থ্রিডি প্রিন্টিং ও ডিভাইস ইনোভেশনে দেশে প্রযুক্তিকেন্দ্র হচ্ছে

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : থ্রিডি প্রিন্টিং, ডিভাইস ডিজাইন ও টেকনোলজি  ইনোভেশনে প্রযুক্তিকেন্দ্র স্থাপন করতে যাচ্ছে সরকার।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এক্সপোর্ট কমপেটিটিভনেস ফর জবস (ইসিফোরজে) প্রকল্পের আওতায় এই কেন্দ্র স্থাপনে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে ইতোমধ্যে প্রায় ৫ একর জমি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিক মানের অত্যাধুনিক এই প্রযুক্তিগত নকশা ও প্রযুক্তিকেন্দ্র (ডিটিসি) থ্রিডি প্রিন্টিং, ডিজাইন সেন্টার, ডিভাইস ও টেকনোলজি ইনোভেশন ছাড়াও ইন্ডাস্ট্রিয়াল অটোমেশন সেন্টার, ইনকিউবেশন সেন্টার, আইসিটি এবং মোবাইল টেকনোলজি নিয়ে কাজ করবে।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এই কেন্দ্র স্থাপনে জমি লিজের চুক্তি করে ইসিফোরজে।

ভাচুর্য়াল এ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। 

টিপু মুনশি বলেন, এ প্রকল্প দেশের রপ্তানি বাণিজ্যে বৈচিত্র আনতে সহায়ক হবে। কেন্দ্রটি নতুন নতুন কারিগরি প্রযুক্তি সংযোজন, আন্তর্জাতিক বাজারের তথ্য সরবরাহ, বৈশ্বিক বাজারের প্রতিযোগিতার জন্য প্রস্তুতি, পণ্যের মান উন্নয়ন, ব্যান্ডিং ও বিপণনসহ সামগ্রিক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করবে। 

সালমান এফ রহমান বলেন, আইটি খাতে অনেক অগ্রগতি হয়েছে। হাইটেক একটি বড় খাত। এটি পণ্য বহুমুখীকরণে অনেক সহায়ক হবে।

অনুষ্ঠানের দেশে হাইটেক পার্ক স্থাপন ও কার্যক্রম নিয়ে এক উপস্থাপনা দেন জুনাইদ আহমেদ পলক।

পলক জানান, বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে গত ৮ বছরে ৪৯৮ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে সরকার। এর বাইরে বেসরকারি খাত হতে বিনিয়োগ হয়েছে ৩২৭ কোটি টাকা। বেসরকারি খাতের এই বিনিয়োগ  ২০১৬ সাল হতে ২০১৯ সাল পর্যন্ত সময়ে হয়েছে। ২০২৩ সালের মধ্যে ২৩৯২ কোটি টাকা বিনিয়োগের লক্ষ্য রয়েছে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের।

হাইটেক সিটিতে ১০ বছর পর্যন্ত আইটি-আইটিএস সেক্টরে কর অবকাশ রয়েছে, রপ্তানিতে নগদ প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে উল্লেখ করে পলক জানান,  ২০১৬ সাল হতে আয় শুরু করেছে বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি। ইতোমধ্যে আয় হয়েছে ৫০ কোটি টাকা।

এতে ১৩ হাজার ৬৬ জনের কর্মসংস্থান হয়েছে। ২০২৩ সালের মধ্যে ৫০ হাজার কর্মসংস্থানের লক্ষ্য রয়েছে বলে উল্লেখ করেন প্রতিমন্ত্রী।

বর্তমানে ১১০টি কোম্পানি বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটিতে কার্যক্রম চালাচ্ছে। 

বাণিজ্য সচিব ড. মো. জাফর উদ্দিনের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বেজার নির্বাহী চেয়্যারম্যান পবন চৌধুরী, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, ইসিফোরজে প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. ওবায়দুল আজম। 

এডি/২০২০/জুলাই২১/১৬৩০

আরও পড়ুন –

করোনা মোকাবেলায় অবদান রাখছে থ্রিডি প্রিন্টার প্রযুক্তি 

থ্রিডি প্রিন্টারে ভেসে এলো মমির কণ্ঠ 

থ্রিডি প্রিন্টেড বায়ো রিঅ্যাক্টরে ফিরবে হারানো অঙ্গ

*

*

আরও পড়ুন