Header Top

বাসা থেকে কাজ করার চ্যালেঞ্জ, মোকাবিলার উপায়

বাসা থেকে কাজ। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিশ্বজুড়ে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের কারণে অনেক প্রতিষ্ঠান তার কর্মীদের বাসা থেকে কাজের অনুমতি দিয়েছে।

আমরা জানি ফ্রিল্যান্সার, ডেভেলপার, ক্ষেত্র বিশেষে সাংবাদিকতা আগে থেকেই রিমোট ওয়ার্ক হিসেবে পরিচিত। শুধু পরিচিতই নয়, জনপ্রিয়ও।

কিন্তু এমন অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যারা এই মহামারির সময় প্রথমবারের মতো তাদের কর্মীদের বাসা থেকে কাজের অনুমতি দিয়েছে। এক্ষেত্রে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। আবার অনেকে আছেন যারা আগেও বিভিন্ন অবস্থায় বাসা থেকে অফিসের কাজ করেছেন। দীর্ঘদিন কাজ না করায় তারাও অসুবিধায় পড়েন।

যুক্তরাজ্যের ওয়ারইউক বিজনেস স্কুলের হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্টের প্রফেসর শায়নাজ ফিরফিরে বলেন, প্রতিষ্ঠানগুলো যখন তাদের রিমোর্ট ওয়ার্কিং নীতিমালা বাস্তবায়ন করতে চায় তখন তাকে অবশ্যই কর্মীদের সে ব্যাপারে প্রস্তুত করতে হবে।

তিনি বলেন, সঠিক কাজ পেতে কর্মীদের জন্য একটা ভালো নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা গড়ে তোলা সবার আগে প্রয়োজন।

সম্প্রতি দূর থেকে কাজ করেন এমন ৩০০০ ব্যক্তির উপর এক জরিপ চালিয়েছে গিটল্যাব। তারা বলছে, এর মধ্যে ৯০ শতাংশ জানিয়েছে তারা বাসা থেকে কাজ করার ক্ষেত্রে বেশি উৎসাহ বোধ করেন। এমনকি তারা অন্যদের বাসা থেকে কাজ করার উপর জোরারোপ করেন।

অন্য ৮৪ শতাংশ বাসা থেকে তাদের সব কাজ সঠিকভাবে শেষ করতে পেরেছেন। এমনকি তাদের ব্যবস্থাপককে এটা জানাতে পেরেছেন যে, তারা এমন দূর থেকে কাজ করার মতো একটা দল হতে পারেন।

তবে তারা এটাও উল্লেখ করেছেন যে, বাসা থেকে কাজ করার ক্ষেত্রে কিছু টেলিকমিউটিং সম্পর্কিত সমস্যাও রয়েছে।

জরিপ চালাতে গিয়ে প্রায় অর্ধেক বা ৪৭ শতাংশ মনে করেছেন, বাসা থেকে কাজ করা অনেকটাই বিরক্তিকর মনে হয়েছে তাদের কাছে। এক্ষেত্রে অনেক ধরনের বাধার কথা উঠে এসেছে।

অনেক সময় কোনো কুরিয়ারের লোক এসে দরজা নক করে পাশের বাড়ির পার্সেল দিয়ে যায়। ড্রাইভার এসে বাধা দেয়, তার ওপর বাড়ির লোকজন তো মনেই করেন তারা বাড়িতে আছে গল্পগুজব করা যাক। এমন অনেক সমস্যার কথা উঠে এসেছে।

এসব সমস্যা সমাধানের জন্য আপনি নির্দিষ্ট স্থানে কাজে বসে কানে হেডফোন লাগিয়ে দিন। তাহলে অন্যদিকে আপনার মনযোগ যাবে না।

বাসা থেকে কাজের ক্ষেত্রে শুধু টানা যে কাজই হয় এমন নয়। এর মধ্যেই আপনার খাওয়া, গোসলসহ টুকটাক কাজ করতেই হয়। এমন ক্ষেত্রে আপনার প্রায়োরিটি দেওয়া দরকার অফিসের নির্দেশনার প্রতি। তার জন্য আপনার প্রয়োজন একটি রুটিন তৈরি করা। যে সময়টা অফিসের আপনাকে সবচেয়ে প্রয়োজন তখন কোনো কাজ রাখবেন না।

বাসা থেকে অফিস করার সময় আপনাকে ম্যানেজমেন্টের কাছে জবাবদিহি করতে হয়। এজন্য আপনাকে অনেক সময় ভিডিও কলে যুক্ত হবার প্রয়োজন পড়ে। এমন ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনি একটি ভালো ও সুবিধাজনক স্থান নির্বাচন করুন বাসায়। যেখানে ভিডিও কলে কোনো অসুবিধায় পড়বেন না।

জরিপে প্রতি তিন জনে একজন বা ৩৫ শতাংশ তাদের সহকর্মীদের সঙ্গে কাজের সমন্বয় করার ক্ষেত্রে চিন্তিত। অবশ্য এ সমস্যা সমাধানে মাইক্রোসফটসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের টুল ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। যেখানে রিয়েলটাইমে সবাই সম্মিলিতভাবে সমস্যাগুলোর সমাধান করতে পারেন। 

অন্যদিকে আরও ৩৫ শতাংশ বলেছেন, বাসায় বসে কাজ করার ক্ষেত্রে তারা খুবই একাকিত্ব অনুভব করেন। যা একটা সময় বিরক্তির জন্ম দেয়। এজন্য কাজের ফাঁকে ফাঁকে বিনোদনের ব্যভস্থা রাখা যেতে পারে বলেও পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। 

অবশ্য চলতি সময়ে যে সমস্যায় মুখোমুখি হয়েছে বিশ্ব। সেখানে এমন অনেক কাজকে ইতিবাচক হিসেবে নেবার মানসিকতা তৈরির কথা বলেছেন বিশেষজ্ঞরা। তাহলে কাজকে কাজ মনে না হয়ে বরং জীবনের অন্যতম একটা অংশ হবে এবং সেটি উপভোগ্য হবে বাসা থেকেও বলে তাদের মত। 

সূত্র : ইন্টারনেট, ইএইচ/মার্চ ২০/২০২০/ ১১২২

*

*

আরও পড়ুন