মহামারির চেয়ে জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকানো কঠিন

বিল গেটস । ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : জলবায়ু পরিবর্তন ঠেকানোর চেয়ে মহামারি সামলানো অনেক বেশি সহজ বলে মন্তব্য করেছেন মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস।

বুধবার নতুন বই ‘হাউ টু অ্যাভোয়েড এ ক্লাইমেট ডিজাস্টার, ইজ এ গাইড টু ট্যাকলিং গ্লোবাল ওয়ার্মিং’ উন্মোচন করবেন তিনি।

জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে নিজের লেখা বইটির বিষয়ে তিনি বলেন, এই চ্যালেঞ্জ মোটেও হালকাভাবে নেয়া যাবে না। আগামী ৩০ বছর যে পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়নের কথা চলছে সেগুলো মানবসভ্যতার ইতিহাসে আগে কখনও ঘটেনি।

প্রতিবছর পরিবেশে ৫১ বিলিয়ন টন গ্রিনহাউজ গ্যাস জমা হচ্ছে। আমাদেরকে কার্বন নিঃসরণ শূন্যে নামিয়ে আনতে হবে। আর এই কাজে প্রযুক্তির সহায়তা নেয়া ছাড়া গতি নেই।

বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষেত্রে বাতাস ও সৌর শক্তি ব্যবহার করে কার্বন নিঃসরণ ৩০ শতাংশের নিচে আনা যাবে।স্টিল, সিমেন্ট ও সার উৎপাদন এবং যানবাহনসহ অ্যানান্য খাত থেকে বাকি ৭০ শতাংশ কার্বন-ডাই-অক্সাইড নিঃসরণও কমানো সম্ভব। তবে এইসব খাতকে পরিবেশ বান্ধব করতে গেলে যা যা বিকল্প থাকা প্রয়োজন তা এখনো আমাদের হাতে নেই। পরিবর্তন আনতে বা বিকল্প বের করতে উদ্ভাবনী উদ্যোগ প্রয়োজন। এর জন্য সরকারকে দায়িত্ব নিতে হবে।

বিল গেটসের মতে, জীবাশ্ম জ্বালানীর দাম অনেক কম। আমাদের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা এগুলোর আসল মূল্য নির্ধারণ করেনি। গাড়ির পেট্রলের কারণে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। এর ক্ষতিপূরণ ব্যবহারকারীরা দিচ্ছেন না। কয়লা ও গ্যাস থেকে যে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হচ্ছে, সেটার পরিবেশগত ক্ষতির কথাও ব্যবহারকারীরা চিন্তা করছে না।

কার্বন-ডাই-অক্সাইড নিঃসরণের কারণে সৃষ্ট ক্ষতির পরিমাণ কেউ আঁচ করতে পারছে না।তাই দূষণ কমাতে সরকারের হস্তক্ষেপ দরকার। বাণিজ্যিক কোম্পানিগুলোকে পরিবেশ বান্ধব পণ্য উৎপাদন করতে হবে। এতে প্রচুর গবেষণার প্রয়োজন। সরকারকে গবেষণায় বিনিয়োগ করতে হবে।

বিবিসি অবলম্বনে এজেড/ ফেব্রুয়ারি ১৫/২০২১/১১.৩৫

*

*

আরও পড়ুন