বিটিআরসি চেয়ারম্যান হাইকোর্টের বিচারপতির পদমর্যাদা পেলেন

বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক। ছবি : বিটিআরসি
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) চেয়ারম্যানকে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতির পদমর্যাদা দিয়েছে সরকার।

মঙ্গলবার রাষ্ট্রপতির পক্ষে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে একটি চিঠি জারি করে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

চেয়ারম্যানের সঙ্গে সঙ্গে ভাইস-চেয়ারম্যানকে সচিব এবং কমিশনারদেরকে অতিরিক্ত সচিবের পদমর্যাদা দেওয়া হয়েছে, যেটি অবিলম্বে কার্যকর করার কথা।

মো. জহুরুল হক ২০১৯ সালের ৩১ জানুয়ারি বিটিআরসির চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত হন। চেয়ারম্যান হিসেবে তার মেয়াদ আছে চলতি বছরের ডিসেম্বর পর্যন্ত। এর আগে তিনি বিটিআরসির ভাইস-চেয়ারম্যান এবং তারও আগে লিগাল কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় চিঠি অনুসারে, কেবল বর্তমান চেয়ারম্যান, ভাইস-চেয়ারম্যান এবং কমিশনাররা তাদের নিজ নিজ মেয়াদে এই পদমর্যাদা পাবেন।

পদমর্যাদা পুননির্ধারণ বিষয়ে জহুরুল হক সাংবাদিকদের বলেন, অবশ্যই এটি বিটিআরসির মর্যাদা বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

তিনি বলেন, টেলিযোগাযোগ খাতটি এখন অনেক বড় এবং বিস্তৃত হয়েছে। সরকারের আয়ের দিক থেকেও এটি বড় একটি অত্যন্ত আকর্ষণীয় জায়গা। তাছাড়া কোটি গ্রাহক এর সঙ্গে জড়িত। সব মিলে এতো বড় এবং বিস্তৃত খাত সরকারের খুব একটা নেই।

‘এক্ষেত্রে কাজ এবং পদমর্যাদার সঙ্গে সামঞ্জস্য না থাকলে সেটি খুবই অসুবিধার হয়,’ বলছিলেন জহুরুল হক।

এই নির্দেশনা আসার আগে বিটিআরসির চেয়ারম্যান সচিব, ভাইস-চেয়ারম্যান অতিরিক্ত সচিব এবং কমিশনাররা যুগ্ম সচিব পদমর্যাদা পেয়ে আসছিলেন।

বর্তমানে ভাইস-চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সরকারের অবসরপ্রাপ্ত সচিব সুব্রত রায় মৈত্র এটিও ছিল সমস্যার একটি বিষয়। সচিবের দায়িত্ব পালন শেষে তিনি অতিরিক্ত সচিব পদমর্যদার একটি পদে ছিলেন।

এর বাইরে কমিশনার হিসেবে আছেন মো. আমিনুল হাসান এবং ইঞ্জিনিয়ার মো. মহিউদ্দিন আহমেদ। তবে অন্য একটি কমিশনারের পদ খালি রয়েছে।

এর আগে ২০০১ সালে স্বাধীন কমিশন হিসেবে বিটিআরসির জন্ম হয়। তবে ২০১০ সালে আইন সংশোধন করা হলে বিটিআরসির ক্ষমতা বেশ খানিকটা কমে যায়। তখন সংস্থাটির চেয়ারম্যান, ভাইস-চেয়ারম্যান এবং কমিশনারদের পদমর্যাদাও বেশ খানিকটা কমে যায়।

এর মধ্যে অবসর প্রাপ্ত মেজর জেনারেল, সচিব এবং রাজনৈতিক শক্তিধর ব্যক্তিরা চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তারা বারবার চেষ্টা করলেও কেউই আর বিটিআরসির চেয়ারম্যান-কমিশনারদের পদমর্যদা ফিরিয়ে আনতে পারছিলেন না।

তবে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছ থেকে অডিটের মাধ্যমে হাজার কোটি টাকা আদায় সরকারের উচ্চ পর্যায়ে তার অবস্থান শক্ত করে। তার পুরস্কার-ই পেয়েছে গোটা কমিশন।

জেডএস/ইএইচ/ মার্চ ১০/ ২০২০/ ১৮০০

*

*

আরও পড়ুন