ঠেলে দিচ্ছে তা এ খাতটি ধ্বংস হয়ে যেতে পারে।

গত ২০২০ সালের জুনে এসএমপি বা একচেটিয়া অপারেটর হিসেবে গ্রামীণফোনের উপর প্রথমে দুই বিধিনিষেধ কার্যকরের নোটিস দেয় বিটিআরসি। এতে এমএনপি লকিং পিরিয়ড কমিয়ে দেয়া এবং বর্তমানে চালু সকল সার্ভিস, প্যাকেজ, অফার নতুন করে অনুমোদন নেয়া ও নতুন কোনো প্যাকেজ বা সেবার ক্ষেত্রেও অনুমোদনের বাধ্যবাধকতা দেয়া হয়েছে।

একই মাসে পরে আরও একটি বিধিনিষেধ দেয়া হয়ে। যেখানে কল টার্মেনেটিং রেট কমিয়ে দেয়া হয়।

জিপি বলছে তারা বিটিআরসি নির্দেশিত এসএমপি বিধি-নিষেধ ঠিকঠাক মেনে চলছে।

*

*

আরও পড়ুন