Techno Header Top and Before feature image

করোনার সময়ে ১০ লাখ ই-ফাইলিং নিষ্পত্তি : পলক

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : করোনার ৭ মাসে দেশে ১০ লাখ ই-ফাইলের কাজ নিষ্পত্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বুধবার হংকং আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতায় সাফল্য অর্জনকারীদের সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ তথ্য জানান তিনি।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে আইসিটি টওয়ারের বিসিসি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ওই অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়েছিলেন তিনি। 

অনুষ্ঠানে প্রথমবারের মতো হংকং আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতা- ২০২০ অংশ নিয়ে অসামান্য সাফল্য অর্জন করার স্বীকৃতি স্বরূপ বাংলাদেশের ১২টি দলকে সনদ দেয়া হয়। 

পলক বলেন, ই-ফাইলিং এ পৃথিবীর অনেক দেশের চেয়ে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে।  করোনাকালীন ৭ মাসে ১০ লাখ ই-ফাইলের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সরকার ব্লকচেইন প্রযুক্তিভিত্তিক উদ্ভাবনী সমাধান তৈরিতে শিক্ষার্থী ও তরুণদের উৎসাহিত করছে, যাতে তা কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ অন্যান্য খাতে ব্যবহার করে সাশ্রয়ী সেবা প্রদান করা যায়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আইটি খাতে বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে সারা দেশে ২৮টি হাইটেক ও আইটি পার্ক গড়ে তোলা হচ্ছে। ইতোমধ্যে নির্মিত যশোর শেখ হাসিনা সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে কয়েকটি বিদেশী কোম্পানীসহ ৪৮টি কোম্পানী ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। তিন বছরেরও কম সময়ে এ পার্কে দেড় হাজারের অধিক কর্মসংস্থান হয়েছে।

ব্লকচেইন আগামী প্রযুক্তির নিরাপদ ভিত্তি উল্লেখ করে পলক বলেন, প্রযুক্তির ব্যবহার ছাড়া অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধি করা সম্ভব নয়। তাই দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে সরকার শিক্ষার্থীদের স্কুলে কোডিংসহ তথ্যপ্রযুক্তি শেখানোর উদ্যোগ নিয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, ব্লকচেইন, ইন্টারনেট অব থিংস, রোবোটিকসের মতো ফ্রন্টিয়ার প্রযুক্তি সম্পর্কে ধারনা পেতে দেশে ৩০০টি স্কুল অব ফিউচার প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। যাতে ভবিষ্যতে তারা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগী দক্ষ মানুষ হয়ে গড়ে উঠতে পারে।

বিসিসির নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড বাংলাদেশ (বিসিওএলবিডি) এর আহবায়ক বুয়েটের সাবেক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ, অধ্যাপক ড. জাফর ইকবাল, এলআইসিটি প্রকল্প পরিচালক মো. রেজাউল করিম ও পলিসি এডভাইজার সামি আহমেদ, বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির, হংকং ব্লকচেইন সোসাইটির সভাপতি ড. লরেন্স মা ও বিসিওএলবিডি এর সমন্বয়ক হাবিবুল্লাহ এন করিম।

এ অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতায় যে ১২টি দল অংশগ্রহণ করে তারমধ্যে ৬টি মূল পুরস্কারের মধ্যে বাংলাদেশের ডিউই নিমবাস আইবিসিওএল বেস্ট প্রোটোটাইপ অ্যাওয়ার্ড ও ডিজিটাল ইনাভেশন পায় আইবিসিওএল ২০২০ সিলভার মেডাল এবং ১২টি দলকেই অ্যাওয়ার্ড অব মেরিট প্রদান করা হয়।

অনষ্ঠানে ১২টি দল ছাড়াও হংকং আন্তর্জাতিক ব্লকচেইন অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতা- ২০২০ এর আয়োজক, বিচারক ও মেন্টরদেরকে সনদ প্রদান করা হয়।

এডি/২০২০/অক্টোবর২৭/২১০০

*

*

আরও পড়ুন