হোয়াটসঅ্যাপের বিতর্কিত নীতি কার্যকর

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ব্যক্তিগত গোপনীয়তা (প্রাইভেসি পলিসি) সংক্রান্ত বিতর্কিত নীতি ১৬ মে থেকে কার্যকর করেছে হোয়াটসঅ্যাপ। এই নীতি কার্যকরের আগে ব্যবহারকারীদের কয়েক মাস সময় বেঁধে দিয়েছিল ফেইসবুকের মালিকানাধীন জনপ্রিয় তাৎক্ষণিক বার্তা সেবা প্রতিষ্ঠানটি। তাদের এই সময়সীমা ১৫ মে নির্ধারিত ছিল।

ফেব্রুয়ারির শুরুতে তারা প্রথমে শর্ত দিয়েছিল, এই নীতি মেনেই হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করা যাবে, নয়তো বিদায় নিতে হবে। নীতি না মানলে হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট মুছে দেয়া হবে বলে ইতোপূর্বে হুশিয়ারি দেয়া হলেও সে অবস্থান থেকে কিছুটা সরে এসেছে হোয়াটসঅ্যাপ। তারা এখন বলছে, নীতি না মেনেও হোয়াটসঅ্যাপে থাকা যাবে, তবে পরিপূর্ণ সুবিধা বা ফিচার পাওয়া যাবে না।

এর আগে কয়েক দিন আগে তারা ব্যবহারকারীদের এই সতর্কতাকে নোটিফিকেশনের মাধ্যমে পুনরায় মনে করিয়ে দিয়েছে। যারা এখনো তাদের নীতিকে সম্মতি দেননি, কেবল তারাই নোটিফিকেশন পেয়েছেন। হোয়াটসঅ্যাপ জানিয়েছে, নির্ধারিত সময়সীমার আগেই দুই বিলিয়নেরও বেশি ব্যবহারকারী ইতোমধ্যে এই নীতিতে সম্মতি দিয়েছেন। ইউরোপ ও যুক্তরাজ্যের ব্যবহারকারীরা এই নীতিমালার আওতায় থাকবেন না, কারণ সেখানে গোপনীয়তা নিয়ে ভিন্ন আরেকটি আইন বলবৎ আছে।

নতুন নীতি নিয়ে ঘোষণার পর থেকেই বিশ্বজুড়ের ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। কোটি কোটি ব্যবহারকারী হোয়াটসঅ্যাপ ছেড়ে বিপ, সিগনাল, টেলিগ্রামের মতো ইনস্ট্যান্ট ম্যাসেঞ্জার অ্যাপে অ্যাকাউন্ট খোলে। বিশ্বের এক নম্বর ধনকুবের থেকে শুরু করে তারকা ও প্রভাবশালী ব্যক্তিরাও হোয়েটসঅ্যাপের বিরুদ্ধে এই ইস্যুতে সমালোচনা করেছিলেন। এর পর থেকেই নড়েচড়ে বসে হোয়াটসঅ্যাপ এবং তাদের নীতির ব্যাপারে কিছুটা নরম হয়।  

বিতর্কিত এই নীতিমালা কার্যকরের ফলে ব্যবহারকারীদের ফোন নম্বর, হ্যান্ডসেট মডেল, মোবাইল কোম্পানি, আইপি ঠিকানা, ইন্টারনেট সংযোগসহ কিছু তথ্য হোয়াটসঅ্যাপ সংগ্রহ করতে পারবে এবং এগুলো নিজেদের আওতাধীন অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বিনিময় করতে পারবে।

সূত্র : ইন্টারনেট/টিআর/মে ১৬/২০২১/১৪৫৩

*

*

আরও পড়ুন