প্রথমবার নভোচারীসহ উড়লো স্পেসএক্সের রকেট

নাসার নভোচারীসহ মহাকাশে ছুটছে স্পেসএক্সের রকেট। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দুই দশকের সাধনার পর নভোচারীসহ প্রথমবার মহাকাশে রকেট পাঠিয়েছেন ইলন মাস্কের কোম্পানি স্পেসএক্স।

প্রথমবারের মতো অটোমেটেড মহাকাশ যান ক্রু ড্রাগনে করে ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনের পথে যাত্রা করেছেন নাসার নভোচারী ডাউ হার্লে ও বব বেনকেন। উড্ডয়নের ১২ মিনিট পর ক্রু ড্রাগন ক্যাপসুল থেকে আলাদা হয়ে যায় স্পেসএক্স ফ্যালকন-৯। সব ঠিক থাকলে যুক্তরাষ্ট্রের সময় অনুযায়ী রোববার সকালে ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনের (আইএসএস) সঙ্গে ক্রু ড্রাগন সংযুক্ত হবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে। তার আগে সব মিলিয়ে পৃথিবীর কক্ষপথে দুই নভোচারীকে ১৯ ঘণ্টা সময় পার করতে হবে।

দুই নভোচারী নিরাপদে পৃথিবীতে ফিরে আসলে তবেই মিশনটি সফল হবে। তারা কবে পৃথিবীতে ফিরবেন সে বিষয়ে নাসা এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। আগামী ৬ থেকে ১৬ সপ্তাহ তাদেরকে আইএসএসের ভেতর অন্যান্য নভোচারীদের সঙ্গে থাকতে হবে। পরীক্ষামূলক এই মিশন থেকে তথ্য সংগ্রহ করাই নাসার প্রধান উদ্দেশ্য। 

পৃথিবীতে ফেরার আগ মুহূর্তে তাদেরকে ক্রু ড্রাগন ছেড়ে আটলান্টিক মহাসাগরে নামতে হবে প্যারাসুটে করে। সেখানে স্পেসএক্সের রিকভারি বোট গিয়ে তাদেরকে উদ্ধার করবে।

প্রক্রিয়াটি জটিল হওয়ায় নাসার অ্যাডমিনিস্ট্রেটর জিম ব্রাইডেস্টাইন জানিয়েছেন, দুই নভোচারী পৃথিবীতে নিরাপদে না ফেরা পর্যন্ত তিনি কোনো সাফল্য উদযাপন করবেন না।

যুক্তরাষ্ট্র গত প্রায় এক দশকে মহাকাশে কোনো নভোচারী পাঠায়নি। বেসরকারিভাবে তৈরি রকেটে নাসা প্রথমবারের মতো নভোচারী পাঠানোতে মিশনটি নিয়ে একটু বেশিই উত্তেজনা ছিলো সবার মধ্যে। তবে আগামীতে নিয়মিতভাবেই মহাকাশ যাত্রা পরিচালনা করবে নাসা ও স্পেসএক্স।

পর্যটকদের জন্য মহাকাশ যাত্রা নিরাপদ প্রমাণ করতে আগামী ৩০ আগস্ট আরও একটি ক্রু ড্রাগন ফ্লাইট পরিচালনা করবে তারা। এই মিশনে অংশ নেবেন ৪ নভোচারী।

দ্য ভার্জ অবলম্বনে এজেড/ মে ৩১/২০২০/১১৪৫

*

*

আরও পড়ুন