Samsung IM Campaign_Oct’20

'২০১৭ সালে রোহিঙ্গা নিধনে ফেইসবুক উষ্কানি দিয়েছে'

mayanmar_Rohinga-Techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ২০১৭ সালে মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উপর নিপীড়ন, গণহত্যায় ফেইসবুক সঠিক দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হয়েছে। 

রোহিঙ্গাদের অধিকার আদায়ে কাজ করা চারটি সংগঠন বলেছে, ফেইসবুকে ছড়ানো ঘৃণা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। উপরোন্তু সেগুলোকে দ্রুত ছড়িয়ে দিয়েছে সামাজিক মাধ্যমটি। যার ফলে কয়েক লাখ রোহিঙ্গাকে মিয়ানমার ছাড়তে বাধ্য করেছে দেশটির বাহিনী। 

এই অবস্থায় গতকাল রোববার ফেইসবুকের কাছে সংগঠন চারটির পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে রোহিঙ্গা শরনার্থীদের জন্য সঠিক বিচার দাবী করা হয়েছে।

চারটি সংগঠনের মধ্যে রয়েছে ভয়েস অব রোহিঙ্গা, আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস, রোহিঙ্গা ইয়ুথ ফর লিগ্যাল অ্যাকশন এবং রোহিঙ্গা ওমেন ফর জাস্টিস অ্যান্ড পিস। 

তারা ফেইসবুকের মানবাধিকার বিষয়ক ডিরেক্টর মিরান্ডা সিসন্স এবং তার সহকর্মী অ্যালেক্স ওয়ারাউফকার কাছে টেলিফোন কলে তাদের দাবীগুলো তুলে ধরেছেন। 

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তারা মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে বাংলাদেশের কক্সবাজারে আশ্রয় শিবিরে রয়েছে।তাদের বিতাড়ন এবং নির্যাতনে ফেইসবুকের ভূমিকা ছিল। 

সেখানে আরও বলা হয়েছে, এখন ফেইসবুকের উচিত হবে রোহিঙ্গাদের নায্য বিচার পাইয়ে দেওয়া এবং শিবিরে তাদের জীবনমান উন্নত করা।

ফোনকলের সময় সিসন্স বলেন, ফেইসবুকের এমন সব তথ্য যেন তারা আন্তর্জাতিক আদালতের সঙ্গে শেয়ার করেন। কেননা তাদের দাবি ফেইসবুক এমন ইন্ধন দেয়নি। 

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ফেইসবুক মিয়ানমারের ঘটনাকে অন্য ঘটনার মতো করে নয় বরং গুরুত্ব দিয়ে দেখে নিরপেক্ষ একটি তদন্ত করার ব্যবস্থা করেছে।

ইউনাইটেড ন্যাশনস রিফিউজি এজেন্সির হিসাবে ২০১৭ সালের ওই গণহত্যার সময় বাংলাদেশে ৮ লাখ ৬০ হাজার রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে। 

ইন্টারনেট অবলম্বনে ইএইচ/আগস্ট ২৪/ ২০২০/১৯২৯০

*

*

আরও পড়ুন