Techno Header Top and Before feature image

স্টার্টআপের জন্য দুঃসংবাদ নিয়ে আসছে অ্যাপল

প্রতিকী ছবিতে অ্যাপল খেয়ে নিচ্ছে ছোট স্টার্টআপগুলোকে। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আইওএস ১৪ সংস্করণে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ফিচার আসছে। এর সঙ্গে জুনে ঘোষণা আসছে অ্যাপ ও ডিভাইসেরও।

ফলে তীব্র প্রতিযোগিতায় পড়তে হবে ওয়ালপেপার, ফিটনেস ও হারানো জিনিস খুঁজে দেওয়ার স্টার্টআপগুলোকে।

অ্যাপলের নতুন অ্যাপ, ফিচার ও ডিভাইসগুলোর পরিচয় নিচে দেওয়া হল।

ফিটনেস কোডনেম : সিমোর

ওয়ার্কিংআউট গাইড অ্যাপ হিসেবে আইওএস, ওয়াচ ওএস ও অ্যাপল টিভিতে কাজ করবে এটি। অ্যাপটি দিয়ে বিভিন্ন ধরণের ব্যায়ামের নির্দেশনামূলক ভিডিও ক্লিপ ডাউনলোড করা যাবে। স্ট্রেচিং, সাইক্লিং, রোয়িং, ড্যান্স ও ইয়োগা শেখা যাবে। অ্যাপল ওয়াচের মাধ্যমে ব্যায়ামের ক্ষেত্রে কতোটা উন্নতি হয়েছে তাও ট্র্যাক করা যাবে।

অ্যাপলের এই অ্যাপের কারণে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে ১১ দশমিক ৫ মিলিয়ন ডলারের স্টার্টআপ ফিউচার। তাদের সেবা নিতে হলে প্রতিমাসে ১৫০ ডলার খরচ করতে হয়। এর বিনিময়ে গ্রাহকের উন্নতির গ্রাফ ট্র্যাকের জন্য তারা অ্যাপল ওয়াচ দিয়ে থাকে।

এছাড়াও, সাধারণ কিছু ব্যায়ামের পদ্ধতি শেখানো সোয়েট ও সোরকিট অ্যাপও সমস্যায় পড়তে পারে।

ওয়ালপেপারের স্টোর

সংবাদ মাধ্যম নাইনটুম্যাক আইওএস ১৪ এর কিছু কোড শনাক্ত করেছে। সেখান থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে জানা গেছে, স্টিল ও লাইভ ওয়ালপেপারের জন্যও আলাদা ‘স্টোর’ আনছে অ্যাপল। স্টোরটি ফ্রি হবে কিনা তা জানা যায়নি। এতে থার্ড পার্টি অ্যাপের ওয়ালপেপারও পাওয়া যাবে। ফলে অস্তিত্ব সংকটে পড়তে পারে ভেলাম, আনস্প্লাশ, ক্লারিটি, ওয়ালি ও ডাবলুএলপিপিআরের মতো অ্যাপগুলো।

অগমেন্টেড রিয়েলিটি স্ক্যানিং- কোডনেম : গোবি

নতুন অগমেন্টেড রিয়েলিটি ফিচারটি দিয়ে ব্যবহারকারীরা জায়গা বা জিনিসের ছবি স্ক্যান করে বিভিন্ন তথ্য নিতে পারবেন। নির্দিষ্ট কিছু জায়গা যেমন অ্যাপল স্টোর ও স্টারবাকসে ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন পণ্যের দাম ও তুলনামূলক তথ্যও দেখতে পারবেন। গোবি আসলে বাজার থেকে হারিয়ে যেতে পারে অগমেন্টেড স্ক্যানিং নিয়ে কাজ করা স্টার্টআপ ব্লিপার।

এয়ার ট্যাগস- ফাইন্ড ইয়োর স্টাফস

ওয়ালেট, চাবি, গ্যাজেট ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ জিনিস খুঁজে পেতে এয়ারট্যাগস নামের একটি হার্ডওয়্যার আনছে অ্যাপল। এতে কয়েনের মতো ছোট একটি ব্যাটারি থাকবে, যা চাইলে রিমুভ করা যাবে। সব প্রয়োজনীয় জিনিসে ট্যাগ লাগানো থাকলে এয়ারট্যাগস ডিভাইস দিয়ে সেগুলো খোঁজার সময় শব্দ হবে। ফলে সহজেই সেগুলো পাওয়া যাবে। এয়ারট্যাগ বাজারে এলে সমস্যায় পড়তে পারে টাইল, চিপোলো ও অরবিট অ্যাপ।

এজেড/ মার্চ ১১/২০২০/১৭/১৭০৭

আরও পড়ুন –

স্টিভ জবস অ্যাপলকে যেভাবে শিখরে তুলেছেন

সুইস ঘড়ি বিক্রিতে অ্যাপল ওয়াচের কোপ

ভারতে অ্যাপল স্টোর খুলতে সহায়তা করবেন ট্রাম্প : কুক

*

*

আরও পড়ুন