মানসিক চাপ কমাবে যে ৭ অ্যাপ

চাপ সামলানোর সবচেয়ে ভালো উপায় মেডিটেশন। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাস আতঙ্কে মানসিক চাপ কমবেশি বেড়ে গেছে সবারই। এছাড়া দৈনন্দিন কাজ, পরীক্ষা, অসুস্থতা ইত্যাদি কারনেও মনের উপর চাপ পড়ে অনেক। কর্মক্ষেত্রের চাপতো আছেই। এই চাপ সামলাতে যেসব অ্যাপ কাজে লাগতে পারে সেগুলোর খোঁজ দেওয়া হলো।

হেডস্পেস

এটি একটি মেডিটেশনের অ্যাপ। যে কেউ অ্যাপটি ব্যবহার করতে পারবে।  ঘুম ও ব্যায়াম সম্পর্কে এখানে বিভিন্ন পরামর্শ পাওয়া যাবে। উদ্বেগ ও মানসিক চাপ কমাতে কীভাবে মেডিটেশন করতে হবে তা সে দিক নির্দেশনাও থাকবে অ্যাপে।

অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি নামানো যাবে এই ঠিকানা থেকে। প্লে স্টোরে পাওয়া যাবে এই ঠিকানায় গেলে।

স্যানভেলো

নেতিবাচক চিন্তা এড়াতে সাহায্য করে অ্যাপটি। মুড ট্র্যাকিং, ব্রিদিং এক্সারসাইজ ও মেডিটেশন, সাপোর্ট গ্রুপ ও দীর্ঘ মেয়াদি লক্ষ্য নির্ধারণের ফিচার রয়েছেন এতে।

অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি নামানো যাবে এই ঠিকানা থেকে। প্লে স্টোরে পাওয়া যাবে এই ঠিকানায় গেলে।

হ্যাপিফাই

অ্যাপটিতে গেইম খেলে ও বিভিন্ন অ্যাক্টিভিটির মাধ্যমে নিজেকে নেতিবাচক চিন্তাভাবনা থেকে দূরে রাখা যাবে। এর বিজ্ঞান সম্মত অ্যাক্টিভিটিগুলো মানসিক চাপ কাটিয়ে উঠতে বেশ সহায়ক। অ্যাপটির নির্মাতাদের দাবি, ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৮৬ শতাংশ জানিয়েছেন, ২ মাস আগের চেয়ে তারা ভালো বোধ করছেন।

অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি নামানো যাবে এই ঠিকানা থেকে। প্লে স্টোরে পাওয়া যাবে এই ঠিকানায় গেলে।

ব্রিদ টু রিল্যাক্স

মানসিক চাপের কারণে কী কী ক্ষতি হয় তা বিস্তারিত বর্ণনা করা আছে অ্যাপটিতে। ব্রিদিং এক্সারসাইজ করে কিভাবে মনের উপর চাপ কমাতে হবে সে দিক নির্দেশনাও আছে এতে।

 চাইলে অ্যাপল ওয়াচের সঙ্গে অ্যাপটি কানেক্ট করা যাবে। এতে হৃদস্পন্দনের মাত্রা পরিমাপ করা যাবে।

অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি নামানো যাবে এই ঠিকানা থেকে। প্লে স্টোরে পাওয়া যাবে এই ঠিকানায় গেলে।

টকস্পেস

অ্যাপটির মাধ্যমে লাইসেন্সধারী থেরাপিস্টদের সঙ্গে কথা বলা যাবে। সমস্যা অনুযায়ী থেরাপিস্ট বাছাইয়ে জবাব দিতে হবে কিছু প্রশ্নাবলীর। তবে থেরাপিস্টদের সঙ্গে ফ্রিতে কথা বলার সুযোগ নেই। পেইমেন্ট কিসের মাধ্যমে করবেন তা জানিয়ে তারপর থেরাপিস্টকে ম্যাসেজ, ভয়েস কল ও ভিডিও কল করা যাবে। যারা সব সময় ভ্রমণ করেন এবং থেরাপিস্টদের চেম্বারে যাওয়ার সুযোগ পান না তারা এটি ব্যবহার করতে পারেন।

অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি নামানো যাবে এই ঠিকানা থেকে। প্লে স্টোরে পাওয়া যাবে এই ঠিকানায় গেলে।

কাল্ম

২০১৮ সালে অ্যাপলের সেরা অ্যাপের অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে অ্যাপটি। এতে আছে নানা ধরণের ভিডিও। এই ভিডিও দেখে স্ট্রেচিং ও মেডিটেশনের গাইডলাইন পাওয়া যাবে। এছাড়াও, অ্যাপের স্লিপ স্টোরিজ ফিচার ব্যবহার করে ঘুম কম হওয়ার সমস্যা দূর করা যাবে।

অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি নামানো যাবে এই ঠিকানা থেকে। প্লে স্টোরে পাওয়া যাবে এই ঠিকানায় গেলে।

ওয়ারি ওয়াচ

উদ্বেগের প্যাটার্ন দেখা যাবে অ্যাপটিতে। কী কী বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া উচিত তা জানতে সাহায্য করবে এটি।

এখানে রেকর্ড, রিফ্লেক্ট ও রিমাইন্ডার নামের তিনটি ধাপ আছে। প্রথম ধাপে কী বিষয় নিয়ে ব্যবহারকারী চিন্তিত তা লিখতে হয়। পরে একই লেখা দেখার জন্য রিমাইন্ডার সেট করতে হয়। রিমাইন্ডার আসলে লেখাটির সঙ্গে বর্তমান পরিস্থিতি মিলিয়ে নিতে হবে। ফলে মানসিক চাপ আগের চেয়ে কমেছে না বেড়েছে তা ব্যবহারকারী সহজেই বুঝতে পারেন।

অ্যাপটি শুধু মাত্র অ্যাপল ব্যবহারকারীরা নামাতে পারবেন। অ্যাপ স্টোরে এই ঠিকানায় গেলে অ্যাপটি পাওয়া যাবে।

ইন্টারনেট অবলম্বনে এজেড/মার্চ ২৪/২০২০/১৩১৭

*

*

আরও পড়ুন