প্রাপ্তির বদলে অপ্রত্যাশিত আরোপ, হতাশ মোবাইল ফোন অপারেটররা

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নতুন বাজেটে দাবি-দাওয়ার কিছু তো পায়ইনি উল্টো গ্রাহক সেবায় বাড়তি করের প্রস্তাবে বেশ হতাশ মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো।

এবারের বাজেটে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর অন্যতম দাবি ছিল ২ শতাংশ ন্যূনতম আয়কর প্রত্যাহার। সেটি নিয়ে কোনো প্রস্তাব নেই বাজেটে। এছাড়া কর্পোরেট কর, সিম ট্যাক্সসহ দীর্ঘদিনের বিভিন্ন দাবির ক্ষেত্রে কোথাও কোনো প্রাপ্তি নেই তাদের।

রবির চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অফিসার সাহেদ আলম টেকশহরডটকমকে বলছেন, ‘টেলিযোগাযোগ খাতের ওপর আরোপিত ২ শতাংশ ন্যূনতম আয়কর প্রস্তাবিত বাজেটে প্রত্যাহার না হওয়াটা অত্যন্ত দুঃখজনক। বিশেষ করে করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে দেশের মানুষকে ডিজিটাল সেবা প্রদান এবং ডিজিটাল ইকোসিস্টেম তৈরিতে অপারেটরদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার পরেও ২ শতাংশ ন্যূনতম করের বোঝা প্রত্যাহার না হওয়াটা আমাদের জন্য হতাশাব্যঞ্জক।

বিষয়টি পুর্নবিবেচনার দাবি জানিয়েছেন তিনি। 

এদিকে সব ধরনের মোবাইল সেবা ব্যবহারে সম্পূরক শুল্ক (এসডি) আরও ৫ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব কে অত্যন্ত  দুঃখজনক উল্লেখ করেন রবির এই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, উচ্চ করভারে জর্জরিত মোবাইল সেবার ওপর নতুন করে  ৫ শতাংশ এসডি বাড়ানো গ্রাহকদের দুর্দশা আরও বাড়াবে। করোনা মহামারির বর্তমান পরিস্থিতিতে সাধারণ জনগণের একটি বড় অংশ এখন ইন্টারনেটভিত্তিক ডিজিটাল যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারে নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন, এসডি বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত এ ধারাতেও বড় ধরনের নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

গ্রামীণফোনের হেড অব পাবলিক অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স হোসেন সাদাত টেকশহরডটকমকে জানান, সম্পূরক শুল্ক বাড়ানোয় কভিড-১৯ ও পরবর্তী সময়ে প্রয়োজনীয় মোবাইল সেবা ব্যবহারে গ্রাহকদের অতিরিক্ত খরচ বহন করতে হবে। এ ধরনের সিদ্ধান্ত ডিজিটাল বাংলাদেশের সম্ভাবনার পথে অন্তরায়।

গ্রাহকদের স্বার্থ রক্ষায় এই সিদ্ধান্ত পুর্নবিবেচনার অনুরোধ জানান তিনি।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর সংগঠন এমটব মহাসচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এস এম ফরহাদ (অবঃ) টেকশহরডটকমকে বলেন, নিয়মিতভাবে করের বোঝা চাপিয়ে সরকার মোবাইল খাতকে ক্রমেই দুর্বল করে তুলছে। দেশের জিডিপিতে মোবাইল খাতের বর্তমান অবদান ৭ শতাংশ হতে যে দুই অংকের ঘরে যাওয়ার কথা বলা হয়েছিল তা আর অর্জিত নাও হতে পারে। এ বছর সরকার মোবাইলের মাধ্যমে প্রাপ্ত সকল রকম সেবার ক্ষেত্রে সম্পূরক শুল্ক ১০ শতাংশ হতে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করেছে যা অত্যন্ত হতাশাজনক। এর ফলে গ্রাহকদের উপর বাড়তি চাপ পড়বে।

মোবাইল খাতের পক্ষ থেকে অলাভজনক কোম্পানির জন্য বর্তমান ২ শতাংশ ন্যুনতম কর বিলোপ ও করপোরেট ট্যাক্স কমানোর জন্য বারবার  অনুরোধ করলেও তা বিবেচনা হয়নি। এটি চরম হতাশাজনক বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এডি/২০২০/২১০০/জুন১১

*

*

আরও পড়ুন