Techno Header Top and Before feature image

ভিপিএন ও অ্যাড ব্লকিং অ্যাপ দিয়ে ডেটা চুরি

সেন্সর টাওয়ারের লোগো। ছবি : ইন্টারনেট

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অ্যাপ বিষয়ক অভ্যন্তরীণ ডেটা বিশ্লেষণকারী প্রতিষ্ঠান সেন্সর টাওয়ারের বিরুদ্ধে গোপনে ডেটা সংগ্রহের অভিযোগ উঠেছে।

প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে জনপ্রিয় কিছু ভিপিএন  ও অ্যাড ব্লকিং অ্যাপের সম্পর্ক খুঁজে পেয়েছে সংবাদ মাধ্যম বাজফিড।

বাজফিডের রিপোর্ট প্রকাশিত হলে অ্যাপল অ্যাডব্লক ফোকাস ও গুগল মোবাইল ডেটা অ্যাপ সরিয়ে দেয়। বর্তমানে গুগলও সেন্সর টাওয়ারের মালিকানাধীন অ্যাপগুলো নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে।

২০১৫ সাল থেকে সেন্সর টাওয়ার ঝুলিতে পুরেছে ২০টি অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস অ্যাপ।

তবে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ কোনোভাবেই অ্যাপগুলোতে এ তথ্য দেওয়া হয়নি। অ্যাপগুলোর সম্মিলিত ডাউনলোড সংখ্যা ৩৫ মিলিয়নের বেশি।

অ্যাপগুলো ইন্সটলের পর ব্যবহারকারীদেরকে ছোট একটি ফাইল (রুট সার্টিফিকেট) ইন্সটল করতে বলা হতো। এই ফাইলের মাধ্যমে ফোনে আদান প্রদান হওয়া সব ডেটা চলে যেত সেন্সর টাওয়ারের কাছে।

অ্যান্টি-ম্যালওয়্যার সফটওয়্যার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ম্যালওয়্যার বাইটসের গবেষক আরমান্ডো অরোজকো জানিয়েছে, অ্যাপে রুট সার্টিফিকেট সুবিধা দেওয়া মানে এর ব্যবহারকারীদেরকে নিরাপত্তা ঝুঁকির মধ্যে ফেলা। সাধারণ ব্যবহারকারীরা জানবে তারা অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করছে অথচ এটা তাদেরকে আক্রমণ করবে।

নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকায় অ্যাপল ও গুগল রুট সার্টিফিকেটে বিধি নিষেধ আরোপ করলেও সেন্সর টেওয়ারের অ্যাপগুলো সেগুলো পাশ কাটিয়ে যেতো।

এ ব্যাপারে বাজফিড নিউজকে সেন্সর টাওয়ার জানায়, ডেটা নিলেও ব্যবহারকারীদের পরিচয় তারা জানতে পারে না। বিশ্লেষণ করা যাবে এমন ডেটাই শুধু সংগ্রহ করে।

এছাড়াও, অ্যাপগুলোর মালিকানার তথ্য গোপনের বিষয়ে সেন্সর টাওয়ারের মোবাইল ইনসাইটস বিভাগের প্রধান র‍্যান্ডি নেলসন বলেন, প্রতিযোগিতামূলক কারণেই এটা তারা গোপন রেখেছিলেন। অ্যাপ ও অ্যাপের ব্যবহার বিশ্লেষণকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সম্পর্ক থাকলে তা থেকে অনেক ধরণের অর্থ বের করা সম্ভব। তাদের বেশিরভাগ অ্যাপই এখন নিষ্ক্রিয়। খুব কমই সচল আছে।

নীতিমালা লঙ্ঘনের জন্য তাদের অ্যাপগুলো আগেই প্লে স্টোর থেকে সরায় অ্যাপল।সম্প্রতি গুগল প্লে স্টোরে আসে ফ্রি অ্যান্ড আনলিমিটেড ভিপিএন, লুনা ভিপিএন, মোবাইল ডেটা ও অ্যাডব্লক ফোকাস। এর মধ্যে শুধু লুনা ভিপিএন ও অ্যাডব্লক ফোকাস অ্যাপ স্টোরে ছিলো।

এজেড/ মার্চ ১১/ ২০২০/১১৫৫

*

*

আরও পড়ুন