কার্বন নিঃসরণ বাড়াচ্ছে অনলাইন শপিং?

অ্যামাজনের ডেলিভারি বক্স। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর: আমাজনের কিছু আনবক্সিং ভিডিও দেখলে মনে হবে বাক্সে বাক্সে বন্দি বাক্সের মধ্য থেকে বের হচ্ছে এক একটি মোবাইল ফোন, কম্পিউটার। মনে হয় যেন একটি মোবাইল ফোন গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দিতেই কাটতে হয়েছে এক একটি গাছ।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে বর্তমান অনলাইন শপিংয়ের ধরনে কার্বন নিঃসরণ তো কমাচ্ছেই না বরং বাড়াতে সহায়তা করছে।

রডবাউন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের দ্বারা পরিচালিত একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে দোকানে গিয়ে জিনিসপত্র কিনলে যে পরিমাণ কার্বন ফুটপ্রিন্ট রাখা হয়, অনলাইন থেকে কিনলে ফুটপ্রিন্ট হয় তার থেকে অনেক বেশি। প্যাকেজিংয়ে প্রচুর কার্ডবোর্ডের ব্যবহার এর প্রধান কারণ এবং পরোক্ষভাবে এটি জলবায়ু পরিবর্তনে ভূমিকা রাখছে।

তবে সব ধরনের অনলাইন কেনাকাটার প্রভাব একই রকম নয়। ফিজিক্যাল অস্তিত্ব আছে এমন দোকানের ওয়েবসাইট থেকে কেনা আর পুরোপুরি অনলাইন ওয়েবসাইট থেকে কেনার ক্ষেত্রে কার্বন নিঃসরণে প্রভাবের তারতম্য রয়েছে।

এই ধরুন পাড়ার একটি সুপার শপের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনি অর্ডার দিলে সেটির প্যাকেজিং হবে একরকম, আর যদি সম্পূর্ণ অনলাইনভিত্তিক ওয়েবসাইট (যেমন আমাজন) থেকে অর্ডার দেন তাহলে প্যাকেজিং হবে আরেকরকম।

গবেষকরা দেখেছেন নিজে দোকানে গিয়ে কেনার তুলনায় ওয়েবসাইটে অর্ডার করে কেনাকাটার ৬৩ শতাংশ ক্ষেত্রেই কার্বন ফুটপ্রিন্ট বেশি থাকে। আমাজনের মতো পুরোপুরি অনলাইনভিত্তিক কেনাকাটার ক্ষেত্রে এই হার ৮১ শতাংশ।

এই অবস্থার কারণ হিসেবে গবেষক শাহমোহাম্মাদি বলছেন সাধারণত যখন বেশি পরিমাণ জিনিস কিনতে হয় তখন মানুষ নিজেই দোকানে চলে যান। অল্প কিছু নেকার জন্য দোকানে না গিয়ে বাসায় থেকে অর্ডার দেন।

ভালো খবর হচ্ছে আমাজন এই সমস্যা সমাধানে কাজ শুরু করেছে। তারা এমন কিছু ডেলিভারি রোবট তৈরি করছে যেখানে কার্ডবোর্ডের ব্যবহারের প্রয়োজন আর পড়বে না।

সূত্র : ইন্টারনেট, এমআর/মার্চ ২১/২০২০/১২৪২

*

*