Header Top

আড়াই বছরে কমেছে ১২৪, তবুও বহাল ২৩৫ প্যাকেজ

Grameenphone-3GInternet-Packages-techshhor

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিটিআরসি বলছে, গ্রাহকদের সুবিধার জন্য প্যাকেজের সংখ্যা কমানো হয়েছে।

গত আড়াই বছরে মোবাইল ফোন অপারেটগুলোর ডেটা ও ভয়েস প্যাকেজের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণের নানা উদ্যোগ নেওয়া হলেও সেটি খুব একটা কমানো সম্ভব হয়নি।

২০১৭ সালের শেষের দিকে চারটি মোবাইল ফোন অপারেটরের মোট ৩৫৯টি প্যাকেজ ছিল। অনেক চেষ্টার পর তা শুধু ২৩৫টিতে নামানো সম্ভব হয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) বৃহস্পতিবার প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন থেকে পাওয়া গেছে এ তথ্য।

গত বছর ১২ জুন কমিশনের একটি গণশুনানিতে মোবাইল ফোন অপারেটগুলোর ইন্টারনেট ও ভয়েস কলের প্যাকেজ নিয়ে প্রশ্ন এসেছিল ভোক্তাদের কাছ থেকে। সেটির জবাবে এতদিন পর এ তথ্য প্রকাশ করা হয় বৃহস্পতিবা।

গণশুনানিতে সব মিলে এক হাজার ৩১৯টি প্রশ্ন ও মতামত আসে। এর মধ্য থেকে অনেক যাচাই বাছাই করে কিছু প্রশ্ন উপস্থাপনের সুযোগ পান গ্রাহকরা।

তবে এগুলো মধ্যে আবার গুরুত্বপূর্ণগুলো পরে উত্থাপনের কথা ছিল। আট মাস পরে হলেও বিটিআরসি বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে তা প্রকাশ করলো।

প্রতিবেদনে বিটিআরসি সব মিলে ২৫ প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী হিসেবে মোস্তাফা জব্বার প্রথম দফায় দায়িত্ব নেওয়ার পর অপারেটরগুলোর প্যাকেজ সংখ্যা একটি নির্দিষ্ট সীমায় নামিয়ে আনার কথা জানান। এ সংখ্যা ৩৫টি করার বিষয়ে নির্দেশনাও দেন তিনি। 

ওই সময় রবি’র মোট প্যাকেজ ছিল ২৫৮টি। যেটি ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়ে ১৫০টিতে নামিয়ে আনা গেছে।

তাছাড়া বাংলালিংকের চালু থাকা ৩৯টি প্যাকেজ ৩১টিতে নামিয়ে আনতে পেরেছে বিটিআরসি।

এর বাইরে গ্রামীণফোনের তখন ছিল ৩৫ প্যাকেজ, যা এখন ২৮টিতে নেমে এসেছে।

একমাত্র সরকারি মালিকানার টেলিটকের প্যাকেজ একটি কমে হয়েছে ২৬টি।

এএডি/জেডএ/আরআর/মার্চ ০৬/২০২০/০২.৫০

*

*

আরও পড়ুন