Techno Header Top and Before feature image

আরও ৩৫ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব হচ্ছে

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত করতে ২০২৫ সালের মধ্যে দেশে আরও ৩৫ হাজার আধুনিক শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার ‘ইন্টারন্যাশনাল আইসিটি গার্লস ডে’ উপলক্ষে এটুআই, গ্রামীণফোন, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল আয়োজিত অনলাইন গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, কিশোরীদের ভবিষ্যত কর্মসংস্থানমুখী, দক্ষতা নির্ভর শিক্ষাব্যবস্থা গড়ে তুলতে আধুনিক প্রযুক্তি, সাইন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, ইঞ্জিনিয়ারিং ও গণিত বিষয়ে  আগ্রহী করে তুলতে হবে। তা না হলে  তারা পিছিয়ে পড়বে।

পলক বলেন, এসএসসি ও এইচএসসি পাস শিক্ষার্থীদের আইটিনির্ভর কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে সারাদেশের ৬৪ টি শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। তিনি প্রশিক্ষনার্থীদের মেন্টরিং, কোচিং ও মনিটরিং এর জন্য সরকারের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট সকলকে দায়িত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের আহবান জানান।

বৈঠকে বিশেষ অতিথি হিসেবে প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের কান্ট্রি ডিরেক্টর অর্লা অ্যালিসিয়া মারফি এবং গ্রামীণফোনের চিফ হিউম্যান রিসোর্স অফিসার সৈয়দ তানভীর হোসেন ।

পলক বলেন, সরকারি-বেসরকারি পর্যায় এবং একাডেমিয়া একত্রিত হয়ে কাজ করতে পারলেই গার্লস ইন আইসিটি ডে সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা সম্ভব। বাংলাদেশে মেয়েদের আইসিটিতে সম্পৃক্ত করার বীজ বপন করে গিয়েছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু তাঁর বিজ্ঞানমনস্কতার কারণে তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর ভবিষ্যৎমুখী জাতীয় শিক্ষানীতি প্রনয়নে উদ্যোগ নিয়েছিলেন আর জাতির পিতার সেই উদ্যোগ ও অসমাপ্ত কাজ আজ পূরণ করে চলেছেন তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অর্লা অ্যালিসিয়া মারফি বলেন, বর্তমান সমাজের প্রতিটি পর্যায়ে আইসিটির বিশাল প্রভাব রয়েছে। আইসিটি সেক্টরে নারীদের এগিয়ে আসায় অনুপ্রাণিত করতে ইন্টারনেটে নারীদের হয়রানি কমাতে বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করা প্রয়োজন। এছাড়া নারীদের তথ্যপ্রযুক্তিতে প্রশিক্ষণ বিষয়ে আরও জোর দিতে হবে।

সৈয়দ তানভীর হোসেন বলেন, বিশ্বজুড়ে শিক্ষায় একটা লিঙ্গগত বৈষম্য রয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তিতে নারীদের প্রশিক্ষিত করে তোলা শুধু আজকের জন্য দরকার তা নয় ভবিষ্যতের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হিসেবে একে বিবেচনা করতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডক্টর লাফিফা জামালের সঞ্চালনায় বৈঠকে আলোচনায় অংশ নেন, বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির, বাক্কো সভাপতি ওয়াহিদ শরীফ, স্টার্টআপ বাংলাদেশের এমডি টিনা এফ জাবীন।

*

*

আরও পড়ুন