vivo Y16 Project

স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের আলোচিত সিরিজগুলো

'ডার্ক' সিরিজের একটি দৃশ্য। ছবি : ইন্টারনেট

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মহামারীর কারণে এ বছর স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মগুলোর দর্শক অনেক বেড়েছে। আগের চেয়ে তারা কনটেন্টও বেশি দেখছে। তাই কনটেন্টগুলো জনপ্রিয় হচ্ছে দ্রুত গতিতে। চলতি বছরের আলোচিত সিরিজগুলো নিয়েই বিস্তারিত জানানো হলো ফিচারটিতে।

ডার্ক 

২০১৭ সালে এর প্রথম সিজন মুক্তি পায় নেটফ্লিক্স প্রযোজিত জার্মান সাই-ফাই ও থ্রিলার ধর্মী সিরিজটি। এ বছর জুনে এর তৃতীয় সিজন বের হয়। টাইম ট্রাভেলকে কেন্দ্র করে নির্মিত এ সিরিজে রয়েছে অনেকগুলো প্লট এবং অসংখ্য চরিত্র। মূল কয়েকটি চরিত্রের রয়েছে ৩টি ভিন্ন ভিন্ন বয়স।

Techshohor Youtube

প্রথম সিজনের কাহিনী শুরু হয় ২০১৯ সালে। এরপর কাহিনী কখনো পেছনে নিয়ে যাওয়া হয় তো কখনো আবার সামনে। ১৮৮৮, ১৯২১, ১৯৫৪, ১৯৮৭, ২০২০ ও ২০৫৩ সালের মধ্যে ঘুরতে থাকে কাহিনী। জটিল সব রহস্যের সমাধান মেলানো হয়েছে শেষ সিজনে।

ডেভস

৮ পর্বের মিনি সিরিজটি সাইন্স ফিকশন ঘরানার। এফএক্স অন হুলুতে এটি মুক্তি পায় চলতি বছরের মার্চে। সিলিকন ভ্যালির এক সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার নতুন অফিসে জয়েন করার পরই নিখোঁজ হন। তার কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার প্রেমিকা লিলি চ্যান রহস্য উদঘাটনের চেষ্টা করে। এক সময় খোঁজ পায় গোপন এক গবেষণাগারের। সত্য উদঘাটনের পর সব কিছুর জন্য লিলি কোম্পানিটির সিইও-কে দায়ি করে। অ্যালেক্স গারলেন্ড পরিচালিত সিরিজটি এক সিজনেই শেষ করা হয়েছে। দ্বিতীয় সিজন আসার কোনো সম্ভাবনা নেই।

নরমাল পিপল

ম্যারিন ও কনেলের সম্পর্ক স্কুল জীবনে শুরু হয়। ইউনিভার্সিটি পর্যায়ে যেতে যেতে কিভাবে তাদের প্রেম কাহিনী রঙ বদলায় তাই দেখানো হয়েছে নরমাল পিপলে।

আইরিশ লেখিকা স্যালি রুনির উপন্যাস নরমাল পিপল থেকে সিরিজটির কাহিনী নেওয়া হয়েছে। নিখাদ প্রেমের উপন্যাসটি প্রকাশিত হয় ২০১৮ সালে। প্রথম ৪ মাসেই যুক্তরাষ্ট্রে বইটির ৬৪ হাজার কপি বিক্রি হয়। বেস্ট সেলার বইটির মতো সিরিজটিও জনপ্রিয়তা পায়। নরমাল পিপলের আইএমডিবি রেটিং ৮.৫। যুক্তরাজ্যে বিবিসি আইপ্লেয়ার ও যুক্তরাষ্ট্রে হুলু স্ট্রিমিং সাইটে সিরিজটি দেখা যাবে।

মিস আমেরিকা

কেট ব্ল্যানচেট অভিনীত সিরিজটির কাহিনী ৭০ এর দশকের এক নারী রাজনীতিবিদকে নিয়ে নির্মিত। এই রাজনীতিবিদ নিজ স্বার্থে পিতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা টিকিয়ে রাখতে মরিয়া। তার প্রচেষ্টাতেই যুক্তরাষ্ট্রে সমঅধিকারের প্রতিষ্ঠার জন্য আইন সংশোধনের কাজ থেমে যায় এবং জনমনে সৃস্টি হয় তুমুল প্রতিক্রিয়া। যুক্তরাজ্যে বিবিসি আইপ্লেয়ার ও যুক্তরাষ্ট্রে হুলু স্ট্রিমিং সাইটে সিরিজটি দেখা যাবে।

শিটস’স ক্রিক

২০১৪ সালে শুরু হওয়া সিরিজটির সিজন ফিনালে প্রচারিত হয়েছে এ বছর। কাহিনী শুরু হয় বিশাল এক ধনী পরিবারকে ঘিরে। তারা ইমিগ্রেশন জটিলতায় পড়ে সব সম্পদ হারিয়ে ফেলে। একসময় মজার ছলে বার্থডে গিফট হিসেবে কেনা ছোট একটি শহরে তাদের ঠাঁই নিতে হয়। নতুন জীবনে বাবা, মা, ছেলে ও মেয়ে কিভাবে সংগ্রাম করে এবং পরিবারের মর্ম বুঝতে পারে তাই এখানে তুলে ধরা হয়েছে। চলতি বছর ৯টি এমি অ্যাওয়ার্ড বাগিয়ে নেয় শিট’স ক্রিক। কমেডি বিভাগে এক সিজনে এতোগুলো অ্যাওয়ার্ড পাওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম।

দিস কান্ট্রি

কমেডিতে ভরপুর এই সিরিজের কাহিনী গড়ে উঠেছে গ্রামে থাকা দুই ভাই বোনকে কেন্দ্র করে। এখনকার বেশিরভাগ সিরিজেই শহুরে জীবনের জটিলতা দেখানো হয়। এখানেই ‘দিস কান্ট্রি’ ব্যতিক্রম। ইংল্যান্ডের সহজ সরল গ্রাম্য জীবন সম্পর্কে এখানে ধারণা পাওয়া যাবে। চলতি বছরের মার্চে এর সিজন ৩ বের হয়েছে। দেখা যাবে বিবিসি আই প্লেয়ারে।

চিয়ার

মাঠের বাইরে গানের তালে শুধু নাচানাচি করাই কী চিয়ার লিডারদের কাজ? তাদের নাচ কি শুধুই মনোরঞ্জনের জন্য? এসব প্রশ্নের উত্তের দেওয়া হয়েছে ডকু সিরিজটিতে। গুরুত্বহীন বলে ধরে নেওয়া হলেও, খেলোয়াড়দের উজ্জীবিত করতে তাদের অবদান আছে। নাভারো কলেজের চিয়ার লিডারদের জীবনের কিছু ঘটনা নিয়ে নির্মিত ডকুমেন্ট্রিটি দেখা যাবে নেটফ্লিক্সে।

সেক্স এডুকেশন

মজার ছলে এখানে শরীরবৃত্তিয় নানা বিষয় ও যৌন সমস্যা সম্পর্কে অনেক তথ্য জানানো হয়েছে। কিশোর কিশোরীদেরকে যৌন হয়রানি সম্পর্কেও সচেতন করা হয়েছে সিরিজটিতে।

কিশোর-কিশোরীদের সঙ্গে কেউ যৌন বিষয়ক আলোচনা করে না। তবে হাই স্কুলের ছাত্র ওটিসের জীবন একটু আলাদা। তার মা সেক্স থেরাপিস্ট। তাই এ সংক্রান্ত অসংখ্য তথ্য ওটিসের হাতের নাগালেই থাকে। এসব বিষয়ে পড়াশুনা করে সে নিজেই যৌন বিষয়ক বিভিন্ন সমস্যার সমাধান দিতে শিখে যায়। মিভ নামের এক বান্ধবীর সঙ্গে সে নিজেই একটি সেক্স থেরাপি ক্লিনিক স্থাপন করে।

এজেড/ অক্টোবর ২৩/২০২০/১৩৪৪

আরও পড়ুন –

ভাইরাসের প্রভাবে ব্যবসা বদলেছে নেটফ্লিক্সের

যুক্তরাষ্ট্রে ফ্রি ট্রায়াল বন্ধ নেটফ্লিক্সের

নেটফ্লিক্সে সিনেমা পার্টি হোস্ট করবেন যেভাবে

নেটফ্লিক্সে অটোপ্লে বন্ধ করবেন যেভাবে

*

*

আরও পড়ুন

vivo Y16 Project