Samsung IM Campaign_Oct’20

‘মোবাইল সেবায় বাড়তি শুল্কে সরকারের ক্ষতি বেশি’

mobile-phone-call-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর  : মোবাইল সেবায় শুল্ক বাড়ানোয় দীর্ঘমেয়াদে সরকারের ক্ষতিই বেশি হবে বলে বলছে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো।

বাড়তি খরচের চাপে ব্যবহার কমে সরকারের রাজস্বে এই প্রভাব পড়বে বলে তারা মনে করছেন।

মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল সম্মেলনে এমন মতামত জানান অপারেটরগুলোর শীর্ষ কর্মকর্তারা।

প্রস্তাবিত বাজেটে টেলিযোগাযোগ খাতের প্রভাব নিয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে ওই সংবাদ সম্মেলন অয়োজন করেছিল মোবাইল অপারেটরদের সংগঠন এমটব।

সংবাদ সম্মেলনে ছিলেন এমটব সেক্রেটারি জেনারেল ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এস এম ফরহাদ (অবঃ), রবি আজিয়াটার চিফ কর্পোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অফিসার সাহেদ আলম, গ্রামীণফোনের হেড অব পাবলিক অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স হোসেন সাদাত এবং বাংলালিংকের চিফ কর্পোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অফিসার তাইমুর রহমান।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এস এম ফরহাদ (অবঃ) বলছেন, দেশের অর্থনীতিতে মোবাইল টেলিযোগাযোগ খাতের উল্লেখযোগ্য অবদান থাকা সত্ত্বেও সরকার নিয়মিতভাবে আরও বেশি বেশি করে কর আরোপের মাধ্যমে এই খাতকে দুর্বল করে তুলছে। এই নতুন করে কর বৃদ্ধি দরিদ্র মানুষের ওপরে অসহনীয় বোঝা হয়ে পড়বে এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ দৃষ্টিভঙ্গির জন্য নেতিবাচক। যা করোনা ভাইরাস সঙ্কটের কারণে আরও ত্বরান্বিত হবে। মোবাইল শিল্প খাতটি আরও ক্ষতিগ্রস্থ হবে ও দুর্বল হবে।

‘অতিরিক্ত করের বোঝা শেষ পর্যন্ত ব্যবহারকারীদের উপরেই পড়ে। দেশের এখনও মোট গ্রাহকের ৬০ থেকে ৬৫ শতাংশ ফিচার ফোন ব্যবহার করে, তারা কথা বলা বা এসএমএস করে থাকে। এসব গ্রাহক ব্যবহার কমিয়ে দিলে রাজস্ব কমবে এবং সরকার ক্ষতিগ্রস্ত হবে’ বলছিলেন তিনি।

বাড়তি শুল্ক প্রত্যাহারের আহবান জানিয়ে সাহেদ আলম বলেন, সম্পূরক শুল্ক বাড়িয়ে সরকার ৪০০ কোটি টাকার মতো পাবে কিন্তু সার্বিক দিক বিবেচনায় এর প্রভাবে অনেক খাতেই রাজস্ব হারাবে।

‘শর্ট টাইম লাভের আশায় বড় ধরনের অর্থনৈতিক সম্ভাবনা হারাবে। মহামারীর সময়ে এমন সিদ্ধান্ত বোধগম্য হচ্ছে না’ বলছিলেন তিনি।

উদাহরণ দিতে গিয়ে গত অর্থবছরের শুল্ক বৃদ্ধির প্রভাব তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ওই বছর ডিসেম্বর পর্যন্ত রেভিনিউয়ে নরমাল যে গ্রোথ তা ঠিক ছিল, ডেটা ব্যবহার বেড়েছে তবে ভয়েস বাড়েনি। শুল্ক বৃদ্ধির কারণে গ্রোথ আশানুরুপ হয়নি। ফলে অপারেটরেরই লক্ষ্য অর্জন হয়নি। 

সংবাদ সম্মেলনে হোসেন সাদাত এবং তাইমুর রহমান এমন শুল্ক বৃদ্ধিকে দু:খজনক হিসেবে উল্লেখ করেন।

এডি/২০২০/জুন১৬/১৬২০

*

*

আরও পড়ুন