ইলন মাস্কের টানেল মিশন বাস্তবতার পথে

বোরিং কোম্পানির নির্মিত প্রথম টানেল। ছবি: বোরিং কোম্পানি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর: ইলন মাস্কের বোরিং কোম্পানি তাদের প্রথম টানেল নির্মাণের কাজ সম্পন্ন করেছে।

কনজ্যুমার ইলেকট্রনিকস শো বা সিইএসের আয়োজক প্রতিষ্ঠান লাস ভেগাস কনভেনশন অ্যান্ড ভিজিটরস অথোরিটির জন্য তারা এই টানেলটি নির্মাণ করে।

টানেলটি প্রতিষ্ঠানটির দক্ষিণ হলের সঙ্গে পশ্চিম হলকে সংযুক্ত করবে। যার দৈর্ঘ প্রায় এক মাইল।

Techshohor Youtube

বর্তমানে এই দুটি হলের মধ্যে যাতায়াত করতে ১৫ মিনিটের মতো সময় লাগে। ইলন মাস্কের দাবি বোরিং কোম্পানির টানেলের মাধ্যমে যাতায়াতে সময় লাগবে মাত্র ১ মিনিট। টানেলে গাড়ি চলবে প্রতি ঘণ্টায় ১৫৫ মাইল বেগে।

প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত দুটি টানেলের মধ্যে একটির কাজ শেষ হয়েছে, এখন ঠিক পাশে আরেকটির কাজ শুরু হবে। ভূমির ৪০ ফুট গভীরে অবস্থান করবে এই টানেলগুলো। সবকিছু ঠিক থাকলে এক বছরের মধ্যেই মানুষ এই টানেলের মাধ্যমে যাতায়াত করতে পারবে।

ইলন মাস্কের দাবি, প্রতি ঘণ্টায় ৪,৪০০ যাত্রী বহন করতে সক্ষম এই টানেলগুলো। টানেলগুলোর মধ্যে চলবে ১৬ জন যাত্রী বহনকারী যানবাহন যা তৈরি করা হবে টেসলা মডেল থ্রি অথবা মডেল এক্সের আদলে।

এমন ফিউচারিস্টিক প্রকল্পে লাস ভেগাস কনভেনশন অ্যান্ড ভিজিটরস অথোরিটি ব্যায় করছে পাঁচ কোটি ২৫ লাখ ডলার। তবে ভবিষ্যৎ যাতায়াতব্যবস্থার মশালবাহক হতে পেরে আনন্দিত সংস্থাটি। এটিকে গুরুত্বপূর্ণ মাইলস্টোন বলে আখ্যা দিয়েছেন সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা স্টিভ হিল।

এমআর/ ফেব্রু ১৭/০৯.৩০/২০২০

*

*

আরও পড়ুন