Samsung IM Campaign_Oct’20

টাচলেসে যাচ্ছে বার্গার কিং, নতুন ডিজাইনে আসছে রেস্টুরেন্ট

বার্গার কিংয়ের নতুন ডিজাইনের রেস্টুরেন্ট। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নতুন এক ধরনের ডিজাইনে রেস্টুরেন্ট আনার কথা জানিয়েছে বৈশ্বিক খাবার প্রতিষ্ঠান চেইন বার্গার কিং।

বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানটি দুটি নতুন ধরনের টাচলেস প্রযুক্তির রেস্টুরেন্টের নকশা প্রকাশ করেছে।

নতুন নকশায় গ্রাহক এবং রেস্টুরেন্টের কর্মীদের মধ্যে যেমন দূরুত্ব থাকবে, তেমনি আবার কোনো কিছু স্পর্শ করা ছাড়াই গ্রাহকরা তাদের খাবার অর্ডার করতে পারবেন। এমনকি একটি বর্গাকার ডাইনিংয়ে বসে খেতেও পারবেন।

বার্গার কিং জানিয়েছে, তারা নতুন করে যে নকশা প্রকাশ করেছে তাতে বসার জায়গা কোনো একটা নির্দিষ্ট ঘরে থাকছে না। বড় পরিসরে জায়গা করে বাইরে বসার ব্যবস্থা রাখছে তারা। আর পুরো রেস্টুরেন্ট চলবে সোলার পাওয়ারে।

বার্গার কিংয়ের নতুন ডিজাইনের রেস্টুরেন্ট। ছবি : ইন্টারনেট

প্রথমদিকে যে দুটি রেস্টুরেন্ট তৈরি করা হবে সেগুলো হবে সামনের বছর। শুরু হবে ল্যাতিন আমেরিকায় বার্গার কিংয়ের প্রধান কার্যালয় ক্যারিবিয়ান ও মিয়ামিতে।

প্রতিষ্ঠানটির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা জোস কবজা বলেন, গত মার্চে আমাদের নিজেদের ডিজাইনাররা নতুন রেস্টুরেন্টের ডিজাইন তৈরি করেন যে বার্গার কিং কেমন হতে পারে।

এক্ষেত্রে আমরা সবসময় নজরে রেখেছি আমাদের গ্রাহক বা অতিথিদের বদলে যাওয়া আচরণকে, বলেন জোস।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গ্রাহকদের আচরণে অনেক পরিবর্তন এসেছে রেস্টুরেন্ট নিয়ে। এজন্য প্রতিষ্ঠানটি তাদের লোকেশনেও স্থায়ীভাবে পরিবর্তন আনতে কাজ করছে।

আন্তর্জাতিক চেইন রেস্টুরেন্ট নিয়ে কাজ করা এনপিডি গ্রুপের তথ্য অনুযায়ী, গাড়ি নিয়ে দূরে কোথাও গিয়ে খাবার খাওয়ার পরিমাণ গত মার্চ থেকে ২৬ শতাংশ বেড়েছে।

রেস্টুরেন্ট ডিজাইনের ক্ষেত্রে সেই দিকটিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে বার্গার কিং। তারা সেজন্য বড় পরিসরে, শহরের কিছুটা দূরে রেস্টুরেন্ট তৈরি করবে। যেখানে গাড়ি পার্কিং করার জন্য থাকবে জায়গা। খোলা আকাশের নিচে বসার ব্যবস্থা, এমনকি ডাইনিং স্পেসও থাকবে।

চালকরা তাদের গাড়ি পার্ক করতে পারবেন সোলার প্যানেলের নিচে।  এরপর যখন তারা কোনো খাবর অর্ডার করতে চান সেটি তাদের মোবাইল অ্যাপ থেকেই করতে পারবেন। সেজন্য রেস্টুরেন্টের কোনো মেন্যু কার্ড বা স্ক্রিনে স্পর্শ করতে হবে না।

এমনকি কেউ যখন রেস্টুরেন্টে প্রবেশ করবেন তার নোটিফিকেশন স্বয়ংক্রিয়ভাবে রেস্টুরেন্টের কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছে যাবে। অর্ডার করার পর তা প্রসেস হলে সেই নোটিফিকেশনও দেখতে পারবেন মোবাইল ফোনে এবং সেখানে থাকা স্ক্রিনে।

সেখানে কিচেন বা রান্না ঘর থাকছে দোতলায়। অর্ডার হলে তা স্বাস্থ্য বিধি মেনেই পৌঁছে যাবে গ্রাহকদের কাছে।

ইন্টারনেট অবলম্বনে ইএইচ/সেপ্টে০৪/২০২০/১২৪০

আরও পড়ুন –

ফুডপান্ডায় বার্গার কিংয়ের খাবার

*

*

আরও পড়ুন