Samsung IM Campaign_Oct’20

কার্বন নিঃসরণ কমাতে ক্লাইমেট ক্লক তৈরি

ক্লাইমেট ক্লক। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ৭ বছর ১০৫ দিন ২২ ঘণ্টা। পৃথিবীকে বাঁচাতে যা করার এ সময়ের মধ্যেই করতে হবে।

বর্তমানে যে হারে কার্বন নিঃসরণ হচ্ছে তা অব্যাহত থাকলে আগামী ৭ বছর পর পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে যাবে। এতে সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, ঘন ঘন ঘূর্ণিঝড় সৃষ্টি, খাদ্য সংকট, খরা ও বন্যার মতো সমস্যা দেখা দেবে। অনেক মানুষ বাসস্থান হারাবে, সমাজে দ্বন্দ্ব তৈরি হবে ‌এবং বিপর্যয়ের মুখে পড়বে পৃথিবী।

তাই কার্বন খরচ কমাতে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ম্যানহাটনের মেট্রোনম এলাকায় বিশাল এক ডিজিটাল ঘড়িকে ক্লাইমেট ক্লকে বদলে ফেলা হয়েছে। 

ক্লাইমেট ক্লক তৈরির কাজটি করেছেন অ্যান্ড্রু বয়েড ও গ্যান গোলান। বর্তমানে নিউইয়র্কে চলছে ক্লাইমেট উইক সম্মেলন, যা আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর শেষ হবে। ততদিন পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার হিসাবের বদলে পৃথিবীকে বাঁচানোর ডেডলাইন দেখাবে ক্লাইমেট ক্লক।

পরবর্তীতে অন্য কোনো স্থানে ক্লাইমেট ক্লক স্থায়ীভাবে সরিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা আছে বয়েড ও গোলানের। এর আগে তারা প্যারিস ও বার্লিনে ক্লাইমেট ক্লক তৈরি করেছেন। ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যাক্টিভিস্ট গ্রেটা থুনবার্গের জন্যও একটি কাউন্ট ডাউন ক্লক বানিয়েছেন তারা। 

তবে ডেডলাইনটি তারা ঠিক করেননি। বার্লিনের মার্কেটর রিসার্চ ইনস্টাটিউট অন গ্লোবাল কমোনোস অ্যান্ড ক্লাইমেট চেঞ্জ এই ডেডলাইন দিয়েছে। গোলান জানিয়েছেন, ছাদ থেকে চিৎকার করে সবাইকে ডেডলাইন জানাতেই তারা ক্লাইমেট ক্লক বানিয়েছেন। বয়েডের মতে, বর্তমানে এটাই বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সংখ্যা।

জলবায়ু বিপর্যয় এড়াতে জীবাশ্ম জ্বালানী উত্তোলন বন্ধ ও পরিবেশ বান্ধব অবকাঠামো তৈরি করতে হবে। নয়তো ভয়াবহ সময়ের সম্মুখীন হবে পৃথিবীবাসী।

ফাস্ট কোম্পানি, ম্যাশেবল ও নিউইয়র্কটাইমস অবলম্বনে এজেড/ সেপ্টেম্বর ২৩/২০২০/১৩

আরও পড়ুন – 

কার্বন নিঃসরণ কমাতে বিল গেটসের বিনিয়োগ

ক্রেতাদেরও পরিবেশ বাঁচাতে বলছে অ্যামাজন

সোলার পাওয়ারে কমছে কয়লার দাপট

টুইটারে শক্ত জবাব গ্রেটা থুনবার্গের

*

*

আরও পড়ুন